দৌলতপুরের মাদক মামলায় একজনের যাবজ্জীবন

কুষ্টিয়া জেলা ও দায়রা জজ আদালতের রায়

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুর থানায় নিজ দায়িত্বে মাদকদ্রব্য ফেন্সিডিল রাখার অভিযোগে দায়ের করা মামলায় স্বপন আলী ওরফে এনামুল (৩৮) নামের একজনকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা সহ যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদন্ড দিয়েছেন আদালত। মঙ্গলবার বিকেলে কুষ্টিয়া জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক অরূপ কুমার গোস্বামী আসামীর অনুপস্থিতিতে এক জনাকীর্ণ আদালতে এই রায় ঘোষনা করেন। রায় ঘোষনার সময় আসামী পলাতক ছিলেন। দন্ডপ্রাপ্ত স্বপন আলী ওরফে এনামুল পাবনা জেলার সদর উপজেলার ছোট মনোহরপুর (গাছপাড়া সি.এন.জি পাম্পের পিছনে) এলাকার আব্দুর রহমান খানের ছেলে। আদালত সূত্রে জানা গেছে, ২০১৭ সালের ১৯ জুন দৌলতপুর থানার শ্যামপুর পুলিশ ক্যাম্পের  এ.এস.আই(নিঃ) আবু হানিফ কামাল গোয়ালগ্রাম এলাকায় অবস্থানকালে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারেন যে, একটি সাদা রংয়ের প্রাইভেট গাড়িতে অবৈধ ফেনসিডিল বিক্রির উদ্দেশ্যে বহন করে নিয়ে শেহালা রাস্তা দিয়ে খলিসাকুন্ডি হতে কুষ্টিয়া অভিমুখে যাচ্ছে। এমন সংবাদের ভিত্তিতে সংগীয় ফোর্সসহ রাত ২১.৪৫ টার সময় গোয়ালগ্রাম (কারিকরপাড়া) নবীর মালিথা’র চায়ের দোকানে সামনে পাকা রাস্তার উপর গাড়ির চেকিং করতে থাকেন। কিছুক্ষনের মধ্যে একটি সাদা রংয়ের প্রাইভেট কার তাদের দিকে আসলে তারা পুলিশের সংকেত দিলে প্রাইভেট কারটি থামা মাত্রই আসামীদ্বয় পালানোর চেষ্টাকালে আসামীদের ধরে ফেলে। এসময় তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে তারা স্বীকার করে যে, তাদের নিকট থাকা প্রাইভেট কারে মাদকদ্রব্য ফেনসিডিল আছে। পুলিশ ড্রাইভারের সিটের নিচে অভিনব কায়দায় ৬০ বোতল ফেনসিডিল উদ্ধার করে। এ ব্যাপারে দৌলতপুর থানায় ১৯৯০ সালের মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনের ১৯ (১) ধারার টেবিলের ৩(খ) ও ২৫ ধারায় একটি মামলা দায়ের করেন। থানার মামলা নং-৩৫, তারিখ- ১৯-৬-২০১৭ইং। রাষ্ট্রপক্ষে মামলা পরিচালনাকারী পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) অনুপ কুমার নন্দী জানান, মামলাটি তদন্ত শেষে একই বছরের ৩১ অক্টোবর পুলিশ আদালতে চার্জশিট (অভিযোগপত্র) দাখিল করলে মামলাটি সেশন ৪৪৫/২০১৮ নং মামলায় নথিভূক্ত হয়ে বিচার কাজ শুরু হয়। দীর্ঘ সাক্ষ্য শুনানি  শেষে আসামি স্বপন আলী ওরফে এনামুল বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ সন্দেহাতীত প্রমাণিত হওয়ায় তাকে যাবজ্জীবন সহ ২০ হাজার টাকা অর্থদন্ড দিয়েছেন। একই মামলায় অভিযুক্ত অন্য আসামি আতিয়ার রহমান নির্দোষ প্রমাণিত হওয়ায় তাকে বেকসুর খালাস দিয়েছেন আদালত। আসামী পক্ষে মামলাটি পরিচালনা করেন এ্যাড. দেওয়ান মাসুদ করিম মিঠু।

আরো খবর...