দৌলতপুরে ঘাষ চাষ করে অনেকে স্বাবলম্বী

সবুজ ঘাসের চাহিদা বেড়েছে

শরীফুল ইসলাম ॥ এক সময় ছিল মাঠের ক্ষেতের ভেতর অথবা বিস্তীর্ণ মাঠে সবুজ ঘাসের সমারোহ। যা দিয়ে কৃষকদের হালের বলদ অথবা দুগ্ধজাত গাভী অথবা মহিষের খাদ্যের চাহিদা পুরণ করা হতো। কিন্তু সময়ের সাথে বদলিয়েছে সবকিছু। হালের লাঙ্গলের পরিবর্তে এসেছে যন্ত্র চালিত লাঙ্গল। হালচাষ করা গরুর পরিবর্তে খামার গড়ে তুলে পালন করা হচ্ছে গবাদি পশু। আর এ খামারের পালনকরা গবাদি পশুর খাদ্যের চাহিদা পুরণ করতে চাষ করা হচ্ছে বিভিন্ন প্রজাতির সবুজ ঘাষ। যা এখন মানুষের দৈনন্দিন চাহিদা পুরণে লাভজনক কৃষি পণ্যে পরিণত হয়েছে।

কুষ্টিয়ায় এবছর সাড়ে ১৭হাজার খামার ও কৃষকের বাড়িতে প্রায় দেড় লাখ গরুকে মোটাতাজা বা হৃষ্টপুষ্ট করা হয়েছে। আর এ বিপুল পরিমাণ গবাদি পশুর খাদ্যের চাহিদা পুরণ করতে নিজ বাড়ির আঙিনায় অথবা মাঠে চাষ করা হয়েছে বিভিন্ন প্রজাতির সবুজ ঘাস। কেউ নিজ খামারের পশুর জন্য ঘাস চাষ করেছেন আবার অনেকে লাভজনক অর্থকরী ফসল বা পণ্য হিসেবে ঘাস চাষ করে প্রতিদিন হাটে বাজারে বিক্রয় করে দৈনন্দিন আর্থিক চাহিদা মেটাচ্ছেন। দৌলতপুরের শশীধরপুর গ্রামের নাসির উদ্দিন নামে এক কৃষক সবুজ (নেপিআর) ঘাষ চাষ করে তা নিজ বাড়ির গবাদির পশুর চাহিদা মিটিয়ে বাজারেও বিক্রয় করে সংসারের আর্থিক চাহিদা পুরণে সহায়ক হিসেবে কাজ করছে। তারাগুনিয়া বাজারের লিটন নামে ঘাস ব্যবসায়ী কৃষকদের কাছ থেকে বিভিন্ন প্রজাতির ঘাস কিনে তা বাজারজাত করে নিজেকে ঘাস ব্যবসায়ী হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেছেন।

কুষ্টিয়ার বিভিন্ন হাটে বা বাজারে সকাল হলেই দেখা যাবে সবুজ ঘাসের পসরা সাজিয়ে ঘাস উৎপাদনকারী অথবা ঘাস ব্যবসায়ীরা ঘাস বিক্রয়ে ব্যস্ত রয়েছেন। আর এ ঘাস কিনতে হাটে বাজারে ছুটে যাচ্ছেন গবাদি পশু পালনকারী কৃষক অথবা ছোট-বড় খামারীরা। তবে ঘাস ক্রেতা-বিক্রেতাদের মধ্যে অন্যান্য পণ্যের ন্যায় দাম বা মূল্য নিয়ে সন্তোষ্টি বা অসন্তোষ্টিও রয়েছে। কেউ বলছেন বর্তমানে ঘাসের দাম বৃদ্ধি পেয়েছে আবার কেউ বলেছন এবছর ঘাস চাষ করে খুব একটা লাভ হচ্ছেনা। তবে ঘাস চাষ ও বিক্রয় করে অনেকে এখন স্বাবভম্বী হয়েছেন।

দৌলতপুর প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডা. কাজী নজরুল ইসলাম ঘাষ চাষ প্রসঙ্গে বলেন, ঘাস চাষ বর্তমানে অর্থকরী ফসলে পরিণত হয়েছে। দৌলতপুরে বিপুল পরিমাণ গবাদি পশু রয়েছে। আর এ গবাদি পশুর জন্য প্রয়োজন ঘাস। তাই দৌলতপুরে অনেক কৃষক এখন ঘাস চাষ করে তা বাজারজাত করে আর্থিকভাবে স্বাবলম্বী হচ্ছেন।

সবুজ ঘাস শুধুমাত্র গবাদি পশুর খাদ্যের চাহিদা মেটায় না এ ঘাস এখন চাষ করে কুষ্টিয়ার অনেক চাষী বা ব্যক্তি নিদেজের খাদ্যের চাহিদা মেটাচ্ছেন। এর প্রসার ঘটাতে প্রয়োজন প্রনোদনা বা পৃষ্ঠপোষকতা।

 

 

আরো খবর...