দুর্নীতি বিরোধী অভিযান কোনো দল বা গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে নয় 

মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে সংবাদ সম্মেলনে ওবায়দুল কাদের

ঢাকা অফিস ॥ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, চলমান দুর্নীতি বিরোধী অভিযান কোনো দল বা গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে নয়। অপরাধীর বিরুদ্ধে দুর্নীতিবিরোধী এই অভিযান চলছে। ওবায়দুল কাদের গতকাল মঙ্গলবার সচিবালয়ে মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে সমসাময়িক রাজনৈতিক বিষয় নিয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, ‘যারাই দুর্নীতি, অনিয়ম ও ক্যাসিনোর সঙ্গে জড়িত থাকবে তাদের বিরুদ্ধেই অভিযান চলবে। কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না। এই অভিযান কোনো দল বা গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে নয়।’ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘সম্প্রতি অভিযানের টার্গেটে যদি কেউ থেকে থাকেন, তার বিরুদ্ধে উপযুক্ত তথ্য প্রমাণ থাকে অবশ্যই তাকে গ্রেফতার করা হবে। সরকার নিজেদের ঘর থেকেই দুর্নীতিবাজদের শাস্তি দিতে চায়। সরকারি দল একটা শুদ্ধি অভিযান চালাচ্ছে, এটা বাংলাদেশে নজিরবিহীন।’ তিনি বলেন, যারা বিভিন্ন অপকর্মে জড়িত তারা অনেকেই গোয়েন্দা নজরদারিতে রয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশে ফিরেছেন, এখন সরকার কার কার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে সে বিষয়ে জানতে পারবেন। সড়ক পরিবহনমন্ত্রী বলেন, চলমান অভিযানে বিএনপি ছাড়া দেশের সব মানুষ খুশি। এই অভিযানে তাদের আন্দোলন মার খাবে, এই ভয়ে তারা অভিযানকে স্বাগত জানাতে পরছেনা। বিএনপি তাদের শাসন আমলে দুর্নীতি করলেও কোনো নেতার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে পারেনি। আওয়ামী লীগ নিজ দল থেকেই শুদ্ধি অভিযান শুরু করেছে। ওবায়দুল কাদের বলেন, অপরাধ ও দুর্নীতির দায়ে যাদের গ্রেফতার করা হচ্ছে তারা চুনোপুঁটি হলেও অপরাধ রাঘববোয়ালদের মতো বড়। শুধু রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব নয়, অন্যান্য সেক্টরেও যেখানেই অনিয়মের অভিযোগ আসছে সেগুলো তদন্ত করা হবে। অভিযানে কাউকে ছাড়া দেওয়া হচ্ছে না জানিয়ে তিনি বলেন, কাউকে ছাড় দেওয়া নয়, তথ্য প্রমাণের ভিত্তিতেই অভিযুক্ত ব্যক্তিদের গ্রেফতার করা হচ্ছে। ব্যক্তি যেই হোক, অপরাধী হলে তাকে শাস্তি পেতেই হবে। আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠনগুলোর সম্মেলন প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, ইতোমধ্যে সহযোগী সংগঠনগুলোকে সম্মেলনের বিষয়ে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। দলীয় সভাপতির সাথে কথা বলে মেয়াদ উত্তীর্ণ সহযোগী সংগঠন গুলোর সম্মেলনের তারিখ নির্ধারণ করা হবে। ‘সরকারের মন্ত্রী ও এমপিরা আগে সম্পদের হিসাব দিক’ বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমদের এমন বক্তব্যের জবাবে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, আগে মওদুদ সাহেব তার সম্পদের হিসাব জাতির সামনে তুলে ধরুক। কারণ তিনি দুর্নীতির দায়ে অনেকবার গ্রেফতার হয়েছেন। মন্ত্রী-এমপিদের সম্পদের হিসাব প্রসঙ্গে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমরা প্রতি বছর প্রধানমন্ত্রীর কাছে সম্পদের হিসাব ও সরকারের কোষাগারে রাজস্ব দিয়ে থাকি। কোনো মন্ত্রী-এমপির আয়-ব্যয়ে অসঙ্গতি দেখলে তা নিয়ে রিপোর্ট করতে গণমাধ্যমের প্রতি আহ্বান জানান কাদের।

আরো খবর...