চীনে উইঘুর মুসলিমদের ‘মগজ ধোলাই’

ঢাকা অফিস ॥ চীনের পশ্চিমাঞ্চলীয় জিনজিয়াং প্রদেশের কয়েকটি ক্যাম্পে কঠোর নিরাপত্তা আর গোপনীয়তার মধ্যে উইঘুর মুসলিমদের জন্য ‘মগজ ধোলাই’ করছে দেশটির সরকার। অনুসন্ধানী সাংবাদিকদের আন্তর্জাতিক কনসোর্টিয়ামের পক্ষ থেকে প্রথমবারের মতো ফাঁস হওয়া কিছু নথি ও ছবি থেকে বিশেষজ্ঞরা এ বিষয়ে নিশ্চিত হয়েছেন। খবর বিবিসি। যদিও চীনের দাবি, ওই ক্যাম্পগুলোতে স্বেচ্ছায় শিক্ষা আর প্রশিক্ষণ গ্রহণ করছেন অংশগ্রহণকারীরা। কিন্তু বিবিসি প্যানারোমার হাতে আসা ওই ক্যাম্পের কিছু অফিসিয়াল নথি ও ছবি থেকে দেখা গেছে, উইঘুর মুসলিমদের ক্যাম্পে বন্দি করে রাখা হয়েছে। শুধু তাই নয়, তাদের সেখানে আটকে রেখে শাস্তি দেয়ার নামে চালানো হচ্ছে শারীরিক নির্যাতন। তবে যুক্তরাজ্যে নিযুক্ত চীনের রাষ্ট্রদূত ওইসব ফাঁস হওয়া নথি ও ছবিকে ‘গুজব’ বলে উড়িয়ে দিয়েছেন। এর আগে ইন্টারন্যাশনাল কনসোর্টিয়াম অব ইনভেস্টিগেটিভ জার্নালিস্টসসহ (আইসিআইজে) আরও ১৭টি সহযোগী প্রতিষ্ঠান চীনের জিনজিয়াং প্রদেশের ওই গোপন ক্যাম্পগুলোতে অনুসন্ধান চালায়। অনুসন্ধানী সাংবাদিকদের সঙ্গে বিবিসি এবং দ্য গার্ডিয়ানেরও অংশীদারিত্ব ছিল। তারাই চীনের ‘মগজ ধোলাই’ ক্যাম্পের নথি ও ছবি ফাঁস করে। এই তদন্তে উঠে আসা প্রামাণ্য দলিলের ভিত্তিতে জানা যায়, চীনের পশ্চিমাঞ্চলীয় জিনজিয়াং প্রদেশে প্রায় তিন বছর ধরে ওই নির্যাতন ক্যাম্পগুলো গড়ে তোলা হয়েছে। সেখানে মৌলবাদবিরোধী শিক্ষা কার্যক্রমের নামে বিনাবিচারে কয়েক লাখ মানুষকে আটক রাখা হয়েছে। যাদের মধ্যে অধিকাংশ উইঘুরের মুসলিম সম্প্রদায়ের মানুষ। ফাঁস হওয়া চীনের সরকারি নথিগুলোকে আইসিআইজের পক্ষ থেকে ‘দ্য চায়না ক্যাবলস’ নামে বলা হচ্ছে। চায়না ক্যাবলসের মধ্যে একটি ৯ পাতার নির্দেশনা রয়েছে। যা ২০১৭ সালে ঝু হাইলুন নামে একজন জিনজিয়াং প্রদেশের কমিউনিস্ট পার্টির ডেপুটি সেক্রেটারি ও ওই অঞ্চলের প্রথম সারির নিরাপত্তা কর্মকর্তাদের কাছে পাঠিয়েছেন। ওই নির্দেশনায় বলা হয়েছে ক্যাম্পগুলো কীভাবে চালাতে হবে। সেখানে উল্লেখ রয়েছে নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থার মধ্যে মুসলিমদের কারাগারে রাখতে হবে, কঠোর শৃঙ্খলা ও শাস্তির ব্যবস্থা রাখার মাধ্যমে এমন এক পরিস্থিতি তৈরি করতে হবে যেন কেউ পালাতে না পারে।

আরো খবর...