দৌলতপুরে অর্ধশত বছরের প্রাচীন সরকারী জায়গার বটগাছ কেটে নিয়েছে প্রভাবশালী মহল

দৌলতপুর প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে প্রশাসনের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে প্রায় অর্ধশত বছরের প্রাচীন সরকারী জায়গার বটগাছ কেটে নিয়েছে স্থানীয় একটি প্রভাবশালী মহল। এনিয়ে সাধারণ জনমনে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলার বাগুয়ান কান্দিরপাড়া এলাকার শাহীন ডাক্তারের বাড়ির সমানের সড়কের প্রাচীন বটগাছটি কেটে নেওয়া হয়। ওই গাছের ছায়াতলে বসে গ্রীষ্মের তাপদাহ থেকে রক্ষা পেতে এলাকার শত সহস্র নারী পুরুষ আশ্রয় নিত।

স্থানীয়দের অভিযোগ সূত্রে জানাগেছে, বাগুয়ান কান্দিরপাড়া এলাকার প্রায় অর্ধশত বছরের প্রাচীন বটগাছ যা এলাকাবাসীর শীতল পরশের আশ্রয়স্থল। ওই গছের ওপর নজর পড়ে একই এলাকার প্রভাবাশালী মুক্তার, ছিদ্দিক ও তাহেরুল গংয়ের। তারা সংঘবদ্ধ হয়ে কাউকে না জানিয়ে সরকারী সম্পদ বটগাছটি হোসেনাবাদ এলাকার নজরুল ইসলামের ছেলে মিন্টুর কাছে বিক্রি করে। মিন্টু বৃহস্পতিবার সকালে তার লোকজন নিয়ে কালের স্বাক্ষী প্রাচীন বটগাছটি কাটতে গেলে এলাকাবাসী তাতে বাঁধা দেয়। এসময় প্রভাবশালী ওই গাছ বিক্রেতারা এলাকাবাসীর ওপর চড়াও হলে তারা আত্মভয়ে ঘটনাস্থল থেকে চলে যায়। বিষয়টি উপজেলা প্রশাসনকে জানানো হলে তৎক্ষনাত দৌলতপুর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে গাছ কাটা বন্ধ করে দেয়। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে চলে আসলে প্রভাবশালী ওই চক্রটি গাছটি কেটে ভূমিষ্মাত করে। বর্তমানে গাছের গুড়ি ঘটনাস্থলেই পড়ে রয়েছে। এলাকাবাসীর দাবি নিষেধাজ্ঞা সত্বেও সবার জন্য উন্মুক্ত ‘শীতল আশ্রয়স্থল’ সরকারী সম্পদ প্রাচীন বটগাছটি কেটে নেওয়া ওই প্রভাবশালী মহলের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের। গতকাল শুক্রবার সকালেও গাছের গুড়িগুলি ঘটনাস্থলে পড়ে থাকতে দেখেছে এলাকাবাসী।

আরো খবর...