মেহেরপুরে স্বামী পরিত্যক্তা নারীকে গণধর্ষণের অভিযোগে ৩ যুবক আটক

মেহেরপুর প্রতিনিধি ॥ মেহেরপুর জেলা শহরের শেখপাড়ায় মধ্যবয়সী স্বামী পরিত্যক্তা এক মহিলাকে গণধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। গণধর্ষণের অভিযোগে ওই নারী বাদী হয়ে ৩জনকে আসামী করে একটি ধর্ষণ মামলা করেছেন। মামলার সূত্র ধরে মেহেরপুর সদর থানা পুলিশ তিন যুবককে আটক করেছে। আটককৃতরা হলেন-মেহেরপুর শহরের শেখ পাড়ার মৃত আমিন উদ্দীনের ছেলে রাব্বি হোসেন (২৫), আব্দুস সামাদের ছেলে সাকিল হোসেন (২২) ও আনারুল ইসলামের ছেলে ইমরান হোসেন (২৩)। বৃহস্পতিবার দুপুরে আটক তিন যুবককে মেহেরপুর আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। গত বুধবার মেহেরপুর সদর থানার পুলিশ পরিদর্শন আমিনুল ইসলাম, এস আই আহসান হাবিব ও এসআই অর্জন কুমার সরকারের নেতৃত্বে পুলিশের একটিদল মেহেরপুর শহর থেকে তিন যুবককে আটক করেছিলেন। ধর্ষিতা নারী জানান আমি বাউল সম্রাট লালন শাহের একজন ভক্ত। সে সুবাদে বুধবার বিকেলে মেহেরপুর সদর উপজেলার কাঁলাচাঁদপুর গ্রামের আরেক মহিলা ভক্তের বাড়িতে গিয়েছিলাম। সেখানে গিয়ে মহিলা ভত্তকে বাড়ি না পেয়ে ফিরে আসছিলাম। পথে কোন যানবাহন না পেয়ে পায়ে হেঁটে বাড়িতে আসছিলাম। সন্ধ্যার দিকে মেহেরপুর শহরের শেখ পাড়ার পৌঁছানোর পর পূর্ব পরিচিত লালন ভক্ত আহসান আলীর সাথে দেখা হয়। সে একটি আমবাগানের পাহারাদার হিসাবে কর্মরত ছিলেন। এসময় আহসান আম ও লিচু খাওয়ানোর জন্য আমাকে পাশে বাগানে নিয়ে যান। বাগানের মধ্যে গিয়ে দেখি আরো দু’জন ছেলে বসে আছে। তারা আহসানের সাথে আম পাহারা দেয়। আমি তাদের সাথে বসে আম খাচ্ছিলাম। এসময় তিন যুবক এসে আহসান ও তার দু’সঙ্গীকে ছুরি দেখিয়ে হত্যার হুমকি দিয়ে বসিয়ে রাখে। এসময় আমাকে তুলে নিয়ে গিয়ে বাগানের নির্জন স্থানে তিন যুবক রাতভর পালাক্রমে ধর্ষণ করে। পরে যাবার সময় আমার ব্যাগে থাকা জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি, ছবি ও কিছু টাকা নিয়ে যায়। এদিকে বাগান পাহারাদার লালন ভক্ত আহসান জানান সন্ধ্যায় আম বাগানে আমার পরিচিত এক আপাকে নিয়ে আম খেতে দিয়েছিলাম। এসময় এলাকার রাব্বি, সাকিল ও ইমরান আমাদের তিনজনকে অস্ত্র দেখিয়ে বসিয়ে রেখে ওই আপাকে নির্জনে নিয়ে পালাক্রমে ধর্ষণ করে পালিয়ে যায়। পরে আপাকে আমরা উদ্ধার মেহেরপুর হাসপাতালে ভর্তি করি। মেহেরপুর সদর থানার পুলিশ পরিদর্শক আমিনুল ইসলাম জানান ঘটনার তদন্ত করা হবে।

 

আরো খবর...