বিএনপি এখনো নির্বাচন ও তত্ত্বাবধায়ক সরকার ইস্যুতেই ঝুলে আছে – হাছান

ঢাকা অফিস ॥ তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বুধবার বলেছেন, বিএনপি’র রাজনীতি সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়ানোর পরিবর্তে এখনো তত্ত্বাবধায়ক সরকার ও নির্বাচন ইস্যুর মধ্যেই ঝুলে আছে। বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের ৮৯তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে জাতীয় প্রেসক্লাবে বঙ্গবন্ধু সংস্কৃতিক জোট (বিএসজে) আয়োজিত এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এ কথা বলেন।তিনি বলেন, ‘দেশের মানুষ এখন ডেঙ্গুর বিরুদ্ধে লড়াই করছে ও মাত্র বন্যায় ক্ষয়ক্ষতি কাটিয়ে উঠছে। কিন্তু মানুষের এই দুর্দিনে বিএনপি তাদের পাশে না দাঁড়িয়ে নির্বাচনের জন্য রাজনীতি করছে।’বিএনপি নেতা মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের একটি দাবির জবাবে তথ্যমন্ত্রী বলেন, বর্তমান সরকারের মেয়াদ পূর্ণ হওয়ার পর নির্ধারিত সময়েই পরবর্তী সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।জোটের সভাপতি ও সাবেক আইনপ্রণেতা সারাহ বেগম কবরির সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান।অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের উপ-প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আমিনুল ইসলাম, আওয়ামী লীগের ঢাকা দক্ষিণ শাখার সাধারণ সম্পাদক শাহ আলম মুরাদ, সাংগঠনিক সম্পাদক হেদায়েতুল ইসলাম স্বপন, আওয়ামী লীগ নেতা লিয়াকত আলী খান, কুতুব উদ্দিন চৌধুরী, এডভোকেট বলরাম পোদ্দার এবং জোটের সাধারণ সম্পাদক অরুণ সরকার রানা।আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান বলেন, বাংলাদেশ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্ন পূরণের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। কিন্তু বিএনপি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গতিশীল নেতৃত্বে দেশের উন্নয়নকে স্বীকার করেনা।ড. হাছান মাহমুদ বলেন, গত ১০ বছরে আওয়ামী লীগ শাসনামলে দেশের সার্বিক দারিদ্রের হার ৪১ শতাংশ থেকে কমে ২০ শতাংশে দাঁড়িয়েছে। বাংলাদেশ এখন একটি খাদ্য উদ্বৃত্তের দেশ। আমরা খাদ্য রপ্তানি করছি। কিন্তু এক শ্রেণীর মানুষ সব সময়ই দেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত থাকায় এই সাফল্য দেখতে পায় না।বিশ্ব নেতৃবৃন্দ গত ১০ বছরে বাংলাদেশের বিভিন্ন আর্থ-সামাজিক ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতির প্রশংসা করায় মন্ত্রী বলেন, অনেক অর্থনৈতিক ও সামাজিক সূচকে বাংলাদেশ ভারত ও পাকিস্তানকে ছাড়িয়ে যাবে।তিনি বলেন, গত দশ বছরে বাংলাদেশের মানুষের মাথাপিছু আয় বেড়ে দুই হাজার মার্কিন ডলার হয়েছে। যা ২০০৫ সালে ছিলো মাত্র ছয়শ’ ডলার।বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করে ড. হাছান বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তাঁর কঠিন সময়ে বঙ্গমাতার সাথে পরামর্শ করে অনেক গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতেন। তিনি সবসময় বঙ্গবন্ধুকে সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে সাহায্য করতেন।তিনি বলেন, “বঙ্গমাতা পুরো দেশকে তাঁর পরিবার হিসেবে বিবেচনা করতেন। যখন বঙ্গবন্ধু জেলে ছিলেন তখন তিনি তাঁর সংসারের পাশাপাশি দলও চালাতেন।” পরিকল্পনা মন্ত্রী মান্নান নতুন প্রজন্মকে বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতার জীবন ও কর্ম সম্বন্ধে জানার আহ্বান জানিয়ে বলেন, এটি আদর্শ সমাজ গঠনে সহায়তা করবে।

আরো খবর...