পোড়াদহের আ’লীগ কর্মী নুরুল হত্যা মামলায় ৫ জনের মৃত্যুদন্ড

কুষ্টিয়ার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আদালতের রায়
৬ জনের যাবজ্জীবন ও ৬ জনের বিভিন্ন মেয়াদে কারাদন্ড

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়া মিরপুর থানার পোড়াদহ গ্রামে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দু’পক্ষের সংঘর্ষে আওয়ামীলীগ কর্মী নুরুল ইসলাম হত্যা ও অগ্নিকান্ডের অভিযোগে দায়ের করা মামলায় ৫ জনের মৃত্যুদন্ড, ৬ জনের যাবজ্জীবন আরো ৬ জনের বিভিন্ন মেয়াদে কারাদন্ডসহ প্রত্যেকের ৫০হাজার টাকা জরিমানার আদেশ দিয়েছেন আদালত। গতকাল বুধবার বেলা সাড়ে ১১টায় কুষ্টিয়া নারী ও শিশু নির্যাতন দমন বিশেষ আদালতের বিচারক মুন্সী মো: মশিয়ার রহমান এক জনাকীর্ণ আদালতে আসামীদের উপস্থিতিতে এই রায় ঘোষনা করেন। মৃত্যু দন্ডপ্রাপ্ত হলেন- মিরপুর উপজেলার পোড়াদহ গ্রামের মতিয়ার রহমানের ছেলে মাসুদ (৩৮), আনছার আলীর ছেলে পারভেজ (৪৩), সৈয়দ আলীর ছেলে হরিবর রহমান (৫২) সহোদর ফজলুর রহমান (৫৫) ও সরোয়ার হোসেন (৩৯)। যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্তরা হলেন- বিল্লাল হোসেন (৪২), মঞ্জুর রহমান মঞ্জু (৩৪), সোহেল রানা (৩৮), রমিজ আলী (৪০) মতিয়ার রহমান (৫০) ও কবির হোসেন (৪৩)। একই মামলায় ভুট্টো, রকি, এনায়েত ও সালামকে ৩বছর এবং নান্নু ও ফরিদকে সাত বছর করে কারাদন্ডসহ প্রত্যেক সাজাপ্রাপ্তদের ৫০হাজার টাকা অর্থদন্ডে দন্ডিত করা হয়েছে।

মামলার এজাহার ও আদালত সূত্রে জানা যায়, ২০১৪ সালের ১৯ ডিসেম্বর বিকেলে মিরপুর উপজেলার পোড়াদহ এলাকার আওয়ামী লীগ কর্মী নরুল ইসলাম কামারডাঙ্গা থেকে বিকেল ৫টার দিকে পোড়াদহ বাজারে যাচ্ছিলেন। পথে পোড়াদহ স্কুলের সামনে থেকে আসামীরা ধারালো দেশী অস্ত্র দিয়ে নূরুল ইসলামকে এলোপাথাড়ী আঘাত করে । তাকে ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হলে রাতে মারা যান। এ ঘটনায় নিহতের ছেলে এজাহারকারী শাহিনুর রহমান সজিব বাদি হয়ে ১৯ জনের নাম উল্লেখ সহ আরো অজ্ঞাত ৫/৬জনের বিরুদ্ধে মিরপুর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করে। থানার মামলা নং-৮, তারিখ-২০-১২-২০১৪ইং। মামলাটি তদন্ত শেষে ঘটনায় জড়িতের অভিযোগে ৩০ এপ্রিল ২০১৫সালে ১৭জনের বিরুদ্ধে দ:বি: ৩০২, ৩০২/৩৪, ৩২৪ ও ৩২৫ ধারায় আদালতে চার্জশীট দাখিল করেন পুলিশ। পরে সেসন ৭২৬ নং মামলায় নথিভুক্ত হয়ে বিচার কাজ শুরু হয়।  রাষ্ট্র পক্ষে মামলা পরিচালনাকারী কুষ্টিয়া জজ কোর্টের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) এ্যাড. অনুপ কুমার নন্দী জানান- আসামীদের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগের চার্জ গঠন পূর্বক দীর্ঘ স্বাক্ষ্য শুনানী শেষে নুরুল ইসলাম হত্যায় আসামীদের জড়িত অভিযোগ সন্দেহাতীত প্রমানিত হওয়ায় এই রায় ঘোষনা করেন বিজ্ঞ আদালত। মৃত্যুদন্ড প্রাপ্তদের ধার্যকৃত প্রত্যেকের ৫০ হাজার টাকা জরিমানা পরিশোধ না করলে স্থাবর অস্থাবর সম্পত্তি বিক্রী করে পরিশোধ করতে বলা হয়েছে এবং কারাদন্ড প্রাপ্তদের ধার্যকৃত প্রত্যেকের ৫০হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরো ১বছর কারাদন্ড ভোগ করতে হবে বলে নির্দেশ আদালতের। একই সাথে এ মামলায় এজাহারভুক্ত আসামী তরিকুল, আকরাম, আশরাফ, ইমরান ও ছালামদের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ প্রমানিত না হওয়ায় তাদের  বে-কসুর খালাস দিয়েছেন আদালত। আসামী পক্ষে মামলাটি পরিচালনা করেন এ্যাড.অধ্যক্ষ আমিরুল ইসলাম ও এ্যাড.সূধীর কুমার শর্মা। রায় ঘোষনাকালে আদালতে উপস্থিত মামলার এজাহারকারী শাহিনুর রহমান সজিব আদালতের এই রায়ের প্রতি সন্তোষ প্রকাশ করে বলেন দ্রুত আসামীদের মৃত্যুদন্ড কার্যকর হলেই ন্যায় বিচার নিশ্চিত হবে।

আরো খবর...