ক্যাসিনো চালানোর অভিযোগে যাকে ধরা হবে তাকেই সংগঠন থেকে বহিষ্কার করা হবে – যুবলীগ চেয়ারম্যান

ঢাকা অফিস ॥ নেতাকর্মীদের সতর্ক করে যুবলীগ চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরী বলেছেন, যত প্রভাবশালীই হোক না কেন অপরাধ করলে শেখ হাসিনা সরকারের আইনশৃঙ্খলা বাহিনী কাউকে ছাড়বে না। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী এখন ‘অ্যাকটিভ’ এবং তারা একের পর এক ‘অপরাধীকে’ ধরছে উল্লেখ করে তিনি বলেছেন, ক্যাসিনো চালানোর অভিযোগে যাকে ধরা হবে তাকেই সংগঠন থেকে বহিষ্কার করা হবে। ফকিরাপুলে ইয়ংমেনস ক্লাবে অবৈধভাবে ক্যাসিনো চালানোর ঘটনায় গ্রেপ্তার যুবলীগের ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সাংগঠনিক সম্পাদক খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়াকে সংগঠন থেকে বহিষ্কারের কয়েক ঘণ্টা পর এই সতর্ক বার্তা দিয়েছেন তিনি। শুক্রবার বিকালে রাজধানীর উত্তরা-আজমপুর প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে যুবলীগের ঢাকা মহানগর উত্তর শাখার কয়েকটি ওয়ার্ড কমিটির ত্রিবার্ষিক সম্মেলনে বক্তব্য দেন ওমর ফারুক চৌধুরী। তিনি বলেন, “ভুল এক জিনিস, আর অপরাধ অন্য জিনিস। অপরাধ, জেনে শুনে অন্যের ক্ষতি করা। ভুল হবেই। আমি কেন্দ্রের চেয়ারম্যান, ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান। অহঙ্কার করবেন না। “দেখেন না আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। পত্র-পত্রিকা দেখছেন না? সমস্ত পত্রিকা এখন ক্যাসিনোতে ভরা। এই ক্যাসিনোর মালিকেরা না কি আমরা। এটি মিথ্যা নয়। এই পত্রিকার ইনফরমেশন যদি আমরা আগে পেতাম তাহলে ব্যবস্থা নিতে পারতাম। “আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী অ্যাকটিভ। একের পর এক ধরছে, যারে ধরবে তারে বহিষ্কার করব। রাজনীতি করার অধিকার থাকবে না। ক্যাসিনো চালাও তুমি যেই হও।” যত বড় নেতাই হোক না কেন ক্যাসিনো পরিচালনাকারীদের ধরতে আইনশঙ্খলা বাহিনীর প্রতি আহ্বান জানান যুবলীগ চেয়ারম্যান। নেতাকর্মীদের সোজা পথে চলার পরামর্শ দিয়ে তিনি বলেন, “আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ধরতেছে, দেখেন না? বেশি স্মার্ট হওয়ার দরকার নাই। যুবলীগ করতে হলে ম্যানেজার হতে হবে। চাঁদাবাজি করো? “এইটা শেখ হাসিনা সরকারের আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। এটা বাবর আলীর মন্ত্রণালয় না, এটা খালেদা জিয়ার মন্ত্রণালয় না। যুবলীগ কইরা মাতব্বরি করবেন, ওই দিন শেষ। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী মাইরা পাছা লাল করতেছে, দেখেন না?”

আরো খবর...