বুলবুলের জন্য প্রস্তুত সাত জেলার আশ্রয়কেন্দ্র – দুর্যোগ প্রতিমন্ত্রী

ঢাকা অফিস ॥ ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের প্রভাবে জান-মালের ক্ষতি এড়াতে সাত উপকূলীয় জেলার আশ্রয়কেন্দ্রগুলোকে প্রস্তুত রাখা হয়েছে বলে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী এনামুর রহমান জানিয়েছেন। গতকাল শুক্রবার বিকালে সচিবালয়ে প্রস্তুতি সভা শেষে সাংবাদিকদের তিনি বলেন, ঘূর্ণিঝড়টি শনিবার সন্ধ্যা থেকে মধ্যরাতে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে আঘাত হানতে পারে। তবে এতে ফসল ছাড়া বড় ধরণের ক্ষয়ক্ষতির শঙ্কা নেই। “ক্ষয়ক্ষতি মোকাবেলায় জেলা-উপজেলা পর্যায়ে দেশের ৫৬ হাজার স্বেচ্ছারসবী প্রস্তুত রয়েছে। পরিস্থিতি বিবেচনায় নিয়ে যথাসময়ে লোকজনকে আশ্রয়কেন্দ্রে সরিয়ে নেওয়া হবে।” বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট অতি প্রবল ঘূর্ণিঝড় বুলবুল ঘণ্টায় সোয়াশ কিলোমিটার বেগের বাতাসের শক্তি নিয়ে ধেয়ে আসছে উপকূলের দিকে, আপাতত এর গতিমুখ সুন্দরবনের দিকে। প্রতিমন্ত্রী জানান, খুলনা, সাতক্ষীরা, বাগেরহাট, বরগুনা, পটুয়াখালী, পিরোজপুর ও ভোলা জেলাকে ঝুঁকিপূর্ণ বিবেচনায় রাখা হয়েছে। সাত জেলার আশ্রয় কেন্দ্রগুলোতে লোক সরিয়ে নেওয়ার জন্য প্রস্তুতি রয়েছে। আশ্রয় কেন্দ্রগুলোয় ২০০০ প্যাকেট করে শুকনো খাবার পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। তিনি বলেন, এটার যে গতি ও যেদিকে অগ্রসর হচ্ছে তাতে আঘাত হানবে। ঘূর্ণিঝড়ের ফলে পাঁচ থেকে সাত ফুট উচ্চতার জলোচ্ছ্বাসের শঙ্কা রয়েছে। গতি আরও বাড়লেও যে প্রস্তুতি রয়েছে, তাতে ফসল ছাড়া বড় ধরণের ক্ষতির শঙ্কা নেই। “৯ নভেম্বর সন্ধ্যা থেকে মধ্য রাতের মধ্যে আঘাত হানতে পারে। এ জন্যে ঝড়ের ১৪ ঘণ্টা আগে লোকজন সরিয়ে নেওয়ার জন্যে বলা হয় যাতে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ কম হয়। ইতোমধ্যে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় ও জেলা উপজেলা সংশ্লিষ্টদের ছুটি বাতিল করা হয়েছে।” শনিবার বেলা ১১টায় সচিবালয়ে প্রস্তুতি সভায় ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা থেকে বাসিন্দাদের সরিয়ে নেওয়ার বিষয়ে সিদ্ধান্ত হবে বলে এনামুর জানান। কখন নাগাদ আশ্রয়কেন্দ্রে সরিয়ে নেওয়া শুরু হবে জানতে চাইলে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ৫, ৬ ও ৭ নম্বর বিপদ সংকেত এলে ঝূকিপূর্ণ এলাকার মানুষদের আশ্রয়কেন্দ্রে সরিয়ে নিতে বলা হয়েছে। ঝূঁকিপূর্ণ জেলাগুলোতে জন সচেতনতা সৃষ্টিতে স্বেচ্ছাসেবকরা মাইকে ও ২২টি কমিউনিটি রেডিও সতর্কবার্তা প্রচারে কাজ করে যাচ্ছে বলে তিনি। মন্ত্রণালয়, বিভাগ, অধিদপ্তরসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন।

আরো খবর...