গাংনীতে বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্ণামেন্টের ২য় সেমি ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত

গাংনী প্রতিনিধি ॥ মেহেরপুরের গাংনীতে কিশোর-যুবদের শারীরিক গঠন, মেধা, সৃজনশীলতা সর্বোপরি মাদকাসক্তি, জঙ্গীবাদ ও সন্ত্রাসবাদ থেকে বেরিয়ে দেশ গড়ার লক্ষ্যে  বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জাতীয় গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্ণামেন্ট (অনূর্ধ্ব-১৭)-এর উপজেলা পর্যায়ের আন্তঃ ইউনিয়ন ফুটবল প্রতিযোগিতার ২য় সেমি ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল সোমবার  বিকেলে ঐতিহ্যবাহী গাংনী হাইস্কুল ফুটবল মাঠে অনুষ্ঠিত সেমি ফাইনাল খেলায় কাজীপুর ইউনিয়ন ফুটবল একাদশকে  ২-১ গোলে পরাজিত করে মটমুড়া ইউনিয়ন ফুটবল একাদশ ফাইনালে খেলার  যোগ্যতা অর্জন করে। গাংনী উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে পরিচালিত আন্তঃ ইউনিয়ন ফুটবল প্রতিযোগিতায় গাংনী উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও টুর্ণামেন্ট পরিচালনা কমিটির সভাপতি বিষ্ণুপদ পাল খেলার মাঠে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত থেকে যথাসময়ে খেলার শুভ উদ্বোধন ও উপভোগ করেন। এসময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মেহেরপুর আইনজীবী সমিতির সভাপতি  একে এম শফিকুল আলম, কাজীপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রাহাতুল্লাহ বিশ্বাস, মটমুড়া ইউনিয়ন পরিষদের তরুণ চেয়ারম্যান সোহেল আহমেদ, মেহেরপুর জেলা পরিষদের সদস্য শওকত আলী, কাজীপুর ইউনিয়ন পরিষদের সচিব আব্দুর রহমান প্রমুখ। এসময় আমন্ত্রিত অতিথিবৃন্দ ছাড়াও রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ ও মটমুড়া ইউনিয়নের হাজার হাজার দর্শক সমর্থক ও বাসযোগে কাজীপুর ইউনিয়নের নারী সদস্যাসহ সকল জনপ্রতিনিধি ও দর্শক-সমর্থক, ক্রীড়া সংগঠক উপস্থিত ছিলেন। মটমুড়া ইউপি ২-১ গোলে কাজীপুর একাদশকে পরাজিত করে ফাইনালে খেলার সুযোগ লাভ করে। কাজীপুর ও মটমুড়া ইউনিয়নের পক্ষে খেলার প্রথমার্ধে ১ টি করে গোল করে। পরে দ্বিতীয়ার্ধে মটমুড়া প্যানাল্টি গোল করে গোলের ব্যবধান বাড়িয়ে জয়লাভ করে। খেলায় ম্যান অব দ্যা ম্যাচ মনোনীত হয় মটমুড়া ইউনিয়ন একাদশের খেলোয়াড় রিপন হোসেন। গাংনীর আহসান খেলাঘরের পক্ষ থেকে ম্যান অব দ্যা ম্যাচের ক্রেষ্ট উপহার দেয়া হয়। খেলাটি প্রধান রেফারী হিসাবে পরিচালনা করেন বাফুফের রেফারী আব্বাস আলী, সহকারী  রেফারী হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন জোড়পুকুরিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ক্রীড়া শিক্ষক আব্দুল হান্নান ও মিকুশিস মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ক্রীড়া শিক্ষক আব্দুল মাবুদ। খৈলায় নিয়ম বহির্ভূত ফাউল এবং রেফারীর সাথে অসদাচরণ করায় উভয় দলের ২জন খেলোয়াড়কে হলুদ কার্ড দেখিয়ে সতর্ক করা হয়। অফিসিয়াল রেফারীর দায়িত্ব পালন ও খেলার ফলাফল-রেকর্ড সংরক্ষণ করেন সাংবাদিক ও বিশিষ্ট ক্রীড়াবিদ আমিরুল ইসলাম অল্ডাম। খেলার ধারা বিবরণে ছিলেন- গাংনী মহিলা ডিগ্রী কলেজের প্রভাষক মহিবুর রহমান মিন্টু, গাংনী মডেল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক পারভেজ সাজ্জাদ রাজা, বাওট সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এবং সাবেক ফুটবলার মাহবুবুর রহমান।

আরো খবর...