ভেড়ামারা লেডিস ক্লাব ও অফিসার্স ক্লাবের আয়োজনে পিঠা উৎসব

ভেড়ামারা প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা লেডিস ক্লাব ও অফিসার্স ক্লাবের উদ্যোগে পিঠা উৎসব মঙ্গলবার রাতে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের বাসভবনের সামনে অনুষ্ঠিত হয়। উৎসবে বাংলার ঐতিহ্যবাহী  দেশীয় নানা রকম পিঠা যেমন পাটিসাপটা, দুধপুলি, নারকেল পুলি, পায়েস, গোলাপ পিঠা, খেজুরী পিঠা, ছাঁচ পিঠা, গকুল পিঠা, শেড গজ্জা পিঠা, চিতই, ভাপা, নকশি পিঠা, ফুল পিঠা সহ বাহারি সুস্বাদু পিঠা স্থান পায়। ভেড়ামারা উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও অফিসার্স ক্লাবের সভাপতি সোহেল মারুফ ও ইউএনও এর সহধর্মীনি ও লেডিস ক্লাবের সভাপতি মোছাঃ ফারহানা ইসলাম তিম্মি’র আমন্ত্রনে উক্ত পিঠা উৎসবে যোগ দেন, ভেড়ামারা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হাজী আক্তারুজ্জামান মিঠু, চেয়ারম্যানের সহধর্মীনি ও উপজেলা জাতীয় মহিলা সংস্থার চেয়ারম্যান বলাকা পারভীন স্বপ্না, ভেড়ামারা পৌর মেয়র আলহাজ¦ শামিমুল ইসলাম ছানা, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার ফারুক আহম্মেদ, উপজেলা শিক্ষা অফিসার আহসান-আরা, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোঃ মিজানুর রহমান, প্রকল্প কর্মকর্তা আবু রায়হান, মনি গ্র“পের চেয়ারম্যান মোঃ মনিরুল ইসলাম মনি, ভেড়ামারা প্রেসক্লাবের যুগ্ন আহবায়ক মোঃ আবু ওবাইদা-আল-মাহাদী, সাংবাদিক জাহিদ হাসান প্রমূখ। ইউএনও এর সহধর্মীনি ও লেডিস ক্লাবের সভাপতি ফারহানা ইসলাম তিম্মি বলেন, আকাশ সংস্কৃতির যুগে বর্তমানে অনেককিছু বদলে গেছে। এখন প্রতিটি  দেশ স্ব-স্ব সংস্কৃতি ইন্টারনেটের মাধ্যমে বিশ্বে তুলে ধরছে। সেই আন্দোলনে বাংলাদেশ তথা আজকের প্রজন্মও সংশ্লিষ্ট। তাদের সামনে  যেমন বিজাতীয় সংস্কৃতি উপস্থিত হচ্ছে তেমনি দেশীয় সংস্কৃতিও। তাদের খাবারের মেনুতে ঠাঁই পাচ্ছে দেশ-বিদেশের মুখরোচক খাবার। অথচ অনেকেই জানেন না, আমাদের রয়েছে গৌরব করার মতো খাবার সংস্কৃতি। একসময় বাংলাদেশকে বলা হত পিঠা-পুলি দেশ। কালের পরিক্রমায় সে-ঐতিহ্য হারাতে বসেছে। তা যেন হারিয়ে না যায়, তাকে ধরে রাখার প্রয়াসে লেডিস ক্লাব ও অফিসার্স ক্লাব যৌথ ভাবে আয়োজন করেছে এ পিঠা উৎসবের।

আরো খবর...