জামায়াত-বিএনপির হাতে নির্যাতিত আওয়ামীলীগ কর্মিদের মুল্যায়ন করতে হবে

কুষ্টিয়া ১৮ নং ওয়ার্ড আ’লীগের ত্রীবার্ষিক সম্মেলনে আজগর আলী
মাদক-সন্ত্রাস ও দুর্নীতিবাজদের আওয়ামীলীগে কোন স্থান নেইঃ আতাউর রহমান আতা

নিজ সংবাদ  ॥ কুষ্টিয়া জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আজগর আলী বলেছেন, এই মজমপুর এক সময়ে মুক্তিযুদ্ধের ঘাটি ছিল। স্বাধীনতা পুর্ব এখান থেকেই পাকবাহিনীর বিরুদ্ধে হামলার পরিকল্পনা করা হতো। শুধু তাই নয় বিগত ২০০১ সাল থেকে ২০০৮ সাল পর্যন্ত জামায়াত-বিএনপির হাতে নির্যাতনের শিকার এখানকার ত্যাগী আওয়ামীলীগের নেতা কর্মিরা দলের জন্য গুরুত্বপুর্ণ ভুমিকা রেখেছে এই কমিটিতে তাদেরকে মুল্যায়ন করতে হবে। তিনি বলেন, জননেত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়নের বাংলাদেশ ও বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলার কথা মানুষের ঘরে ঘরে পৌছে দিতে হবে। তবেই তৃণমুল থেকে দল সুসংগঠিত হবে। গতকাল বিকেলে কুষ্টিয়া উদিবাড়ী প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে ১৮ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের ত্রী বার্ষিক সম্মেলনে তিনি প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ইব্রাহীম শেখের সভাপতিত্বে সম্মেলন পুর্ব আলোচনা সভায় প্রধান বক্তার বক্তব্যে কুষ্টিয়া শহর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আতাউর রহমান আতা বলেন, কোন ভয়-ভীতি দেখিয়ে কমিটিতে পদ নেয়া যাবে না। ত্যাগী, পরিক্ষিত, নেতা কর্মি এলাকায় যাদের সাধারণ মানুষের সাথে সম্পর্ক রয়েছে তাদেরকে দলে এনে আগামী দিনে যারা প্রতিপক্ষ শক্তির সাথে রাজপথে সংগ্রাম করে দলকে এগিয়ে নিয়ে যাবে। শেষে তিনি সকলকে শুভেচ্ছা জানিয়ে বক্তব্য শেষ করেন। এর পর সম্মেলনের উদ্ধোধক ও শহর আওয়ামীলীগের সভাপতি তাইজাল আলী খান সম্মেলনের দ্বিতীয় সেশন শুরু করেন। তিনি তার বক্তব্য প্রদান শেষে উপস্থিত সকলের কাছে আগামীতে ১৮ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের জন্য কমিটি আহবান করেন একে একে ৮টি কমিটি তার হাতে এসে পৌছায়। এর পর তিনি সকলকে শুভেচ্ছা জানিয়ে তার সেশন শেষ করেন। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন জেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সভাপতি জেবউন নেছা সবুজ, শহর আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি মানজিয়ার রহমান চঞ্চল, ছালামত আলী, জেলা কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক মোমিন মন্ডল প্রমুখ। অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন কুষ্টিয়া সদর উপজেলা যুবলীগের সাবেক প্রচার সম্পাদক সাংবাদিক নুর আলম দুলাল, গোলাম রসুল ভাদু, প্রমুখ। এর আগে প্রধান অতিথি, বিশেষ অতিথিগণ জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন করে দিনব্যাপী সম্মেলনের উদ্ধোধন করেন। এর পর শান্তির পায়রা উড়িয়ে দিনের সুচনা করেন। অনুষ্ঠানে যুবলীগ, স্বেছাসেবকলীগ, মহিলা আওয়ামীলীগসহ কয়েক হাজার নারী-পুরুষ উপস্থিত ছিলেন।

আরো খবর...