দৌলতপুরে পদ্মা নদী থেকে অবৈধভাবে বালি উত্তোলন করে ভরাট করা হচ্ছে প্রভাবশালী ব্যক্তির নিচু জমি

করোনাও রুখতে পারছেনা অবৈধ বালি উত্তোলনকারীদের

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ করোনা ভাইরাস আতঙ্কে যখন পরিবারের সদস্যদের নিয়ে বাড়ির লোকজন ঘরে অবস্থান করছে, ঠিক তখনি বালি খেকো একটি মহল পদ্মা নদী থেকে অবৈধভাবে বালি উত্তোলন করে প্রভাবশালী ব্যক্তির নিচু জমি উচু করতে ব্যস্ত হয়ে পড়েছে।  দৌলতপুরবাসীকে করোনা ভাইরাস থেকে মুক্ত রাখতে প্রশাসনের কর্মকর্তাগণ দিনরাত যখন মাঠ দাবড়িয়ে বেড়াচ্ছেন, সুযোগ বুঝে তখন বালি খেকো মহলটি প্রশাসনের চোখকে ফাঁকি দিয়ে দিনে বালি উত্তোলন না করে রাতের আঁধারে অবৈধভাবে পদ্মা নদী থেকে বালি উত্তোলনে ব্যস্ত হয়ে পড়েছে। আর এমন অবৈধভাবে বালি উত্তোলনের ঘটনা প্রতি রাতেই ঘটছে উপজেলার মরিচা ইউনিয়নের বৈরাগীরচর এলাকায়। এলাকাবাসী সূত্রে জানাগেছে, বৈরাগীরচর বড়মসজিদ সংলগ্ন এলাকার মৃত কালু’র ছেলে সাগর (২৭) এর নেতৃত্বে একটি চক্র গত এক সপ্তাহ ধরে ভাদু শাহ্র আস্তানার নিকট পদ্মা নদী থেকে অবৈধভাবে বালি উত্তোলন করছে। আর ট্রলি ভর্তি এসব বালি একই এলাকার সফিকুল প্রমানিকের বাড়ির নীচু এলাকা ভরাট করা হচ্ছে। সফিকুল প্রামানিক ৬০ হাজার টাকায় সাগরের সাথে চুক্তির ভিত্তিতে দিনের বেলা বালি উত্তোলন না করে রাতের আঁধারে অবৈধভাবে বালি উত্তোলন করে নীচু জমি ভরাট করার কাজে ব্যস্ত রয়েছে। একইভাবে বালি উত্তোলনকারী মহলটি চুক্তি ভিত্তিক একই ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকার প্রভাবশালী ব্যক্তিদের বাড়ি অথবা নীচু জমি ভরাট করে যাচ্ছে বলে নাম প্রকাশ না করার শর্তে এলাকার সচেতন মহল অভিযোগ করেছেন। একইভাবে কোলদিয়াড় এলাকাতেও বালি খেকোরা পদ্মা নদী থেকে অবৈধভাবে বালি উত্তোলন করছে বলে জানাগেছে। অবৈধভাবে বালি উত্তোলনের বিষয়ে দৌলতপুর সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মো. আজগর আলী জানান, আমার কাছে এমন অভিযোগ এসেছে। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে।

 

আরো খবর...