দৌলতপুরে অসুস্থ্য মেয়েকে সুস্থ্য করতে নিয়ে এসে মামলা

সুবিচার চাই ভুক্তভোগী

সেলিম রেজা ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার হোগলবাড়ীয়া ইউনিয়নের কায়ামারি গ্রামের সিরাজুল ইসলামের ছেলে রিয়াজুলের স্ত্রী চক মাদিয়া গ্রামের নিয়ামত মল্লিকের মেয়ে ইভা ইয়াসমিন। রিয়াজুল ইসলাম জানান- প্রায় ১ বছর আমার বিয়ে হয় ইভার সাথে। গত বছরের ২৯ জুলাই  অসুস্থ্যতার কথা বলে কিন্তু আমি তাকে নিজে চিকিৎসা দিতে চাইলে চিকিৎসা নিতে অস্বীকৃতি জানায়। বলে আমি আমার বাবার বাড়িতে গিয়ে চিকিৎসা নিবো। তার ভিতরে আমি খারাপ উদ্দেশ্য বুঝতে পারি তাই ঘটনাটি ইউনিয়ন চেয়ারম্যান সেলিম চৌধুরীকে জানায়। চেয়ারম্যানের উপস্থিতিতে আমার শ্বশুর আমার স্ত্রীকে নিয়ে যায় বলেন সুস্থ্য হলে আমি নিজে রেখে যাবো। নিয়ে গিয়ে এখন আমার নামে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা করেছে। আমি বিষয়টি তদন্ত করে সুষ্ঠু বিচার দাবি করছি। এ বিষয়ে অনুসন্ধান করতে নিয়ামত মল্লিকের বাড়িতে গেলে ইভা সাংবাদিকদের সামনে আসেননি। তার ভাই এর স্ত্রী বলেন আমাকে বলেন কি জানতে চান আমি কথা বলবো আমি সব বলতে পারবো। রিয়াজুল ঢাকাতে চাকুরী করতো চাকুরীটা ছেড়ে আসে বাড়িতে আসার পরে তাকে ঠিকমত খেতে দিতে পারেনা সেখান থেকে ঝামেলা শুরু হয় পরে আমরা রিয়াজুলের নামে একটি মামলা করেছি। এ বিষয়ে ইউনিয়ন  চেয়ারম্যান সেলিম চৌধুরী জানান- আমার মাধ্যমে রিয়াজুলের অসুস্থ্য  স্ত্রীকে তার পিতা নিয়ামত মল্লিক চিকিৎসার জন্য নিয়ে যায় বলেন এখানে আমার মেয়ে একা, আমার ওখানে নিয়ে গিয়ে চিকিৎসা করবো। সুস্থ্য হলে আবার আমি রেখে যাবো বা রিয়াজুল নিয়ে আসবে। পরে আর মেয়েকে দিতে চাইনা আমি বহুবার  ডেকেছি আমার কোন কথা না শুনে তিনি মামলায় গিয়েছে।

আরো খবর...