দৌলতপুরে আলু চাষে সাফল্য পেয়েছেন চাষীরা

শরীফুল ইসলাম ॥ শীতকালীন বিভিন্ন প্রকার সবজির মধ্যে আলু একটি অন্যতম অর্থকরী সবজি যা বছরের সবসময় ভোক্তাদের সবজির চাহিদা মিটিয়ে থাকে। বিগত কয়েক বছর আলু চাষ করে কৃষকরা লাভের মুখ তেমন একটা না দেখলেও এবছর আলু চাষ করে লাভবান হচ্ছেন কুষ্টিয়ার দৌলতপুরের আলু চাষীরা। এখন আলু উত্তোলনে ব্যস্ত সময় পার করছেন তারা। চলতি মৌসুমে দৌলতপুরে ১১০০ হেক্টর জমিতে আলু চাষ হয়েছে। কয়েকদফা শৈত্য প্রবাহের কারনে আলু গাছের পরিচর্যা কিছুটা বিঘিœত হওয়ার পরও আলুর ফলন ভাল হয়েছে। বিঘা প্রতি ২০ থেকে ২২ হাজার টাকা খরচ হলেও বিক্রয় হচ্ছে ৪৫ থেকে ৪৬ হাজার টাকায়। উৎপাদন খরচ বাদ দিয়ে বিঘা প্রতি লাভ হচ্ছে ২৩ থেকে ২৪ হাজার টাকা। তবে আলুর বীজের দাম বেশী পড়ায় ও উৎপাদন খরচ বেশী হওয়ায় কারও কারও লাভের অংশ কম হবে বলে জানিয়েছে। শশীধরপুর গ্রামের আলু চাষী নাসির উদ্দিন জানান, এবছর সে ৫বিঘা জমিতে আলু চাষ করেছিলো। বিঘা প্রতি তার খরচ হয়ে গড়ে ২০ টাকা করে। বর্তমান বাজার দর হিসেবে তার বিঘা প্রতি আলু বিক্রয় হবে গড়ে ৪৫ হাজার করে। তবে অন্যান্য বছরের তুলনায় এবছর আলু চাষে ফলন ভাল হয়েছে এবং আলু চাষ করে চাষীরাও লাভবান হচ্ছেন। আর আলু চাষে ভাল ফলনের জন্য কৃষি বিভাগেরও তদারকি ও পরামর্শ রয়েছে বলে জানিয়েছেন দৌলতপুর কৃষি সম্প্রসারন কর্মকর্তা সজিব আল মারুফ। কৃষকদের আলু চাষে বেশী করে উৎসাহ ও প্রণোদনা দিলে একদিকে যেমন ক্ষতিকর তামাক চাষ প্রবন এলাকা দৌলতপুরের চাষীদের তামাক চাষ থেকে মুখ ফেরানো সম্ভব, অপরদিকে অর্থকরী সবজি আলু চাষে তারা আর্থিকভাবে স্বাবলম্বী হবেন তারা।

আরো খবর...