মেয়েদের মতো ছেলেরাও লাঞ্ছিত হয় – তথাগত

বিনোদন বাজার ॥ বলিউড অভিনেতা সুশান্ত সিং রাজপুতের আত্মহত্যার পর অবসাদ নিয়ে অনেকে মুখ খুলেছেন। ইন্ডাস্ট্রিতে কাজ পাওয়ার ক্ষেত্রে অনেক শিল্পী অনৈতিক প্রস্তাব পেয়েছেন তা নিয়েও কথা বলছেন অনেকে। সুশান্ত আত্মহত্যা করার পর তার প্রভাব টলিউড ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে পড়েছে। এবার এ বিষয়ে কথা বলেছেন ভারতীয় বাংলা চলচ্চিত্র ও টেলিভিশন অভিনেতা তথাগত মুখার্জি। ইন্ডাস্ট্রিতে পা রেখে যে তিক্ত অভিজ্ঞতা হয়েছিলেন তা জানিয়েছেন এই নির্মাতা। তথাগত বলেনÑইন্ডাস্ট্রিতে যখন আসি তখন আমার বয়স বাইশ। অভিনয় করতেই চেয়েছিলাম। ওই সময় ধারাবাহিকে কাস্টিংয়ের দায়িত্বে চ্যানেল থাকত না। চরিত্র নির্বাচনের বিষয়টা প্রযোজকদের হাতে ছিল। এখন টেলিভিশনে চরিত্র নির্বাচন চ্যানেলের মধ্যস্থতায় অনেক বেশি পরিচ্ছন্ন বলা যেতে পারে। একটি নতুন মেয়ে ইন্ডাস্ট্রিতে এলে যেভাবে চরিত্র নির্বাচনের ক্ষেত্রে অপমান বা লাঞ্ছনার শিকার হতে হয়, একজন ছেলেকেও সেভাবে বা বলতে পারি তার থেকেও বেশি লাঞ্ছনার শিকার হতে হয়। ছেলেরা বলতে পারে না। ছেলেরা ততদিনে কিন্তু পাড়ার মামা, দাদা, কাকাদের দ্বারা যৌন নিগ্রহের শিকার হয়েছে। আমিও হয়েছি। আমার বন্ধুরাও। ওই দাদা-কাকারাই পর্ন ম্যাগাজিনটা প্রথম হাতে ধরায়। নিজের সঙ্গে ঘটা অভিজ্ঞতা জানিয়ে এই অভিনেতা বলেনÑদু’জন পরিচালক আমার কাছে ‘বিশেষ ট্রিটমেন্ট’ আশা করেছিল। তার মধ্যে একজন বাড়িতে ডেকেছিল। যাওয়ার পর দরজা-জানলা বন্ধ করে, লাইট জ¦ালিয়ে অভিনয় শেখাব বলে কাছে নিতে চেয়েছিল। অবস্থা বুঝে আমি বেরিয়ে আসি। তবে ছোট থেকেই শুনেছি পরিচালক আর প্রযোজককে সন্তুষ্ট করা না হলে ব্ল্যাকলিস্ট করে দেওয়া হয়। এখনো শোনা যায়। শৈশবে থিয়েটারের সঙ্গে যুক্ত হন তথাগত। তারপর নাম লেখান টেলিভিশনে। অনেক দর্শকপ্রিয় ধারাবাহিকে কাজ করেছেন তিনি। তার অভিনীত উল্লেখযোগ্য চলচ্চিত্র হলোÑ‘বাদশাহী আংটি’, ‘বাস্তব’, ‘লাল রঙের দুনিয়া’ প্রভৃতি। তার নির্মিত চলচ্চিত্র হলোÑ‘ইউনিকর্ণ’, ‘শুঁয়োপোকা’, ‘বুনো’, ‘হোলি বোল’ প্রভৃতি।

আরো খবর...