কৃষিযন্ত্র কিনতে সুদবিহীন ঋণ

কৃষি প্রতিবেদক ॥ কৃষকদের জন্য আরো একটি সুখবর এসেছে। সরকার কৃষকদের নানা ধরনের ভর্তুকি দিচ্ছে। এর অংশ হিসেবে সাশ্রয়ী মূল্যে কৃষিযন্ত্র পাচ্ছেন সাধারণ কৃষকরা। এবার সহজ শর্ত ও ন্যূনতম সুদ বা সুদবিহীন ঋণ দিতে একটি নীতিমালা করেছে সরকার। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে গত ৮ জানুয়ারি তার কার্যালয়ে মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে ‘জাতীয় কৃষি যান্ত্রিকীকরণ নীতিমালা ২০১৯’-এর খসড়ার অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। সভা শেষে সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম এক ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান। বৈঠকে ১ মার্চকে বীমা দিবস ঘোষণা এবং দিবসটি মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের এ-সংক্রান্ত পরিপত্রের ‘খ’ ক্রমিকে অন্তর্ভুক্তের প্রস্তাব অনুমোদন এবং ভোটার তালিকা (সংশোধন) আইনের খসড়ার অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। জাতীয় কৃষি যান্ত্রিকীকরণ নীতিমালার কার্যকর হলে দেশে কৃষি যান্ত্রিকীকরণের পরিধি আরো সম্প্রসারিত হবে এবং শ্রমিকের ঘাটতি পুষিয়ে নেওয়া যাবে। এই নীতিমালার আওতায় কৃষকরা সাশ্রয়ী মূল্যে বিভিন্ন ধরনের কৃষিযন্ত্র কেনার সুযোগ ও সহজশর্তে ন্যূনতম সুদ বা সুদবিহীন ঋণ সুবিধা পাবেন। তিনি বলেন, মন্ত্রিসভা নীতিমালাটি অনুমোদন দিয়ে অনুশাসন দিয়েছে ব্যক্তি পর্যায়ের বাইরে সমবায় পদ্ধতিতেও যেন এসব যন্ত্রপাতি কেনা ও ব্যবহারের বিষয়টা নীতিমালায় অন্তর্ভুক্ত করা হয়। যখন আপনি কৃষিযন্ত্র ব্যবহার করবেন ফসল রোপণ, কর্তন, মাড়াইয়ে শ্রমিক অনেক কম লাগবে। ফলে কৃষি শ্রমিকের অপ্রতুলতা মোকাবেলা করে কৃষি উন্নয়নের গতি বৃদ্ধি পাবে, ফসলের অপচয় রোধ হবে, শ্রমিক খরচ কম হওয়ার ফলে উৎপাদন খরচ কমে আসবে, কৃষকরা লাভবান হবেন এবং দেশের যুবসমাজ কৃষিকাজে উদ্বুদ্ধ হবে। অপরপক্ষে বাণিজ্যিক কৃষিব্যবস্থারও প্রসার হবে। অন্যদিকে, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বীমা কোম্পানির চাকরিতে যোগদানের তারিখ, অর্থাৎ ১ মার্চকে ‘বীমা দিবস’ হিসেবে ঘোষণা করেছে সরকার। মন্ত্রিসভার বৈঠকে ১ মার্চকে বীমা দিবস ঘোষণা এবং দিবসটি মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের এ-সংক্রান্ত পরিপত্রের ‘খ’ ক্রমিকে অন্তর্ভুক্তের প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়। ব্রিফিংয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, বীমা দেশের একটি ‘সম্ভাবনাময় ও গুরুত্বপর্ণ’ আর্থিক খাত। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে স্বাধীনতার পর দেশীয় বীমা শিল্প সৃষ্টি হয় এবং বাংলাদেশ ইনস্যুরেন্স ন্যাশনালাইজেশন অর্ডার ১৯৭২, দ্য ইনস্যুরেন্স কো-অপারেশন অ্যাক্ট ১৯৭৩-এর মতো বীমা সংশ্লিষ্ট মৌলিক আইন প্রণীত হয়। এ খাতের ব্যপ্তি বৃদ্ধি এবং জনগণের মধ্যে বীমা সম্পর্কে ইতিবাচক ধারণা তৈরি করতে বর্তমান সরকারও এর আগে বীমা মেলার আয়োজন, দেশব্যাপী বীমা-সম্পর্কিত সভা, সেমিনার, শোভাযাত্রার মতো আয়োজন করেছে। এ কার্যক্রমকে আরো বেগবান করতে বীমার বিস্তৃতি, জনসম্পৃক্ততা তথা জনসচেতনতা বৃদ্ধির জন্য ২০১৪ সালের জাতীয় বীমা নীতিতেও জাতীয় বীমা দিবস পালনের কথা বলা হয়েছে। প্রতিবছর ১ মার্চকে জাতীয় বীমা দিবস হিসেবে পালনের জন্য আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ বিশেষ অনুরোধ করেছিল জানিয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, প্রস্তাব ছিল ২ বা ৩ মার্চ (বীমা দিবস) করার, কিন্তু আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ বলেছে, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৬০ সালের ১ মার্চ তৎকালীন আলফা ইনস্যুরেন্স কোম্পানিতে যোগদান করেছিলেন। এটার সঙ্গে একটা ঐতিহাসিক দিনের সংযোগ আছে। পহেলা মার্চ অন্য কোনো দিবস থাকলে সেটি শিফট করে দেওয়ার জন্য প্রস্তাব করা হয়েছে এবং তা করেও দেওয়া হয়েছে। এতদিন ১ মার্চ ভোটার দিবস হিসেবে পালন করা হলেও গতকাল বুধবারের মন্ত্রিসভার বৈঠকে তা ২ মার্চে স্থানান্তর করা হয়েছে। ভোটার তালিকা (সংশোধন) আইনের খসড়ার অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। প্রতি বছর ২ মার্চ জাতীয় ভোটার দিবস পালন করা হবে। এর আগে ২ জানুয়ারি থেকে ১ মার্চ পর্যন্ত কম্পিউটার ডেটাবেজে থাকা বিদ্যমান সব ভোটার তালিকা হালনাগাদ করা হবে। বর্তমান আইনে কম্পিউটার ডেটাবেজে থাকা ভোটার তালিকা প্রতিবছর ২ জানুয়ারি থেকে ৩১ জানুয়ারির মধ্যে হালনাগাদ করার বিধান রয়েছে।

আরো খবর...