বিচারবহির্ভূত হত্যাকান্ড নিয়ে বিএনপির উদ্বেগ

ঢাকা অফিস ॥  সম্প্রতি কক্সবাজারে পুলিশের গুলিতে সাবেক সেনা কর্মকর্তা নিহত হওয়া এবং গত ৫ বছরে বিচারবহির্ভূত হত্যাকান্ড এবং পুলিশ হেফাজতে হত্যার ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছে বিএনপি। গত শনিবার রাতে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সভাপতিত্বে দলের স্থায়ী কমিটির ভার্চ্যুয়াল বৈঠকে এ উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়। গতকাল রোববার দলের পক্ষ থেকে সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এ তথ্য জানানো হয়। লিখিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, স্থায়ী কমিটির বৈঠকে মানবাধিকার লঙ্ঘন করে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বিশেষ করে পুলিশের গুলিতে যেভাবে হত্যার ঘটনা বেড়ে চলেছে তাতে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করা হয় এবং এ বিষয়ে বিস্তারিতভাবে জানানোর জন্য সংবাদ সম্মেলন করার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। সভায় বলা হয়, ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্টকে ব্যবহার করে মিথ্যা মামলা, গ্রেফতার, হয়রানি বেড়েই চলেছে যা বাকস্বাধীনতা ও সংবাদপত্রের স্বাধীনতাহরণ এবং ভিন্নমত দমনের জন্য ব্যবহার করা হচ্ছে। অবৈধ সরকার ক্ষমতায় অগণতান্ত্রিকভাবে টিকে থাকা এবং একদলীয় শাসন ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠার হীন ষড়যন্ত্র করছে। সভায় গত ৪ আগস্ট দলের ভাইস চেয়ারম্যান, সাবেক সংসদ সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী আবদুল মান্নানের মৃত্যু ও সাবেক ছাত্রনেতা, স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি শফিউল বারী বাবুর অকাল মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করা হয়। সভায় সাম্প্রতিককালে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে দলের নেতা-কর্মী যারা ইন্তেকাল করেছেন তাদের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করা হয় এবং পরিবার পরিজনদের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করা হয়। লিখিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয়, স্থায়ী কমিটির সভায় সাম্প্রতিককালে করোনা ভাইরাসে যে সকল চিকিৎসক, নার্স, স্বাস্থ্যকর্মী, সাংবাদিক, আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য এবং দেশের বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ ইন্তেকাল করেছেন সকলের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করা হয় এবং পরিবার পরিজনদের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করা হয়। এছাড়া কোভিড-১৯ করোনা ভাইরাস মোকাবিলায় সরকার যে ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছেন এবং জনগণ যেভাবে সংক্রমিত হচ্ছে সরকারের অবহেলা ও উদাসীনতায় বেড়ে চলেছে, তাতে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়। এই বিষয়ে অতি স্বল্প সময়ের মধ্যে একটি বিস্তারিত সংবাদ সম্মেলনের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। এছাড়াও ভার্চ্যুয়াল এই সভায় দলের সাংগঠনিক বিষয়ে এবং বর্তমান রাজনৈতিক বিষয়ে আলোচনা করা হয় এবং ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান সভা মুলতবি ঘোষণা করেন। গত শনিবার বিকাল ৫টা থেকে দীর্ঘ প্রায় দুই ঘণ্টাব্যাপী এই সভায় লন্ডন থেকে স্কাইপির মাধ্যমে সভাপতিত্ব করেন ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান। উপস্থিত ছিলেন, ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার, ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিঞা, মির্জা আব্বাস, ড. আবদুল মঈন খান, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, নজরুল ইসলাম খান, মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, সেলিমা রহমান ও ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু। একটি সূত্র জানায়, এই সভায় ঢাকা-১৮ ও ঢাকা-৫ আসনের উপ-নির্বাচন নিয়ে আলোচনা হয়। এই নির্বাচনে বিএনপি দলীয়ভাবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করারও সিদ্ধান্ত হয়। তবে দলের পক্ষ থেকে এ ব্যাপারে কিছু জানানো হয়নি।

আরো খবর...