ভারতের সঙ্গে সম্পাদিত চুক্তিকে কেন্দ্র করে মিথ্যা রিপোর্টের জন্য দুঃখ করলেন তথ্যমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দিল্লী সফরকালে ভারতের সঙ্গে সম্পাদিত কয়েকটি চুক্তির বিষয়ে এক শ্রেণীর গণমাধ্যমে কিছু মিথ্যা ও বানোয়াট রিপোর্টের ব্যাপারে দুঃখ প্রকাশ করেছেন। তিনি গতকাল জাতীয় প্রেসক্লাবে চট্টগ্রাম বিভাগ সংবাদিক ফোরামের (সিবিএসএফ) দ্বিবার্ষিক সম্মেলনে বক্তৃতাকালে বলেন, ‘আমরা ভারতের ত্রিপুরায় অতিরিক্ত এলপিজি গ্যাস রফতানি করবো-তাছাড়া বঙ্গোপসাগরে আমাদের কোস্টগার্ডের জন্য মঞ্জুরি হিসেবে ২০টি রাডার স্থাপনের জন্য দিচ্ছে ভারত।’ তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ তার বক্তব্যে গণমাধ্যমকে রাষ্ট্রের চতুর্থ স্তম্ভ এবং সমাজের বিবেক তৈরির অন্যতম কান্ডারি হিসেবে উল্লেখ করার পাশাপাশি দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর সাম্প্রতিক ভারত সফরে সম্পাদিক চুক্তির বিষয়ে বিবিসি বাংলা অনলাইনসহ কয়েকটি সংবাদ মাধ্যম অসত্য রিপোর্ট প্রকাশ করেছিল।’ মন্ত্রী বলেন, ‘বিদেশ থেকে আমদানিকৃত এবং চট্টগ্রামের ইস্টার্ন রিফাইনারিতে অশোধিত পেট্রোলিয়াম পরিশোধনের সময় উপজাত হিসেবে প্রাপ্ত এলপিজি বা তরল গ্যাস আমাদের ব্যবহারের পর উদ্বৃত্ত অংশ ভারতে রফতানি করবো, আর তারা লিখেছিল প্রাকৃতিক গ্যাস রফতানির কল্পিত সংবাদ। আবার, ভারত আমাদের নৌবাহিনীকে গ্রান্ট হিসেবে ২০টি রাডার দিচ্ছে, আর কিছু সংবাদ মাধ্যম লিখেছিল, ভারত রাডার বসিয়ে চীনের ওপর নজরদারি করবে। এগুলো অসত্য সংবাদ, যা হলুদ সাংবাদিকতার পর্যায়ে পড়ে।’তিনি বলেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কোনো অন্যায়কে প্রশ্রয় দিচ্ছেন না। সমস্ত অন্যায়ের বিরুদ্ধে তিনি দল-মত নির্বিশেষে ব্যবস্থা নিচ্ছেন, যা অতীতে অন্য কেউ নেয়নি। দাবি তোলার আগেই বুয়েটের ন্যাক্কারজনক ঘটনায় সন্দেহভাজন সকলকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে সমস্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান তল্লাশী চালিয়ে অপরাধের সাথে যুক্তদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। ১১ বছরের সরকারে অনুপ্রবেশকারী ঢুকেছে। এই আবর্জনা পরিষ্কার করতে আমরা বদ্ধপরিকর। ঠিক এ অবস্থাতেই বিএনপি’র কেউ কেউ ঘোলা পানিতে মাছ শিকারের অপচেষ্টা করছে, যা সফল হবে না।’ বিএনপি’র উদ্দেশ্যে মন্ত্রী বলেন, ‘বুয়েটে সনি হত্যা, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রীদের শ্লীলতাহানির বিরুদ্ধে বিএনপি কি কোনো ব্যবস্থা নিয়েছিল? না, নেয়নি। অতীতটা একটু দেখুন, নিজেদের দিকে তাকান। তারপর কথা বলুন।’ তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেন, আবরার হত্যার ঘটনায় কূটনীতিকদের মন্তব্য অনভিপ্রেত। তিনি বলেন, ‘মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে প্রতিবছর অসংখ্য ছাত্র-ছাত্রী গুলিবিদ্ধ হয়ে হতাহত হয়, গত মাসেও এ ঘটনা ঘটেছে। যুক্তরাষ্ট্রে যখন স্কুলে গুলিবর্ষণে ছাত্র-ছাত্রীরা হতাহত হয়, পাকিস্তানে শিয়া মসজিদ পুড়িয়ে দেয়া হয়, তখন কি তারা সবসময় উদ্বেগ প্রকাশ করেন? বুয়েটে ছাত্র নিহত হবার ঘটনা আমাদের অভ্যন্তরীণ বিষয়। এ বিষয়ে বিদেশি কূটনীতিকদের মন্তব্য অনভিপ্রেত। তিনি আরো বলেন, যুক্তরাষ্ট্রে প্রতিবছর শতশত ছাত্র-ছাত্রী হতাহত হবার ঘটনায় আমি উদ্বিগ্ন।’ তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘কয়েকটি বিদেশি মিশন আবরার হত্যাকান্ডের পর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, জাপানসহ আমাদের সকল উন্নয়ন সহযোগী রাষ্ট্রকে তাদের ধারাবাহিক সহযোগিতার জন্য ধন্যবাদ জানিয়েই বলতে চাই, এ বিষয়ে তাদের মন্তব্য অনভিপ্রেত। অনুষ্ঠানে শিক্ষা উপমন্ত্রী মুহিবুল হাসান বলেন, ‘আমার-আপনার হারানো সন্তানকে পুঁজি করে কোনো সুবিধাবাদী নোংরা রাজনীতি করবেন না, ক্ষমতায় যাওয়ার স্বপ্ন দেখবেন না, তাতে সফল হবেন না।’ চট্টগ্রাম বিভাগের ১১ টি জেলার সাংবাদিকদের এই সংগঠনের সভাপতি দৈনিক করতোয়ার বার্তা সম্পাদক মাহমুদুর রহমান খোকনের সভাপতিত্বে সভায় আরো বক্তব্য রাখেন ডিবিসি টিভি’র চেয়ারম্যান ইকবাল সোবহান চৌধুরী, ফোরামের মহাসচিব শাহীন উল ইসলাম চৌধুরী প্রমুখ।

আরো খবর...