না ফেরার দেশে চলে গেলেন ছাত্রলীগের দু:সময়ের কান্ডারী হরলেন

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়া জেলা ছাত্রলীগের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সাধারন সম্পাদক, শহর ছাত্রলীগের দীর্ঘ সময়ের সাধারন সম্পাদক আল ফিরোজ হরলেন চলে গেলেন না ফেরার দেশে। গতকাল রোববার সন্ধ্যায় কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাঁর মৃত্যু হয় (ইন্নালিল্লাহে ওয়া ইন্না এলাহে রাজিউন)। বেশ কিছুদিন ধরে তিনি দুরারোগ্য ব্যধিতে আক্রান্ত ছিলেন। গতকাল দুপুরে হঠাৎ অসুস্থ অনুভব করলে তাকে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের সিসিইউতে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাত সাড়ে ৭টায় তাঁর মৃত্যু হয়। ছাত্রলীগের চরম দু:সময়ের এই কান্ডারী মাত্র ৫১ বছর বয়সে অকালে বিদায় নেয়ায় শোকাহত আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগসহ আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা। দলের বাইরেও অসংখ্য সুহৃদ রয়েছে যারা হরলেনের মৃত্যুতে শোকাহত। নির্লোভ, সৎ, নির্ভিক এই ছাত্রনেতার মূল্যায়নের কথা বলে শেষ করা যাবেনা। দলের সংকটময় মুহুর্তে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ছাত্রলীগের নেতৃত্ব দিয়েছেন। স্বৈরাচার এরশাদ বিরোধী আন্দোলনসহ সকল গণতান্ত্রিক আন্দোলনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছিলেন। এজন্য তাকে কম নির্যাতন ও ত্যাগ স্বীকার করতে হয়নি। অসংখ্যবার করেছেন কারাবরণ। এক কথায় নব্বই দশকে তিনি ছাত্ররাজনীতি করতে গিয়ে চরম দু:সময় পার করেছেন। বহু ত্যাগ স্বীকারের জন্য অবশ্য তিনি দলীয় নেতাকর্মীদের কাছে প্রিয় নেতা হিসেবে বাহবা কুড়িয়েছেন। তবে জীবনের শেষ সময় অতিকষ্টে দিনাতিপাত করেছেন। অর্থাভাবে চিকিৎসাও করাতে পারেননি ঠিকমত। যে নেতা দলকে শুধু দিয়েই গেছেন সেই নেতা শেষ সময় একাকি, নিরবে অতি কষ্টে কাটিয়েছেন। শেষ পর্যন্ত চলেও গেলেন নিরবেই, না ফেরার দেশে। প্রিয় এই নেতা অকাল প্রস্থানে শোকাহত গোটা আওয়ামী লীগ পরিবার, অসংখ্য সুহৃদ। আল ফিরোজ হরলেনের বাড়ি কুষ্টিয়া শহরের আমলাপাড়া এলাকায়। মৃত আব্দুল খালেক ওরফে চাঁদ আলীর সন্তান তিনি। ৮ ছেলে মেয়ের মধ্যে হরলেন ছিলেন মেজো। মৃত্যুকালে স্ত্রী, এক ছেলে ও এক মেয়ে রেখে যান। এদিকে আল ফিরোজ হরলেনের অকাল মৃত্যুতে তাকে শেষবারের মত শ্রদ্ধা জানাতে আমলাপাড়াস্থ বাড়িতে ভীড় জমান দলের নেতাকর্মীসহ অসংখ্য গুনগ্রাহী। সর্বশেষ তিনি কুষ্টিয়া শহর আ’লীগের সাবেক যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। আজ সোমবার সকাল ১০টায় কুষ্টিয়া শহরের চর আমলাপাড়াস্থ ঈদগাহ ময়দানে জানাযা শেষে পৌর কবরস্থানে দাফন সম্পন্ন হবার কথা রয়েছে বলে জানা গেছে। আওয়ামী লীগের অকুতভয় সৈনিক আল ফিরোজ হরলেনের মৃত্যুতে গভীর শোক ও শোক সন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর শোক প্রকাশ করেছেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারন সম্পাদক ও কুষ্টিয়া-৩ (সদর) আসনের সংসদ সদস্য মাহবুবউল আলম হানিফ। শোক জানিয়েছেন কুষ্টিয়া জেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক আজগর আলী, সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আতাউর রহমান আতা, কুষ্টিয়া জেলা ছাত্রলীগের সাবেক প্রচার সম্পাদক, কুষ্টিয়া প্রেসক্লাবের সাধারন সম্পাদক, দৈনিক আন্দোলনের বাজার পত্রিকার সম্পাদক আনিসুজ্জামান ডাবলু,  জেলা যুবলীগের সভাপতি রবিউল ইসলাম, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মাযহারুল আলম সুমন।

 

যুবলীগ সভাপতি রবিউলের শোক

কুষ্টিয়া জেলা ছাত্রলীগের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সাধারন সম্পাদক আল ফিরোজ হরলেনের অকাল মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন কুষ্টিয়া জেলা যুবলীগের সভাপতি রবিউল ইসলাম। একই সাথে তিনি শোক সন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনাও প্রকাশ করেছেন এক শোকবার্তায়। রবিউল ইসলাম বলেন আল ফিরোজ হরলেনকে দেখেছি দলের ক্রান্তিলগ্নে সামনের সারিতে দক্ষতার সাথে নেতৃত্ব দিয়েছেন। তাঁর নেতৃত্ব শুধু দলকেই সংগঠিত করেনি, দলের ভাবমুর্তিও উজ্জল করেছেন। তাঁর অকাল মৃত্যুতে জেলা যুবলীগ গভীরভাগে শোকাহত।

মাযহারুল আলম সুমনের শোক

ছাত্রলীগের দু:সময়ের কান্ডারী কুষ্টিয়া জেলা ছাত্রলীগের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সাধারন সম্পাদক আল ফিরোজ হরলেনের অকাল মৃত্যুতে গভীর শোক  ও শোক সন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করেছেন কুষ্টিয়া জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও জেলা আওয়ামী লীগের অন্যতম সদস্য মাযহারুল আলম সুমন। তিনি এক শোক বার্তায় জানান আল ফিরোজ হরলেন সিনিয়র নেতা হলেও তার রাজনীতি খুব কাছ থেকে দেখার সুযোগ হয়েছে। তিনি রাজনীতিতে ছিলেন সৎ ও নিষ্ঠাবান। দলের দু:সময়ে শক্ত হাতে দলের হাল ধরেছেন।  স্বৈরাচার এরশাদ বিরোধী আন্দোলনে তাঁর ছিলো অগ্রণী ভূমিকা। বিভিন্ন আন্দোলন সংগ্রামেও তিনি থাকতেন অগ্রভাগে। তাঁর অকাল মৃত্যুতে প্রজ্ঞাবান নেতা দলের জন্য অপূরণীয় ক্ষতি বলে মনে করেন তিনি। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

আরো খবর...