গাংনীতে সালিশ বৈঠকের প্রস্তুতির সময় দু’পক্ষের সংঘর্ষে আহত-১৫

গাংনী প্রতিনিধি ঃ মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার সাহারবাটী গ্রামে সালিশ বৈঠকে পূর্বে দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় উভয়পক্ষের ১৫জন আহত হয়েছেন। গুরুতর আহতরা হলেন-সাহারবাটী গ্রামের মনিরুল ইসলাম (৪৪),আমান উদ্দীন (৪০),খলিলুর রহমান (৫০), রবিউল ইসলাম (৪৬),জুয়েল রানা (২৬), জান্নাত আলী (৪৭)। অপর পক্ষের  ঠান্ডু মিয়া (৫০), শফিকুল ইসলাম (৫০), রাসেল আহমেদ (২০), আফাম আলী (২২)। আহতদের গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। পরে ৪জনের শারীরিক অবস্থা আরো গুরুতর হওয়ায় তাদেরকে কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনার সময় চারচারা বাজারের ২টি দোকান ভাঙচুর করা হয়েছে বলে জানা যায়। গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যায় সাহারবাটী গ্রামের চারচারা বাজারে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

স্থানীয়রা জানান সাহারবাটী গ্রামের কিছু যুবক মিলে একটি রক্তদান সংগঠন করেছিল। সদস্যদের মধ্যে মনোমালিন্যের কারণে কয়েক মাস পূর্বে সংগঠনটি ভেঙ্গে যায়। এনিয়ে সাহারবাটী গ্রামের সুজন আলী নামের এক যুবক ফেসবুকের মাধ্যমে রক্তদান কমিটিকে কটাক্ষ করে বলেন টাকার মাধ্যমে কমিটির সদস্যরা রক্ত বিক্রি করতেন। এনিয়ে স্থানীয় ছাত্রলীগ নেতা টুটুল হোসেন তাকে মারধর করেছিলেন। মারধরের ঘটনায় সাহারবাটী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান গোলাম ফারুক বিষয়টি মিমাংসার জন্য শুক্রবার সন্ধ্যায় সাহারবাটী চারচারা বাজারে সালিশ বৈঠকের আয়োজন করেন। সালিশ বৈঠক শুরু হওয়ার পূর্বে দু’পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়। এক পর্যায়ে সংঘর্ষ বাধে। সংঘর্ষে ১৫জন আহত হয়। পরে গাংনী থানা পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। গাংনী থানার ওসি ওবাইদুর রহমান জানান বর্তমান পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে।

 

আরো খবর...