রাখাইনে সেনা-বিদ্রোহী সংঘর্ষ, ৫ রোহিঙ্গা নিহত

ঢাকা অফিস ॥ মিয়ানমারের সংঘাতবিক্ষুব্ধ পশ্চিমাঞ্চলীয় রাখাইন রাজ্যে সেনাদের সঙ্গে বিদ্রোহীদের সংঘর্ষে এক শিশু-সহ অন্তত পাঁচ রোহিঙ্গা নিহত হয়েছেন। সংঘর্ষে আরও বেশ কয়েকজন আহতও হয়েছেন বলে রোববার স্থানীয় এক এমপি এবং দুই বাসিন্দা জানিয়েছেন। রাখাইনের সশস্ত্র বিদ্রোহীগোষ্ঠী আরাকান আর্মির মুখপাত্র খিন থু খা এবং আঞ্চলিক এমপি তুন থার সেইন বলেন, শনিবার সেনাবাহিনীর গাড়িবহর রাখাইনের এমরাউক ইউ শহর অতিক্রমের সময় তাতে বিদ্রোহীরা হামলা চালালে সংঘর্ষ শুরু হয়। এ ব্যাপারে মন্তব্য জানতে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর দুই মুখপাত্রের সঙ্গে টেলিফোনে যোগাযোগ করেও সাড়া পায়নি রয়টার্স। এ ব্যাপারে সেনাবাহিনী ওয়েবসাইটেও তাৎক্ষণিকভাবে কোনও বিবৃতি দেয়নি। লড়াই-সংঘর্ষে বেসামরিক মানুষ হতাহতের ঘটনায় মিয়ানমারের সরকারি বাহিনীকে দায়ী করেছেন আরাকান আর্মির মুখপাত্র খিন থু খা। তবে দেশটির সরকারি মুখপাত্র এ ব্যাপারে মন্তব্য করতে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন। রাখাইনের প্রত্যন্ত ওই অঞ্চলে হামলার বিস্তারিত তথ্য নিরপেক্ষ সূত্রে নিশ্চিত হতে পারেনি রয়টার্স। সহিংসতা বিধ্বস্ত ওই অঞ্চলে সাংবাদিক প্রবেশে কড়াকড়ির আছে। ইন্টারনেট সংযোগও সচল নেই। আরাকান আর্মির মুখপাত্র এক বার্তায় বলেছেন, রাখাইনের বু তা লোন গ্রামে মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর গোলা আঘাত হেনেছে। এতে অন্তত চারজন নিহত হয়েছে। ওদিকে এমপি তুন থার সেইন, স্থানীয় একজন স্বাস্থ্যকর্মী ও একজন গ্রামবাসী বলেছেন, নিপীড়িত সংখ্যালঘু রোহিঙ্গা মুসলিম সম্প্রদায়ের কমপক্ষে পাঁচ সদস্য নিহত হয়েছেন। তাদের মধ্যে ১২ বছরের এক শিশুও রয়েছে। তবে আহতের সংখ্যা নিয়ে বিপরীতমুখী তথ্য পাওয়া গেছে।ছয় থেকে ১১ জন আহত হয়েছেন বলে শোনা যাচ্ছে। ২০১৭ সালের আগস্টে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর অভিযানের মুখে ৭ লাখ ৩০ হাজারের বেশি রোহিঙ্গা বাংলাদেশে পালিয়ে আসতে বাধ্য হয়েছে। জাতিসংঘ বলছে, গণহত্যার উদ্দেশ্যে এ অভিযান পরিচালনা করেছে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী। তবে মিয়ানমার গণহত্যার এ অভিযোগ অস্বীকার করেছে।

আরো খবর...