বিয়ের ৬ বছর পর স্ত্রী-সন্তান নিয়ে প্রকাশ্যে সাইমন

বিনোদন বাজার ॥ বিয়ের ৬ বছর পর স্ত্রী ও সন্তানকে নিয়ে প্রকাশ্যে এনে চমকে দিলে সাইমন সাদিক। এই নায়ক বিয়ে করেছেন খবরটাই জানা ছিল না তার ভক্ত-অনুরাগীদের। কিন্তু পুত্র সন্তানও আছে তার সেটি ছিল আরও চমকপ্রদ। সবাই জানতেন সাইমন অবিবাহিত। শনিবার ফেসবুকে স্ত্রী ও সন্তানের ছবি প্রকাশ করে সবার কাছে দোওয়া চেয়েছেন ‘পোড়ামন’ খ্যাত এই নায়ক। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশ করেন নিজের পুত্রের ছবি। জানালেন তার নাম সাদিক মো. সাইয়্যান। ডাক নাম টুকটুক। বয়স ৪ বছর ৪ মাস।

ফেসবুকে সাইমন লিখেছেন, বাবা-মা পৃথিবীর সবচেয়ে অমূল্য রতন। যা কিনা অনেকের মতো আমিও ভাষায় প্রকাশ করতে পারি না! আমার আব্বুকে কখনো বলিনি তুমি আমাদের কতো বড় শক্তি, ছায়া, ভালোবাসা, আরো কতো কি যে আমরা উপলব্ধি করি, তুমি আছো বলে। কোনো দিন আপনাদেরও বলিনি আমিও বাবা হয়েছি। আমার বড় ধন, আমার জীবন, আমার সন্তান, সাদিক মো. সাইয়্যান (৪ বছর ৪ মাস) আমার বড় ছেলে। ও তার বিদ্যালয় জীবনের প্রথম পরীক্ষায় প্রথম হয়েছে। একজন বাবা হিসেবে এটাই আমার সেরা মুহূর্ত। আমার টুকটুকের জন্য দোয়া করবেন যেন মানুষের মতো মানুষ হয়। বাংলাদেশকে যেন অনন্য উচ্চতায় নিয়ে যায়।

এতোদিন সন্তানকে প্রকাশ্যকে না আনার জন্যও ফেসবুক স্ট্যাটাসে ভক্তদের কাছে ক্ষমা চেয়ে নিয়েছেন পোড়ামন খ্যাত এই চিত্রনায়ক। তিনি বলেন, আমাকে ক্ষমা করবেন ওকে এতো দিন পর আপনাদের সামনে আনার জন্য। এ বিষয়ে জানতে সাইমন সাদিকের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি ফেসবুক স্ট্যাটাসের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, হ্যাঁ, আমি বিয়ে করেছি। আমার দুই পুত্র সন্তানও আছে। দীর্ঘ ৯ বছর প্রেম করার পর দুই পরিবারের সম্মতিতে ২০১৪ সালে ঢাকার মেয়ে দীপাকে বিয়ে করেন সাইমন। সাইমন-দীপা দম্পতির রয়েছে দুই ছেলে সন্তান। বড় ছেলের নাম সাদিক মো. সাইয়্যান। তার বয়স চার বছর চার মাস। সে এখন প্রথম শ্রেণিতে পড়াশোনা করেছেন। আর ছোট ছেলের নাম সাদিক মো. সাইয়্যার। তার বয়স পাঁচ মাস।

সাইমন বলেন, আমার বিয়ের বিষয়টা অনেকেই জানতো না, শুধু কাছের কয়েকজন ছাড়া। ভালোবেসে বিয়ে করেছি। দীপার সঙ্গে আমার প্রেম ছিল নয় বছরের। দুজন দুজনকে খুব ভালবাসি আর সেই ভালবাসাকে পূর্ণতা দিতেই আমরা বিয়ে করি। কিন্তু এই বিষয়টা এতদিন প্রকাশ্যে আনিনি। আজ ছেলের আনন্দে বিষয়টি সবার সামনে নিয়ে এসেছি।

ছেলেকে নিয়ে তিনি বলেন, বাবা হওয়ার অনুভূতি আসলে ভাষায় প্রকাশ করার মত না। আমার কাছে আমার ছেলেই সবকিছু। আমি ওর জন্য সবার কাছে দোয়া চাই। আজকে আমার বড় ছেলে তার জীবনের প্রথম পরীক্ষায় প্রথম হয়েছে। এটা আমার জন্য অতি আনন্দের। আর তাই আজকে এই খুশিতে আত্মহারা হয়ে ছেলের ছবি প্রকাশ করি।

আরো খবর...