মিরপুরে শাহিনা হত্যার রহস্য উন্মোচন

আমলা অফিস ॥ কুষ্টিয়ার মিরপুরে শাহিনা খাতুন (৩২) হত্যার রহস্য উন্মোচন করেছে পুলিশ। পুলিশ হত্যাকান্ডের মূলহোতা সেলিমের ব্যবহৃত মুঠোফোন ট্যাকিং করে তাকেসহ আরো ৩ জনকে আটক করতে সক্ষম হয়। সূত্র জানায়, উপজেলার ফুলবাড়ীয়া ইউনিয়নের নওদাপাড়া গ্রামের  লোকমান শাহ’র ছেলে সেলিম গত ২০১৯ সালের ৩০ নভেম্বর মুঠোফোনে ঝিনাইদহ জেলার শৈলকুপা উাপজেলার লাঙ্গলবাধ গ্রামের মহব্বুল মন্ডলের স্ত্রী শাহিনাকে ডেকে নিয়ে নয়নপুর ক্যানাল পাড়ে রাতভর পালাক্রমে ধর্ষণ করে। পরে ধর্ষণকারীরা ওই নারীকে হত্যা করে নওদাপাড়া গ্রামস্থ জনৈক লুৎফর রহমানের পারিবারিক গোরস্থানের পশ্চিম পাশে বাগানের মধ্যে ফেলে রেখে যায়। পরের দিন সকালে পুলিশ হাত ও মুখ বাঁধা অজ্ঞাত নারীর লাশ উদ্ধার করে। পরে পুলিশ ব্যুরো অফ ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) সহায়তায় ভিকটিমের আঙ্গুলের ছাপ সংগ্রহ করে তার পরিচয় জানতে পারে। তবে এ হত্যাকান্ডের সাথে জড়িতদের সনাক্তে পুলিশকে হিমশিম খেতে হয়। অবশেষে ঘটনার আড়াই মাস পর ১৮ ফেব্র“য়ারি রাতে পুলিশ এ হত্যাকান্ডের মূলহোতা সেলিমকে ঢাকার আশুলিয়া এলাকা থেকে আটক করে। পরে তাকে আদালতে হাজির করা হলে সে বিজ্ঞ ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দিতে হত্যাকান্ডে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেন। আদালতে দেয়া জবানবন্দিতে সেলিম জানায় ঘটনার রাতে সে ও তার আরো তিন বন্ধু মিলে ধর্ষণের পর তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে। এ ধর্ষণ ও হত্যাকান্ডে সেলিম ছাড়াও নওদাপাড়া গ্রামের মৃত হান্নান শেখের ছেলে শিহাব আলী (৩৮), রহমত মন্ডলের ছেলে শাহানুর ইসলাম ওরফে বুড়ো (৩২) ও আব্দুল মালেকের ছেলে ময়নাল (২৮) জড়িত রয়েছে বলে জানান। ধর্ষণের পর শাহিনাকে তারা জোরপূর্বক ঘটনাস্থলের অদূরে কুষ্টিয়া-মেহেরপুর সড়কের পরিবহনের তুলে দেয়ার চেষ্টা করে। পথিমধ্যে শাহিনা চিৎকার শুরু করলে সেলিম তাকে ওই বাগানের মধ্যে নিয়ে যায়। এ সময়ে অভিযুক্ত আসামী শাহানুর ইসলাম ওরফে বুড়ো শাহিনার গলায় ওড়না প্যাচিয়ে ধরে, শিহাব আলী গামছা দিয়ে দু’হাত পিছমোড়া করে বেধে ফেলে, ময়নাল তার মাথার চুল এবং সেলিম দুই পা চাপিয়া ধরে হত্যা নিশ্চিত করে। এ ব্যাপারে মামলা তদন্তকারী কর্মকর্তা মিরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ আবুল কালাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, প্রযুক্তির সাহায্যে হত্যাকান্ডর আড়াই মাসের মাথায় জড়িতদের আটক করতে সক্ষম হই। তিনি আরো জানান সেলিমের স্বীকারোক্তি মোতাবেক অপর ৩ জনকে নিজ নিজ বাড়ী থেকে আটক করা হয়। আটককৃতদের আদালতের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে।

আরো খবর...