দৌলতপুরে মাদক ব্যবসা নিয়ে যুবক অপহরণের অভিযোগ : দু’লক্ষ টাকা মুক্তিপণ দাবি

থানায় মারপিটের মামলা

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে মাদক ব্যবসা নিয়ে বিজয় (২৮) নামে এক মাদক ব্যবসায়ী যুবক অপহরণ হওয়ার অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় থানায় অভিযোগ হলে অপহরণ ঘটনা ভিন্নখাতে প্রবাহের জন্য অপহরণকারীরা পুলিশকে ম্যানেজ করতে দালালের মাধ্যমে চালাচ্ছে অর্থবানিজ্য। তবে থানায় মারপিটের মামলা হলেও কেউ গ্রেফতার হয়নি।

অপহৃত পরিবার ও দৌলতপুর থানা পুলিশ জানায়, মাদক ব্যবসাকে কেন্দ্র করে দৌলতপুর উপজেলার প্রাগপুর ইউনিয়নের সীমান্ত সংলগ্ন জামালপুর গ্রামের শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী কামাল, মমিন, শাওন, সুমন ও কদম ২৬ মে সন্ধ্যায় অপর মাদক ব্যবসায়ী বিজয়কে মোবাইল ফেনে ডেকে নেয়। মথুরাপুর থেকে বিজয় সীমান্ত সংলগ্ন মহিষকুন্ডি মাঠপাড়া এলাকায় গেলে কামাল, মমিন, শাওন, সুমন ও কদম তাকে অস্ত্রের মুখে অপহরন করে জামালপুর গ্রামে নিয়ে একটি বাড়িতে আটকিয়ে রাখে। অপহরকারীদের দাবি তাদের ১০০ বোতল ফেনসিডিল কৌশলে গায়েব করেছে বিজয়। এরই জের ধরে অপহরণকারীরা বিজয়কে অপহরণ করে মোবাইল ফোনে অপহৃত বিজয়ের স্ত্রী তুলিয়ারা খাতুনের কাছে দুই লক্ষ টাকা মুক্তিপন দাবি করে। মুক্তিপনের দাবির প্রেক্ষিতে তুলিয়ারা খাতুন দৌলতপুর থানায় স্বামী অপহরণের অভিযোগ দায়ের করে। পরে অপহৃত মাদক ব্যবসায়ী বিজয় ২৭ মে রাতে অপহরণকারীদের কবল থেকে কৌশলে পালিয়ে আসলে গোড়ারপাড়ার মিস্ত্রিপাড়া এলাকার মাঠ থেকে পুলিশ রাত ১১টার দিকে তাকে উদ্ধার করে। এদিকে অপহরণ মামলা থেকে বাঁচতে অপহরণকারী মাদক ব্যবসায়ী কামাল, মমিন, শাওন, সুমন ও কদম পুলিশকে ম্যানেজ করার জন্য স্থানীয় এক দালালের মাধ্যমে মোটা অংকের অর্থ লেনদেন করেছে। সম্পর্ক না থাকলেও বিজয়ের শ^শুর আমিনুল ইসলাম এমনই ইঙ্গিত দিয়েছেন। তবে দৌলতপুর থানার ওসি এস এম আরিফুর রহমান অপহরণের ঘটনা অস্বীকার করে বলেছেন, অর্থ লেনদেনকে কেন্দ্র করে উভয়পক্ষের মধ্যে মারপিটের ঘটনা ঘটলে সেসংক্রান্ত মামলা হয়েছে। উভয়ই পক্ষের লোকজনই খারাপ। বিজয়ের নামেও একটি অস্ত্র মামলা রয়েছে। এখানে অপহরণের কোন ঘটনা ঘটেনি। বিজয় নিজ বাড়িতেই রয়েছে।

আরো খবর...