ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে আসেনি – কাদের

ঢাকা অফিস ॥ ঢাকায় আওয়ামী লীগের ডেঙ্গুবিরোধী প্রচারণা ও পরিচ্ছন্নতা কর্মসূচিতে নেতাকর্মীদের যথাযথ সাড়া না পেয়ে হতাশা প্রকাশ করে দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, এভাবে ‘লোক দেখানো’ কর্মসূচি পালনের কোনো প্রয়োজন নেই। ঢাকায় যে ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা প্রতিদিনই বাড়ছে, সে কথা মনে করিয়ে দিয়ে তিনি বলেছেন, “আমরা যতটাই মুখে নিয়ন্ত্রণের কথা বলি না কেন, এখনও এটা নিয়ন্ত্রণে আসেনি। এটা হল বাস্তবতা।” গতকাল মঙ্গলবার আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে দলের এক বর্ধিত সভায় ওবায়দুল কাদের এ সব কথা বলেন। গত শুক্রবার আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে ডেঙ্গু বিষয়ে সচেতনতামূলক লিফলেট বিলি এবং মশক নিধন কার্যক্রমে অংশ নিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেছিলেন, এ বিষয়ে সরকারের আন্তরিকতার ‘অভাব নেই’। ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে সেদিন সবাইকে ধৈর্য্য ধরতে অনুরোধ করেছিলেন তিনি। কিন্তু ঢাকায় ওয়ার্ড পর্যায়ে আওয়ামী লীগের ‘দায়সারা’ কর্মসূচি নিয়ে মঙ্গলবার অসন্তোষ প্রকাশ করেন ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, দলের সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে সারা দেশে পরিচ্ছন্নতা কর্মসূচি ঘোষণা করেছে আওয়ামী লীগ। সে অনুযায়ী ঢাকার তিন জায়গায় কেন্দ্রীয়ভাবে কর্মসূচি পালনও করা হয়েছে। কিন্তু সব ওয়ার্ডে তা হচ্ছে না। “আমরা নামকাওয়াস্তে দু-চার জায়গায় কর্মসূচি পালন করলাম, বেশিরভাগ ওয়ার্ডে এই পরিচ্ছন্নতা অভিযান পরিচালনা হল না, কর্মসূচি পালন হল না। এই দায়সারা কর্মসূচির কোনো প্রয়োজন নেই। “এতে এডিস মশার প্রজনন ক্ষেত্র ধ্বংস হবে না, এডিস মশার উৎসমুখ আমরা বন্ধ করতে পারব না। এবং ডেঙ্গু জ্বরের যে ভয়ঙ্কর বিস্তার এই বিস্তারও আমরা রোধ করতে পারব না।” আসন্ন কোরবানির ঈদে বহু মানুষ ঢাকা থেকে গ্রামে যাবে এবং তাতে ঢাকার বাইরে ডেঙ্গু ছড়ানোর শঙ্কা যে আরও বাড়বে- সে কথা মনে করিয়ে দিয়ে কাদের বলেন, “অনেকেই যাচ্ছেন, যাবেন। এখানেও এই ডেঙ্গু জ্বরের বিস্তারের একটা আশঙ্কা আছে। রাজনৈতিক দল হিসেবে আমাদের প্রথম কাজটি হচ্ছে এই সচেতনতা এবং সতর্কতা প্রচার করা। এই মশার প্রজনন ও বংশ বিস্তার বন্ধের পূর্বশর্ত হচ্ছে পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা।” ডেঙ্গু পরিস্থিতি মোকাবেলায় পরিচ্ছন্নতা অভিযান কর্মসূচি অব্যাহত রাখতে ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের প্রতি আহবান জানান ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, ‘পরিচ্ছন্নতা অভিযানে ওয়ার্ড সভাপতি- সাধারণ সম্পাদকরা কাউন্সিলদের সহযোগিতা করবেন। এডিস মশা ভয়ংকর। এডিস মশা কামড় দিতে চেহারার দিকে তাকাবে না। সুযোগপেলে সবাইকে কামড়াবে, রক্ত খাবে। সবাইকে সচেতন হতে হবে, সাবধান থাকতে হবে। আমাদের পরিচ্ছন্নতা অভিযান অব্যহত রাখতে হবে।’

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী জানতে চেয়েছেন কয়টা ওয়ার্ডে পরিচ্ছন্নতা কর্মসূচি পালন করা হয়েছে। আমরা দেখতে চাই ঢাকার কয়টা ওয়ার্ডে এই কর্মসূচি পালন করা হয়। পরিচ্ছন্নতা কর্মসূচি একদিন করলে হবে না। প্রতিদিনই করতে হবে। যেসব ওয়ার্ডে পরিচ্ছন্নতা অভিযান শুরু করেননি তারা শুরু করবেন, যারা করেছেন তারা এই পরিচ্ছন্নতা অভিযান অব্যাহত রাখবেন। ‘মিডিয়া না থাকলে সরকার ডেঙ্গুকে গুজব বলে চালিয়ে দিত’ বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের এমন বক্তব্যের জবাবে কাদের বলেন, মিডিয়া না থাকলে বিএনপি’র মত বড় দল খুঁজে পাওয়া যেত না। তারা আন্দোলন নির্বাচন সবক্ষেত্রেই ব্যর্থ, তারা ডেঙ্গু প্রতিরোধে নেই, তারা বন্যার্তদের পাশেও দাঁড়ায়নি। তারা শুধু মুখে মুখে দায়িত্ব পালন করে। তাদের আবাসিক প্রতিনিধি বসে বসে সাংবাদিক সম্মেলন করে। এজন্য মিডিয়া না থাকলে তাদের অস্তিত্ব খুঁজে পাওয়া যেত না। সভায় আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ ও জাহাঙ্গীর কবির নানক, সাংগঠনিক সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দীন নাছিম ও এনামুল হক শামীম, তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক এডভোকেট আফজালহোসেন, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য কামরুল ইসলাম ও এস এম কামালহোসেন, ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাদেক খান, দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ, সংসদ সদস্য হাজীসেলিম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

আরো খবর...