জয়ের চাপ না থাকাটাই বাংলাদেশ দলের বড় প্রেরণা : মোমিনুল

ক্রীড়া প্রতিবেদক ॥ বাংলাদেশ অধিনায়ক মোমিনুল হক বলেছেন ইন্দোরের হলকার স্টেডিয়ামে আগামীকাল (বৃহস্পতিবার) স্বাগতিক ভারতের বিপক্ষে শুরু হতে যাওয়া প্রথম টেস্টে চাপ মুক্ত মানসিকতা নিয়েই মাঠে নামবে টাইগাররা। শক্তিশালী ভারতের বিপক্ষে কেউ বাংলাদেশের জয় প্রত্যাশা করছে না। তাই দলের উপর বাড়তি কোন চাপও থাকছে না বলে মন্তব্য করেছেন মোমিনুল। বিশ্ব সেরা অল রাউন্ডার সাকিব আল হাসান নিষিদ্ধ হওয়ায় এই সিরিজের নেতৃত্ব পাওয়া মোমিনুলের মতে ভারতের বিপক্ষে টেস্ট খেলতে পারাটাই বাংলাদেশের জন্য বড় অনুপ্রেরণা। একই সঙ্গে ম্যাচ জয়ের কোন বাড়তি চাপও থাকছে না টাইগারদের উপর। ফলে ক্রিকেটাররা ম্যাচটি উপভোগ করতে পারবে দারুণভাবে। মোমিনুল বলেন, ‘যখন ম্যাচ জয়ের প্রত্যাশা থাকে তখন দলের উপর বাড়তি চাপ পড়ে। আমি মনে করি এই ম্যাচটি আমরা উপভোগ করব। কারণ কেউ আশা করছে না ভারতের বিপক্ষে আমরা জয়ী হবো। তবে এর মানে এই নয় যে আমরা জয় পাবার চেষ্টা করব না।’ বাংলাদেশ অধিনায়ক বলেন, ‘এর মানে এই নয় যে আমরা জয় পাবার জন্য কঠোর পরিশ্রম করব না। আমার বক্তব্য হচ্ছে এখানে আমরা চাপ মুক্ত হয়ে খেলতে পারব। ফলে আমরা আমাদের খেলাটিকে উপভোগ করতে পারব। তবে এটি নিশ্চিত যে জয়ের লক্ষ্য নিয়েই আমরা মাঠে নামব।’ সম্প্রতি তিন ম্যাচের টেস্ট সিরিজে সফরকারী দক্ষিণ আফ্রিকাকে হোয়াইট ওয়াশ করেছে ভারত। তন্মধ্যে শেষ দু’টিতে প্রোটিয়াদের হারিয়েছে ইনিংস ব্যবধানে। প্রথম টেস্টটিও ছিল একপেশে। ওই ম্যাচেও ইচ্ছে করলে সফরকারীদের ফলো অনে ফেলতে পারতো স্বাগতিকরা। সিরিজে বোলাররা ছিলেন অত্যন্ত আগ্রাসী। সিরিজে দক্ষিণ আফ্রিকা স্বাগতিক দলের ২৫ উইকেট শিকার করতে সক্ষম হয়েছে পক্ষান্তরে ভারত তুলে নিয়েছে প্রেটিয়াদের ৬০ উইকেটের সবক’টি। ভারতীয় ব্যাটসম্যানরাও ছিল দারুন ফর্মে। ধারাবাহিক ব্যাটিং দিয়ে প্রতি ম্যাচেই তারা সংগ্রহ করেছে পাঁচ শতাধিক রান। এসব তথ্য সম্পর্কে বেশ ভালভাবেই অবগত আছেন মোমিনুল। তবে এসব বিষয় নিয়ে চিন্তা না করে মোমিনুল বলেন, তারা সবাই এখানে ক্রিকেট উপভোগ করতে এসেছেন। বাংলাদেশ অধিনায়ক বলেন, ‘ভারতে খেলাটা আমাদের জন্য দারুণ সুযোগ। খেলোয়াড়রা এখানে খেলার ব্যাপারে অনেক আগে থেকেই রোমঞ্চিত হয়ে আছে। এ জন্য প্রয়োজনীয় প্রস্তুতিও নিয়ে রেখেছে। আমি জানি তারা কতটা শক্তিশালী। ব্যাটিং লাইন যেমন শক্তিশালী তেমনি বোলিং বিভাগও। আমরা চাই নিজেদের দায়িত্বটাই সঠিকভাবে পালন করতে। আমরা এমন ক্রিকেট খেলতে চাই যাতে ভারতকে কঠিন অবস্থায় পড়তে হয়।’ কোন অনুশীলন ছাড়াই প্রথম টেস্টে খেলতে নামছে বাংলাদেশ। তবে দ্বিতীয় টেস্টে তাদের খেলতে হবে ফ্লাড লাইটের আলোতে গোলপী বলে। যেটি এখনো তাদের কাছে অস্পস্ট। বাংলাদেশ কখনো গোলাপী বলে খেলেনি। তবে অনুশীলনের ঘাটতি নিয়েও খুব একটা চিন্তিত নন মোমিনুল। বলেন, সবাই কম-বেশি ক্রিকেটের মধ্যেই ছিলেন। টাইগার নেতা বলেন, ‘টেস্ট দলে সদ্য যোগ দেয়া আট ক্রিকেটারের সবাই জাতীয় ক্রিকেট লীগ (এনসিএল) খেলে এসেছেন। সর্বশেষ ৫ মাসে আমি অন্তত ১০টি প্রথম শ্রেনীর মাচে অংশ নিয়েছি। ভারত আসার আগে মুশফিকুর রহিম, মাহমুদুল্লাহ রিয়াদও এনসিএলে খেলেছেন। সুতরাং আমার মনে হয় আমাদের পর্যাপ্ত প্রস্তুতি রয়েছে।’

আরো খবর...