মেসি বেতন কাটার পক্ষেই ছিলেন ঃ বার্সেলোনা প্রেসিডেন্ট

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ করোনাভাইরাসের ছোবলে কোণঠাসা হয়ে পড়েছে বিশ্ব ক্রীড়াঙ্গন। জরুরি পরিস্থিতিতে ক্লাবের পাশে দাঁড়াতে লিওনেল মেসি কম বেতন নেওয়ার পক্ষে আগে থেকেই ছিলেন বলে জানিয়েছেন বার্সেলোনা সভাপতি জোসেপ মারিয়া বার্তোমেউ। খেলোয়াড়দের সম্ভাব্য বেতন কাটার সিদ্ধান্ত, তাতে খেলোয়াড়দের দ্বিমতের গুঞ্জন এবং সবকিছুর প্রেক্ষিতে আর্জেন্টাইন তারকার কড়া মন্তব্যের পর এমনটা জানালেন বার্তোমেউ। সব ধরনের খেলাধুলা বন্ধ হয়ে যাওয়ায় আর্থিক সঙ্কটে পড়তে যাচ্ছে বিশ্বের প্রায় সব ক্লাব। সে ধাক্কা কিছুটা কাটিয়ে উঠতে বার্সেলোনা খেলোয়াড়দের বেতন ৭০ শতাংশ কাটার সিদ্ধান্ত নিতে যাচ্ছে বলে কদিন আগে গণমাধ্যমে খবর আসে। খেলোয়াড়রা সেই সিদ্ধান্তে একমত নয় বলেও খবর আসে। শুরু হয় তীব্র সমালোচনা। পরে গত সোমবার অধিনায়ক মেসি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে জানান, সঙ্কটকালীন সময়ে ক্লাবের অন্য কর্মচারীরা যেন শতভাগ বেতন পান, এর জন্য সব ধরনের সহযোগিতা করতে তারা প্রস্তুত। এরপরই জরুরি অবস্থা থাকাকালীন সময়ে খেলোয়াড়দের বেতনের ৭০ শতাংশ কেটে নেওয়া হবে বলে জানায় বার্সেলোনা। সাহায্যের ঘোষণা দেওয়ার পাশাপাশি সোমবারের বার্তায় মেসি তাদের নিয়ে ভিত্তিহীন বাজে মন্তব্য করা ওইসব মানুষের কড়া সমালোচনাও করেন। মঙ্গলবার কাতালান দৈনিক স্পোর্তকে বার্তোমেউও সেটাই জানান। বলেন, মেসি কখনই বার্সেলোনার বেতন কাটার সিদ্ধান্তে বিরোধিতা করেনি। “প্রথম দিন থেকেই মেসি আমাকে বলে আসছিল, এই বেতন কমাতেই হবে।” “এই প্রস্তাব এসেছিল অধিনায়কের কাছ থেকে। এটা এমন কিছু যা ক্লাবের প্রতি তাদের দায়বদ্ধতা ফুটিয়ে তোলে।” সবকিছু না জেনে ক্লাবের ভেতরের ও বাইরের মানুষ যা বলেছে, তাতে খেলোয়াড়রা হতাশ হয়েছেন বলেও মনে করেন বার্তোমেউ।

আরো খবর...