কুষ্টিয়া শহরের চৌড়হাস এলাকায় সুন্নতে খাতনার অনুষ্ঠানে ভ্রাম্যমান আদালত চালিয়ে লাখ টাকা জরিমানা

অনুমতি না মিললে ধুমধামের সাথে আয়োজন

নিজ সংবাদ ॥ সুন্নতে খাতনার আয়োজনটা হতে হবে ধুমধাম।  সেই মোতাবেক দাদা আত্বীয় স্বজনসহ পাড়া প্রতিবেশীদের দাওয়াত দেন। শুক্রবার আয়োজনের দিন ঠিক হয়। কিন্তু বৃহস্পতিবার রাষ্ট্রীয়ভাবে বিধি নিষেধ আসে আয়োজন করা যাবে না। তারপরও নাতির বাবা ইউএনওর কাছে অনুমতি নিতে যান। ইউএনওর অনুমতি মেলে না। এমন খবর জানার পর নাতি কান্না শুরু করে। সাথে যোগ দেন দাদি। নিরুপায় হয়ে দাদা শুক্রবার সকাল থেকেই ধুমধামের সাথে খাওয়া দাওয়ার আয়োজন শুরু করেন। সরকারি চাকুরিজীবী বিষয়টি মেনে নিতে না পেরে বাড়ি  থেকে চলে যান ওই দাদার ছেলে। তবে দুপুরে ইউএনও জানতে পারেন শতাধিক লোক সমাগম করে ওই আয়োজন চলছে।  সেখানে গিয়ে ভ্রাম্যমান আদালত চালিয়ে এক লাখ টাকা জরিমানা করেন আদালত। কুষ্টিয়া সদর উপজেলা পরিষদের সামনে চৌড়হাসা এলাকায় এঘটনা ঘটে। জরিমানার টাকা পরিশোধ করেন দাদা মকবুল হোসেন। তিনি পেশায় একজন চাল ব্যবসায়ী।

সদর উপজেলা পরিষদের নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট জুবায়ের হোসেন চৌধুরী দন্ড বিধির ২৬৯ ধারায় তাকে এক লাখ টাকা জরিমানা করেন। তিনি বলেন, লোক সমাগম করে কোন অনুষ্ঠান এই মূহুর্তে করা যাবে না। বৃহস্পতিবার অনুমতি চাইতে  গেলে নিষেধ করা হয়। নিষেধ স্বত্বেও আয়োজন করে। শুক্রবার দুপুরে গিয়ে দেখতে পান শতাধিক মানুষ সমাগম হয়ে সেখানে খাওয়া দাওয়া করছেন। ভ্রাম্যমান আদালতের আগে চাল ব্যবসায়ী মকবুল হোসেন বলেন, অনুমতি না পাবার খবর শুনে নাতি ও নাতির দাদি কান্না করে। নিরুপায় হয়ে অনুষ্ঠান করেন। নাতির কান্না থামাতে আয়োজনটা বন্ধ করা যায়নি।

আরো খবর...