বক্তব্যের ভুল ব্যাখ্যা হয়েছে ঃ গাভাস্কার

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ আইপিএলে আগের রাতের ম্যাচে ব্যাটিং ও ফিল্ডিংয়ে বিরাট কোহলির ব্যর্থতার পিঠে কথা বলতে গিয়ে সুনীল গাভাস্কার টেনে এনেছেন তার স্ত্রী আনুশকা শর্মার নাম। এ নিয়ে শুক্রবার তীব্র প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছেন কোহলির অভিনেত্রী স্ত্রী। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমেও তীব্র প্রতিক্রিয়া হয়েছে। অবশেষে শুক্রবারই আত্মপক্ষ সমর্থনে কথা বলেছেন ভারতের কিংবদন্তি ক্রিকেটার। গাভাস্কারের দাবি, তিনি খেলার মাঠে কোহলির বিরল এক ব্যর্থতার জন্য না দোষারোপ করেছেন তার অভিনেত্রী স্ত্রী আনুশকাকে, না তাকে নিয়ে করেছেন কোনও যৌনতাবাদী মন্তব্য। ভুল ব্যাখ্যা হয়েছে তার বক্তব্যের। বৃহস্পতিবার আইপিএল ম্যাচে খুবই খারাপ একটা দিন গেছে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরু ও ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলির। প্রতিপক্ষ অধিনায়ক কেএল রাহুলের দুটি ক্যাচ ফেলেছেন, পরে রান তাড়া করতে গিয়ে পাঁচ বলে ১ রান করে আউট হয়ে গেছেন। কোহলি ক্রিজে থাকতেই গাভাস্কার বলছিলেন, ভারত অধিনায়ক নিজের ব্যাটিংটা আরও ভালো করার জন্য বেপরোয়া, তিনি জানেন যে বেশি বেশি অনুশীলন করেই এটা সম্ভব। তারপরই গাভাস্কার যোগ করেন লকডাউনের মধ্যে কোহলি শুধু আনুশকার বোলিংয়ে অনুশীলন করেছেন, এটা যে খুব কাজে লাগেনি তা বোঝাই যায়। গাভাস্কার এই মন্তব্য করেছেন যখন তিনি কথা বলছিলেন হিন্দিতে। কিন্তু গাভাস্কারের এই মন্তব্য কোহলি ও আনুশকার ভক্তরা ভালোভাবে নিতে পারেনননি। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে কেউ কেউ ‘বিকৃতমনস্ক’ বলে স্টার স্পোর্টসের ধারাভাষ্য প্যানেল থেকে তার বহিষ্কার চেয়েছেন। গাভাস্কারের কথার প্রতিক্রিয়ায় নিজের ইনস্টাগ্রাম পেজে আনুশকা শর্মা বিবৃতি দিয়ে বলেছেন, গাভাস্কারের মন্তব্য ‘অরুচিকর’। তবে গাভাস্কার বলেছেন, তার বক্তব্য অনেকে ঠিকভাবে ধরতে পারেননি। তার বক্তব্যটি এসেছে একটি ভিডিও ক্লিপের সূত্রে, যেখানে দেখা যাচ্ছে বাড়ির আঙিনায় কোহলি আনুশকার ছোঁড়া টেনিস বলে ব্যাট করছেন। ‘প্রথমত বলি, আমি তাকে (আনুশকা) দোষারোপ করিনি। আমি বলছিলাম যে ভিডিওতে দেখাচ্ছে সে বিরাটকে বোলিং করছে। লকডাউনের সময় বিরাট এটুকুই যা বল খেলেছে’- ইন্ডিয়া টুডে চ্যানেলকে বলেছেন ভারতের কিংবদন্তি ওপেনার। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে যেমনটি বলা হচ্ছে গাভাস্কার ‘যৌনতাবাদী’ মন্তব্য করেছেন, সেটি তিনি মানেন না মোটেই। গাভাস্কারের দাবি, তিনিই একমাত্র ব্যক্তি যিনি সবসময় বিদেশ সফরে ক্রিকেটারদের সঙ্গে স্ত্রীদের যাওয়ার পক্ষে কথা বলে এসেছেন। ‘আমিই সেই লোক যে সবসময় বলে এসেছে যে একজন সাধারণ মানুষ যদি ৯-৫টা অফিস করে বাড়িতে ফেরে, প্রথমেই সে ফিরে আসে তার স্ত্রীর কাছে। তাহলে একইভাবে ক্রিকেটারদের সঙ্গে তাদের স্ত্রীরা কেন থাকতে পারবে না?’-সংবাদ সংস্থা পিটিআই এভাবেই উদ্ধৃত করেছে টেস্ট ক্রিকেটে প্রথম ১০ হাজার রান করা ব্যাটসম্যানকে।

আরো খবর...