জনবিচ্ছিন্ন আ’লীগ কীভাবে ঘুরে দাঁড়াবে সেটিই বড় প্রশ্ন – খসরু

ঢাকা অফিস ॥ ভোটচুরি করে ক্ষমতা দখলকারী জনবিচ্ছিন্ন আওয়ামী লীগ কীভাবে ঘুরে দাঁড়াবে এমন প্রশ্ন করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী। গতকাল মঙ্গলবার কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে আয়োজিত এক মানববন্ধনে তিনি এ প্রশ্ন করেন। জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে তাঁতী দল এ কর্মসূচির আয়োজন করে। আমীর খসরু বলেন, আওয়ামী লীগ রাষ্ট্রীয় সংস্থানির্ভর দল হয়ে গেছে। এরা কিন্তু মানুষের কাছে ফিরে যেতে পারবে না। এদের ফিরে যাওয়া কঠিন। তিনি বলেন, মানুষ আমাকে প্রশ্ন করে বিএনপি কীভাবে ঘুরে দাঁড়াবে। আমি প্রশ্ন করি যে দলটি জনগণকে বাইরে রেখে মানুষের সব অধিকার কেড়ে নিয়ে ক্ষমতায় আছে, তারা কীভাবে ঘুরে দাঁড়াবে। এটিই বড় প্রশ্ন। ‘বিএনপি তার জায়গায় অটল আছে। বিএনপি গণতন্ত্রের পক্ষে মানুষের অধিকারের পক্ষে ছিল, আছে এবং থাকবে।’ আওয়ামী লীগকে আইনের সম্মুখীন হতে হবে উল্লেখ করে বিএনপির এ নেতা বলেন, বিগত দিনে কেউ পার পায়নি, এরাও পার পাবে না। দক্ষিণ আফ্রিকায় নেলসন ম্যান্ডেলাকে জেলে রেখে শ্বেতাঙ্গরা ক্ষমতায় থাকতে চেয়েছিল, কিন্তু পারেনি। বাংলাদেশেও বিগত দিনে কেউ পারেনি। পাকিস্তান আমলেও কেউ পারেনি। এরাও পারবে না। তিনি বলেন, খালেদা জিয়া এককভাবে শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলন করে তাদের পরাজিত করেছেন। সেই দেশনেত্রীকে কারাগারে রেখে, মানুষের সব অধিকার কেড়ে নিয়ে তারা অবৈধভাবে দেশ চালাচ্ছে। এভাবে চলতে পারে না। এটাকে বন্ধ করতে হবে। মানুষের অধিকার ফিরিয়ে দিতে হবে। ‘এটা শুধু বিএনপির ব্যাপার না। এটা দেশের সব মানুষের বিষয়। খালেদা জিয়ার মুক্তির সঙ্গে বাংলাদেশের মুক্তি অঙ্গাঙ্গিভাবে জড়িত। খালেদা জিয়ার মুক্তি দেশের মানুষের ভোটাধিকার, বাকস্বাধীনতা ফিরে পাওয়ার সঙ্গে জড়িত।’ আমীর খসরু আরও বলেন, গুম, খুন, মিথ্যা মামলা-হামলার শিকার হয়ে জ্বলেপুড়ে বিএনপি নেতাকর্মীরা খাঁটি সোনায় পরিণত হয়েছে। এদের দমন করা যাবে না। আন্দোলন চলছে, খালেদা জিয়ার মুক্তি না হওয়া পর্যন্ত, দেশে গণতন্ত্র ফিরে না আসা পর্যন্ত আন্দোলন চলবে।

 

আরো খবর...