নির্ধারিত সময়েই প্রকল্পের উন্নয়ন কাজ শেষ করতে হবে

জেলা উন্নয়ন সমন্বয় কমিটির সভায় ডিসি আসলাম হোসেন

আরিফ মেহমুদ ॥ কুষ্টিয়ার জেলা প্রশাসক মোঃ আসলাম হোসেন বলেছেন, আমাদের প্রত্যেকের পরিশ্রম ও আন্তরিকতার কারনে সফলতার সাথে এগিয়ে যাচ্ছে জেলার প্রতিটি প্রকল্পের উন্নয়নমুলক কাজ। এসব কাজ বাস্তবায়নে আপনার সমস্যা যদি আপনি সৃষ্টি করেন তা কোনভাবেই মেনে নেয়া হবে না। প্রত্যেকটি উন্নয়নমুৃল কাজে সঠিক ভাবে নিজের উপর অর্পিত দায়িত্ব পালন করতে হবে। মনে রাখবেন নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই সকল প্রকল্পের উন্নয়নমুলক কাজ শেষ করতে হবে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ব্যাক্তিগত উদ্দ্যোগের অগ্রাধিকার ভিত্তিক যে সব কাজ এখনো চলমান আছে তা অতি দ্রুত শেষ করতে হবে। কাজের প্রতি দায়িত্বশীল হলে সফলতা আসবেই। সঠিক তদারকী করে দায়িত্ব পালন করতে না পারলে সরে দাড়াতে হবে। কাজের প্রতি দায়িত্বহীনতার পরিচয় দিবেন না। গতকাল রবিবার সকালে জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে জেলা উন্নয়ন সমন্বয় কমিটির সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। জেলা উন্নয়ন সমন্বয় কমিটির সভা শুরুর আগে ভিডিও কনফারেন্স’র মাধ্যমে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ঘোষনা মুজিব বর্ষে আশ্রয়হীন সবাইকে বাড়ী দেয়া হবে। এই ঘোষনাকে বাস্তবায়ন করতে দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রী, মন্ত্রণালয়ের সচিব ও মহাপরিচালক ভিডিও কনফারেন্স’র মাধ্যমে বিভাগীয় কমিশনার এবং জেলা প্রশাসকদের আশ্রয়হীনদের যাচাই-বাছাই শেষে তদন্ত করে সঠিক তালিকা প্রেরণের জন্য নির্দেশ দেন। কোনভাবেই যেন তালিকায় বিতর্কীতদের নাম না আসে। প্রকৃত পক্ষে আশ্রয়হীনরাই যেন বাড়ী পায় সে ব্যাপারটি নিশ্চিত করতে হবে।

