পাকিস্তানের বিপক্ষে শ্রীলঙ্কার ‘প্রথম’

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ ভানুকা রাজাপাকসে খুনে ব্যাটিংয়ে এনে দিলেন লড়াইয়ের পুঁজি। এক ওভারে ৩ উইকেট নিয়ে প্রতিপক্ষকে কাঁপিয়ে দিলেন ভানিদু হাসারাঙ্গা। ম্যাচ জুড়ে দারুণ বোলিং করে গেলেন নুয়ান প্রদিপ। তাদের মিলিত অবদানে পাকিস্তানের বিপক্ষে প্রথমবারের মতো টি-টোয়েন্টিতে সিরিজ জিতল শ্রীলঙ্কা। দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতে ৩৫ রানে জিতেছে সফরকারীরা। ১৮২ রান তাড়ায় ১ ওভার বাকি থাকতে ১৪৭ রানে গুটিয়ে গেছে পাকিস্তান। ৩ ম্যাচের সিরিজে ২-০ ব্যবধানে এগিয়ে গেছে শ্রীলঙ্কা। তাদের সামনে প্রথমবারের মতো টি-টোয়েন্টিতে পাকিস্তানকে হোয়াইটওয়াশ করার হাতছানি। বুধবারের তৃতীয় ও শেষ ম্যাচে সেই অভিযানে নামবে তারা। সবশেষ চার টি-টোয়েন্টি সিরিজে হারের তেতো অভিজ্ঞতা নিয়ে পাকিস্তান সফর গেছে শ্রীলঙ্কা। নিরাপত্তা শঙ্কায় নেই নিয়মিত অধিনায়ক লাসিথ মালিঙ্গাসহ অনেক গুরুত্বপূর্ণ ক্রিকেটার। প্রায় দ্বিতীয় সারির একটি দল নিয়ে টি- টোয়েন্টি র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষ দলকে তাদেরই মাঠে সিরিজে হারিয়ে চমকে দিয়েছে তারা। লাহোর গাদ্দাফি স্টেডিয়ামে সোমবার টস জিতে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা ভালো হয়নি লঙ্কানদের। আগের ম্যাচের নায়ক দানুশকা গুনাথিলাকাকে শুরুতেই ফিরিয়ে দেন ইমাদ ওয়াসিম। রান আউট হয়ে ফিরেন আরেক ওপেনার আভিশকা ফার্নান্দো। শেহান জয়াসুরিয়াকে নিয়ে শুরুর ধাক্কা সামাল দেন আগের ম্যাচে ঝড় তোলা রাজাপাকসে। বড় সংগ্রহের পথে এগিয়ে যায় শ্রীলঙ্কা। ২৮ বলে ৩৪ রান করে জয়াসুরিয়ার বিদায়ে ভাঙে ৯৪ রানের জুটি। শাদাব খান থামান রাজাপাকসের তান্ডব। লঙ্কান টপ অর্ডার ব্যাটসম্যান ছয় ছক্কা ও চার চারে করেন ৭৭ রান। শেষের দিকে ১৫ বলে অপরাজিত ২৭ রানের বিস্ফোরক ইনিংস খেলেন অধিনায়ক দাসুন শানাকা। রান তাড়ায় শুরু থেকেই নিয়মিত উইকেট হারায় পাকিস্তান। স্কুপ করতে গিয়ে অফ স্টাম্পের বাইরের সাদামাটা ডেলিভারি স্টাম্পে টেনে আনেন দলে ফেরা ফখর জামান। দারুণ এক ডেলিভারিতে পাকিস্তানের সেরা ব্যাটসম্যান বাবর আজমকে বোল্ড করে দেন প্রদিপ। অষ্টম ওভারে চার বলের মধ্যে তিন উইকেট নিয়ে ম্যাচ শ্রীলঙ্কার মুঠোয় নিয়ে আসেন লেগ স্পিনার হাসারাঙ্গা। গুগলিতে আহমেদ শেহজাদকে বোল্ড করে শুরু করেন শিকার। পরের বলে এলবিডবি¬উ করেন উমর আকমলকে। টানা দ্বিতীয় ম্যাচে গোল্ডেন ডাকের স্বাদ পেলেন পাকিস্তানের এই মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান। এক বল পর মেলে বড় শিকার। হাসারাঙ্গা এবার গুগলিতে বোল্ড করে দেন অধিনায়ক সরফরাজ আহমেদকে। পাল্টা আক্রমণে পাকিস্তানকে ম্যাচে ফেরানোর চেষ্টা করেন ইমাদ ওয়াসিম। ২৯ বলে ৪৭ রান করা এই অলরাউন্ডারকে থামান ইসুরু উদানা। শেষের দিকে আসিফ আলি ও মোহাম্মদ হাসনাইনকে ফিরিয়ে দলকে দারুণ এক জয় এনে দেন পেসার প্রদিপ। ২৫ রানে ৪ উইকেট নিয়ে তিনিই দলের সেরা বোলার। হাসারাঙ্গা ৩ উইকেট নেন ৩৮ রানে। বিস্ফোরক ব্যাটিংয়ে পার্থক্য গড়ে দেওয়া রাজাপাকসে জেতেন ম্যাচ সেরার পুরস্কার। সংক্ষিপ্ত স্কোর: শ্রীলঙ্কা: ২০ ওভারে ১৮২/৬ (গুনাথিলাকা ১৫, ফার্নান্দো ৮, রাজাপাকাসে ৭৭, জয়াসুরিয়া ৩৪, শানাকা ২৭*, ভানুকা ০, উদানা ৮, হাসারাঙ্গা ২*; ইমাদ ৪-০-২৭-১, আমির ৪-০-৪০-০, ওয়াহাব ৪-০-৩১-১, শাদাব ৪-০-৩৮-১, হাসনাইন ৪-০-৩৯-০)। পাকিস্তান: ১৯ ওভারে ১৪৭ (বাবর ৩, ফখর ৬, শেহজাদ ১৩, সরফরাজ ২৬, আকমল ০, আসিফ ২৯, ইমাদ ৪৭, ওয়াহাব ৭, শাদাব ০, আমির ৫*, হাসনাইন ১; রাজিথা ১/১১, প্রদিপ ৪/২৫, উদানা ২/৩৮, হাসারাঙ্গা ৩/৩৮, সান্দাক্যান ০/৩৩)। ফল: শ্রীলঙ্কা ৩৫ রানে জয়ী। ম্যান অব দা ম্যাচ: ভানুকা রাজাপাকসে।

আরো খবর...