মিরপুরে একযোগে ৪০টি কৃষি ব্লকে আলোক ফাঁদ

আমলা অফিস ॥ নির্বিঘেœ আমন ধান কৃষকের ঘরে তুলতে ক্ষতিকর পোকা বিশেষ করে বাদামী গাছ ফড়িং এর উপস্থিতি নির্ণয়ে কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার ৪০টি কৃষি ব্লকে একযোগে আলোক ফাঁদ স্থাপন করা হয়েছে। গতকাল সোমবার সন্ধ্যায় উপজেলার সকল ইউনিয়নের সকল কৃষি ব্লকে এ আলোক ফাঁদ স্থাপন করা হয়। মিরপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ রমেশ চন্দ্র ঘোষ জানান, ক্ষতিকর পোকা বিশেষ করে বাদামী গাছ ফড়িং এর উপস্থিতি নির্ণয়ে জন্য আমরা উপজেলাব্যাপি এক যোগে আলোক ফাঁদ স্থাপন করেছি। সেই সাথে পোকা ব্যবস্থপনায় কৃষকদের পরামর্শ প্রদান করেছি। তিনি বলেন, রাতের বেলা আলোতে অনেক পোকা আকৃষ্ট হয়। তাই আলো ব্যবহার করে ক্ষতিকর পোকা নিয়ন্ত্রণ করা যায়। আলোর উৎস হিসাবে হ্যাজাক, হারিকেন, মশাল ব্যবহার করে তার নিচে একটি পাত্রে পানি রাখতে হবে এবং পানিতে সাবানের গুঁড়া মিশ্রিত করে দিতে হবে। কেরোসিন মিশ্রিত পানিও ব্যবহার করা যেতে পারে। আলোতে আকৃষ্ট হয়ে পোকা উড়ে আসবে এবং সেখানে ধাক্কা খেয়ে পানির পাত্রে পড়ে মারা যাবে। সন্ধ্যা থেকে শুরু করে ২-৩ ঘণ্টা পর্যন্ত আলোক ফাঁদ কার্যকর থাকে। আলোক ফাঁদ জমির বাইরে ব্যবহার করতে হবে। একা ব্যবহার না করে অনেকে মিলে ব্যবহার করলে ভালো কাজ করবে। জমির আইল থেকে আনুমানিক ৫০ মিটার দূরে স্থান নির্বাচন করতে হবে। প্রথমে বাঁশের তিনটি খুঁটি ত্রিভুজ আকারে মাটিতে পুঁতে মাথার অংশ একত্রে বেঁধে দিতে হয়। এরপর মাটি থেকে আড়াই থেকে তিন ফুট উপরে একটি জলন্তবাল্ব খুঁটির তিন মাথার সংযোগস্থলে রশি সাহায্যে ঝুলিয়ে দিতে হবে। এর নিচে একটি বড় আকারের প্লাস্টিকের গামলা বা পাত্রে ডিটারজেন্ট পাউডার অথবা কেরোসিন মিশ্রিত পানি রেখে এমনভাবে বসাতে হবে, যাতে পোকা এর বাহিরে না পড়ে।

আরো খবর...