তিনি আরো বলেন, জেলাবাসীর প্রাণের দাবী বাইপাস সড়ক সম্পন্ন হয়েছে। ফলে কুষ্টিয়ায় অনেকাংশে দূর্ঘটনা করেছে। শহরের মধ্যেকার যানজোট নাই। ঠিক এমনভাবে জেলাবাসীর আরেকটি স্বপ্ন বাস্তবায়নের পথ উম্মুক্ত হচ্ছে। ইসলামী বিশ^বিদ্যালয় হতে লালন সাঁই সেতু পর্যন্ত পর্যায়ক্রমে ফোরলেন রাস্তার কাজ শুরু হবে। টেন্ডার পর্যায়ের সকল আয়োজন শেষ হয়েছে। প্রথম পর্যায়ে বটতৈল থেকে মজমপুর গেট হয়ে ত্রিমোনী পর্যন্ত কাজ খুব শীঘ্রই শুরু হতে যাচ্ছে। কুষ্টিয়ার কৃতি আর্কিটেক্সার ইঞ্জিনিয়ারের মুল নকশায় তৈরী হবে এই ফোরলেন রাস্তার কাজ। প্রত্যকটি উন্নয়নমুলক কাজে সঠিক ভাবে নিজের উপর অর্পিত দায়িত্ব পালন করতে হবে। উন্নয়নমুলক প্রতিটি কাজের প্রতি দায়িত্বশীল হলে সফলতা আসবেই। সঠিক তদারকী করে দায়িত্ব পালন করতে না পারলে সরে দাড়াতে হবে। কাজের নামে অকাজ করে দায়িত্বহীনতার পরিচয় দিবেন না। তিনি বলেন, উন্নত যোগাযোগ ব্যবস্থা থাকেল এলাকার ব্যাপক উন্নয়ন সম্ভব। যে এলাকার যত বেশি উন্নত যোগাযোগ ব্যবস্থা রয়েছে সেই এলাকা তত বেশি উন্নত। আমরা যারা উন্নয়ন কর্মকান্ডে নিযুক্ত সংশ্লিষ্ট তারা যদি দেশের জন্য এ জেলার জন্য স্ব-স্ব ক্ষেত্র থেকে ছোট্ট ছোট্ট পরবির্তন আনতে পারি তাহলেই আমাদের উন্নয়নের অঙ্গীকার পূরন হবে। তবেই তো এগিয়ে যাবে দেশ। আর এক্ষেত্রে সবার আগে উন্নত যোগাযোগ ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে হবে। তিনি বলেন, নিজেকে একজন দেশ প্রেমিক হিসেবে মানসিকভাবে তৈরী হতে হবে। দেশ এগিয়ে যাচ্ছে, আগামীতেও উন্নয়নের ধারাবাহিকতা রক্ষা করে এগিয়ে যাবে। এক্ষেত্রে কুষ্টিয়া পিছিয়ে থাকতে পারে না। যে কাজ করবেন সেটি যেন দেশের উন্নয়নে ও জাতির কল্যাণে নিবেদিত হয়। কুষ্টিয়া জেলার উন্নয়নে আমাদের সবার সম্মিলিত প্রচেষ্ঠায় সহযোগীতার হাত বাড়িয়ে দিয়ে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করতে হবে। বিগত মাসের বিস্তারিত তুলে ধরে তাকে সহযোগিতা করেন কুষ্টিয়া অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) ওবাইদুর রহমান। কুষ্টিয়ার সিভিল সার্জন ডাঃ এইচ এম আনোয়ারুল ইসলাম, স্থানীয় সরকার উপ-পরিচালক মৃনাল কান্তি দে, কুষ্টিয়া জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও খোকসা উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ¦ সদর উদ্দিন খান, কুষ্টিয়া জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি হাজী রবিউল ইসলাম, জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আজগর আলী, কুষ্টিয়া সরকারী মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ সফিকুর রহমান খান, কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের উপ-পরিচালক ডাঃ নুরুন্নাহার বেগম, দৌলতপুর উপজেলা চেয়ারম্যান এজাজ আহমেদ মামুন, কুষ্টিয়া পৌরসভার প্যানেল মেয়র মতিয়ার রহমান মজনু, কুষ্টিয়া সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জুবায়ের হোসেন চৌধুরী, দৌলতপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শারমিন আক্তার, কুমারখালি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রাজিবুল ইসলাম খান, ভেড়ামারা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সোহেল মারুফ, মিরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লিংকন বিশ^াস, খোকসা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মৌসুমী জেরিন কান্তা, সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী তানিমুল হক, এলজিইডি’র নির্বাহী প্রকৌশলী এ এস এম শাহেদুর রহিম, গণপূর্ত বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী আরিফুল ইসলাম, শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী জাহেদুল করিম, পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী পিযুষ কৃষ্ণ কুন্ডু, জেল সুপার জাকের হোসেন, জেলা প্রানী সম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ সিদ্দিকুর রহমান, কুষ্টিয়া জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের সাবেক ডেপুটি কমান্ডার রফিকুল আলম টুকু, বড় বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি মোকাররম হোসেন মোয়াজ্জেম, কুষ্টিয়া চেম্বার অব কমার্সের পরিচালক এস এম কাদেরী শাকিল, জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা জায়েদুর রহমান,ওজোপাডিকোর নির্বাহী প্রকৌশলী প্রণব চন্দ্র দেবনাথ, পাসপোর্টের সহকারী পরিচালক মুনতাকিম মোঃ ইব্রাহিম, বিএফএ’র সাধারণ সম্পাদক আব্দুল লতিফ, পল্লীবিদ্যুতের জিএম হারুন-অর-রশিদ, বিআরটিএ’র সহকারী পরিচালক এটিএম জালাল উদ্দিন, জেলা সিনিয়র তথ্যকর্মকর্তা তৌহিদুজ্জামান, জেলা ত্রান কর্মকর্তা আব্দুর রহমান, বিআরডিবি কর্মকর্তা আব্দুস সাত্তার, ড্রাগ সুপার হারুন-অর-রশিদ, কৃষি সম্প্রসারণের উপ-পরিচালক শ্যামল কুমার বিশ^াস, সমাজ সেবা অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক রোখসনা পারভীন, বাজার মনিটরিং অফিসার রবিউল ইসলাম, জেলা শিশু কর্মকর্তা মখলেছুর রহমান প্রমুখ।

 

আরো খবর...