দৌলতপুরে মুলকাটা পিয়াঁজ বাজারে : লাভবান চাষীরা

শরীফুল ইসলাম ॥ তরকারী বা বিভিন্ন স্বাদের খাবার রান্নার কাজে পিঁয়াজ অপরিহার্য সবজি মসলা। কিন্তু সেই পিঁয়াজ এখন সর্বসাধারণের ক্রয়সীমার বাইরে। পিঁয়াজের ঝাঁজে সবাই এখন দিশেহারা অবস্থায় রয়েছেন। অনেকে আবার তরকারীতে পিঁয়াজ দেওয়াও বন্ধ করেছেন। তবে পিঁয়াজ কৃষকদের একটি অর্থকরী ফসল হওয়ায় পিঁয়াজ চাষ করে বছরের অর্থনৈতিক চাহিদা মিটিয়ে থাকেন কৃষকরা। তাই বেশী দাম পাওয়ায় কুষ্টিয়ার দৌলতপুরের কৃষকরা অপরিপক্ক মুলকাটা বা মুড়িকাটা পিঁয়াজ উত্তোলন করে ঢাকাসহ স্থানীয় বাজারে বাজারজাতকরণে ব্যস্ত সময় পার করছেন।
চলতি মৌসুমে কুষ্টিয়ায় ১১,২৫০ (এগার হাজার দুইশত পঞ্চাশ) হেক্টর জমিতে পিঁয়াজ চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। এরমধ্যে প্রায় ২ হাজার হেক্টর জমিতে আগামজাতের মুলকাটা পিঁয়াজ চাষ হয়েছে দৌলতপুরে। আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় ও বেশী দাম পাওয়ার আশায় এবছর দৌলতপুরে পিঁয়াজ চাষের লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়েছে। আরও ক’দিন পরেই স্বপ্নের সোনালী সবজি ফসল পরিপক্ক পিঁয়াজ ঘরে তুলার কথা থাকলেও বাড়তি লাভের আশায় কৃষকরা অপরিপক্ক পিঁয়াজ উত্তোলন করে তা বিক্রয় করে খরচের তিনগুন মূল্যে বিক্রয় করছেন। তবে এবছর বীজের দাম বেশী হওয়ায় প্রতি বিঘা জমিতে পিঁয়াজ চাষে প্রায় ৩৫-৪০ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। কোনক্ষেত্রে আরও বেশী। দ্বিগুনের চেয়েও বেশী দামে বিক্রি হবে এমন স্বপ্নে বিভোর পিঁয়াজ চাষীরা। দৌলতপুরের সবজিখ্যাত শশীধরপুর গ্রামের সফল চাষী নাসির উদ্দিন জানান, এবছর পিঁয়াজের বীজের দাম বেশী হওয়ায় বিঘা প্রতি খরচ অন্যান্য বছরের তুলনায় বেশী পড়েছে। সে ৩ বিঘা জমিতে মুলকাটা পিয়াজ চাষ করেছে। খরচ লক্ষাধিক টাকা ছাড়িয়েছে। তবে একবিঘা জমির মুলকাটা অপরিপক্ক পিঁয়াজ উত্তোলন করে তা বিক্রয় করেছে ১লক্ষ ৮০হাজার টাকায়। পিঁয়াজের বর্তমান বাজার মূল্য থাকলে কোন পিঁয়াজ চাষী লোকসানে পড়বে না বলেও জানান তিনি। পিঁয়াজ চাষে কৃষকদের বীজ, সারসহ প্রয়োজীয় প্রনোদনা ও পরামর্শ দেওয়ায় পিঁয়াজ চাষ ভাল হয়েছে এবং ফলনও ভাল হবে এমন কথা জানিয়েছেন দৌলতপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের কৃষি সম্প্রসারন কর্মকর্তা সজিব আল মারুফ। তিনি আরও জানিয়েছেন দৌলতপুর এবছর মুলকাটা পিঁয়াজ লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশী প্রায় দুই হাজার হেক্টর জমিতে চাষ হয়েছে। আর ক’দিন পরেই তা বাজারে পাওয়া যাবে। তবে কৃষকদের উৎপাদিত পিঁয়াজ বাজারে আসলে পিঁয়াজের ঝাঁজও কমবে এবং পিঁয়াজ নিয়ে সবমহলের পেঁয়াজোপনারও অবসান হবে। আর এমনটাই মনে করেন এ অঞ্চলের কৃষকসহ সর্বসাধারণ।

আরো খবর...