মিল গেটে তালিকায় দর এক, আর বিক্রি দর আরেক

কুষ্টিয়ায় মোকামে হানা, জরিমানা

নিজ সংবাদ ॥ কোরোনা ভাইরাসের সুযোগ নিয়ে জেলা প্রশাসন ও বাজার কর্মকর্তারা বারবার মিল মালিকদের সতর্ক করলেও অনেক অসাধু মিল মালিক নির্দেশনা মানছেন না। তারা নিম্নমানের চালও বেশি দামে বিক্রি করছেন। আবার উৎপাদন খরচ কম হলেও তারা বেশি দামে বিক্রি করছেন। যেখানে উন্নত জাতের সরু মিনিকেট চাল বিক্রির বিষয়ে মিল গেটে ৫০ টাকার বেশি নেয়া যাবে না মর্মে নির্দেশনা থাকলেও অন্য জাতের চাউল মিল মালিকরা এ সুযোগে ৫০ টাকা দরে বিক্রি করছে। কুষ্টিয়ার খাজানগর মোকামে অভিযান চালিয়ে এমন একাধিক মিল পাওয়া গেছে। গতকাল মঙ্গলবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত বেশ কিছু মিলে গিয়ে অভিযান চালানো হয়। দুটি  মিল গেটে তালিকায় ৪৬ টাকা লিখে রাখলেও চাল বিক্রি করছে ৫০ টাকায়। তাদের জরিমানা করে ভ্রাম্যমান আদালত।

কুষ্টিয়া জেলা খাদ্য কর্মকর্তা মনোয়ার হোসেন বলেন- চালের পর্যাপ্ত সরবরাহ ও মজুদ রয়েছে। তারপরও অনেক মিল মালিক বেশি দামে চাল বিক্রি করছে। তাদের জেলা প্রশাসন থেকে সতর্ক করে দেয়ার পরও অনেকে নির্দেশনা মানছেন না। তাদের ব্যাপারে অভিযান চালানো হচ্ছে। খাজানগর মোকামে সকাল থেকে কমপক্ষে ৭টি মিলে অভিযান চালানো হয়। দুটি মিল এর মধ্যে ব্যাপারী ও সুবর্ণা অটো রাইস মিলে গিয়ে দেখা যায় তালিকা টাঙ্গানো আছে প্রতি কেজি ৪৬ টাকা। তারা বিক্রি করছিল ৫০ টাকা। চালান ঘেঁটে দেখা যায় কেজিতে ৪ টাকা বেশি বিক্রি করে আসছে তারা।

এদিকে বেশি দামে চাল বিক্রির অভিযোগে সহকারি কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট আবু রাসেল দুটি মিলকে ১৭ হাজার টাকা জরিমানা করে সতর্ক করে দেয়। এ সময় জেলা খাদ্য কর্মকর্তা মনোয়ার হোসেন, উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক শাহ নেওয়াজ উপস্থিত ছিলেন।

আরো খবর...