ছাতিয়ান ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে গৃহহীনদের ঘর করে দেয়ার নামে অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ

১০ মাস টাকা দেয়ার পরেও ঘর পাইনি গৃহহীন মজিদ

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার ছাতিয়ান ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জসিম উদ্দিনের বিরুদ্ধে  নিঃস্ব, অসহায়, গৃহহীন মানুষকে নিচে পাকা উপরে টিন ও পাকা বাথরুম করে দেওয়ার নাম করে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। জানা যায়, ছাতিয়ান গ্রামের মৃত রহমানের  ছেলে গৃহহীন বৃদ্ধা আব্দুল মজিদ (৬৫) জানতে পারে টাকা দিলে চেয়ারম্যানের মাধ্যমে নিচে পাড়া উপরে টিন ও পাকা বাথরুমসহ গৃহ পাওয়া যাবে, তাই ১০ মাস আগে তার একমাত্র সম্বল একটি গরু ৫৯ হাজার ৫০০ টাকায় বিক্রয় করে সমুদয় টাকা জসিম চেয়ারম্যানকে প্রদান করে। এখন পর্যন্ত ২ কন্যা সন্তানের জনক গৃহহীন দিনমুজুরী মজিদকে সরকারের দেওয়া ঘর জসিম চেয়ারম্যান কাছ থেকে বুঝে পাই নাই। সামনে চেয়ারম্যান নির্বাচন তাই মহাচিন্তায় কাল যাপন করছেন বৃদ্ধ আব্দুল মজিদ। নির্বাচনে যদি জসিম হেরে যায় তাহলে অসহায় নিঃস্ব আব্দুল মজিদ প্রভাবশালী জসিম চেয়ারম্যানের কাছ থেকে কেমন করে টাকা আদায় করবে। এছাড়াও ছাতিয়ান গ্রামের সাইফুল পিতা রাজন ৩৫ হাজার টাকা, আফু পিতা মঙ্গল মোল্লা ২৫ হাজার টাকা, এরশাদ গ্রাম ছাতিয়ার ৫০ হাজার টাকা এবং সাইদুল ১৫ হাজার টাকা জসিম চেয়ারম্যানকে প্রদান করছে পাকা ঘর নেওয়ার আশায়। এখন পর্যন্ত ঘরের কোন ব্যবস্থা না হওয়ায় দুঃচিন্তার ভাঁজ দেখা দিয়েছেন এই সব অসহায় গৃহহীন দরিদ্র মানুষের কপালে। জানা যায়- কামাল ৫৫ হাজার, জামাল, সামাল পিতা সামছের টাকা দিয়ে ঘর বুঝে পেয়েছেন। এভাবেই ছাতিয়ান ইউনিয়নের বিভিন্ন ওয়ার্ডের অসহায়, দরিদ্র, গৃহহীনদের কাছ থেকে সরকারী ঘর দেওয়ার নামে মোটা অংকের অর্থ হাতিয়ে নিয়েছেন জসিম চেয়ারম্যান। মিরপুর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা লিংকন বিশ^াস বলেন- মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দারিদ্র নিঃস্ব গৃহহীন মানুষকে মাথা গুজার জন্য আধাপাকা গৃহ নির্মাণ করে গৃহ সমস্যা লাঘব করার জন্য কাজ করছে। সেখানে কোন চেয়ারম্যান ও মেম্বর যদি এই মহতী উদ্দোগকে ব্যহত করার জন্য টাকা গ্রহন করলে তার বিরুদ্ধে প্রশাসনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে। জানা যায় বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতা এর কার্ড করে দেওয়ার নামে বিভিন্ন মানুষের নিকট থেকে টাকা নেওয়ার অভিযোগ আছে জসিম চেয়ারম্যান বিরুদ্ধে।

আরো খবর...