কুষ্টিয়া মাদক মামলায় ৩ জনের যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদন্ড

জেলা ও দায়রা জজ আদালতের রায়

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুর থানায় নিজ নিয়ন্ত্রণে মাদকদ্রব্য  ফেন্সিডিল রাখার অভিযোগে ৪৭ বিজিবি’র দায়ের করা মাদক মামলায় ৩ জনের যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদন্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত। গতকাল বুধবার দুপুরে কুষ্টিয়ার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিজ্ঞ বিচারক অরূপ কুমার গোস্বামী এক জনাকীর্ণ আদালতে আসামীদের অনুপস্থিতিতে এই রায় ঘোষনা করেন। সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামীরা হলেন-কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার চিলমারী ইউনিয়নের আতার পাড়া গ্রামের চান্দু খাঁ’র ছেলে মোকা খাঁ, আহম্মেদ হাওলাদারের ছেলে জাকির হাওলাদার ও আজিজুল ইসলামের ছেলে আবু সুফিয়ান ওরফে পাতলা। যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদন্ড ছাড়াও প্রত্যেক আসামীকে ২০ বিশ হাজার টাকা করে অর্থদন্ড, অনাদায়ে এক বছর করে সশ্রম কারাদন্ডে দন্ডিত করা হয়। মামলার বিবরণে জানা যায়, ২০১৭ সালের ৩০ জুলাই সন্ধ্যায় ৪৭ বিজিবি সি কোম্পানী, উদয়নগর বিওপি’র হাবিলদার তরিকুল ইসলাম চোরাই প্রতিরোধ ডিউটি করাকালে জানতে পারেন যে, আতারপাড়া সীমান্তে পদ্মার চর এলাকায় নদীর ভিতর দিয়ে কয়েকজন মাদক ব্যবসায়ী পর্যাপ্ত পরিমান ফেনসিডিল বিক্রির উদ্দেশ্যে চটের বস্তায় করে নিয়ে আসছে। এমন সংবাদের ভিত্তিতে টহলদলসহ ইঞ্জিন চালিত ট্রলারযোগে আতারপাড়ায় পদ্মা নদীর ভিতর পৌঁছামাত্রই কয়েকজন মাদক ব্যবসায়ী তাদের রক্ষিত অবৈধ ফেনসিডিল নৌকায় রেখে পদ্মা নদীর পানিতে ঝাপ দিয়ে সাঁতরিয়ে পালিয়ে যায়। এসময় বিজিবি’র সদস্যরা চোরাকারবারীরা তাদের নৌকায় ফেলে যাওয়া ২৫০ বোতল ভারতীয় ফেন্সিডিল উদ্ধার করে ক্যাম্পে নিয়ে আসে। পরে স্থানীয় স্বাক্ষীদের মাধ্যমে পলাতক চোরাকারবারীদের নাম ঠিকানা নিশ্চিত হয়ে তাদের বিরুদ্ধে দৌলতপুর থানায় ১৯৯০ সালের মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনের ১৯ (১) ধারায় একটি মামলা দায়ের করেন। দৌলতপুর থানার মামলা নং-৫২, তারিখ- ৩১-০৭-২০১৭ইং। রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবি ও কুষ্টিয়া জজ কোর্টের পিপি অ্যাড. অনুপ কুমার নন্দী জানান, পুলিশ তদন্তপূর্বক আদালতে চার্জসীট জমা দিলে  সেশন ১১৮১/২০১৮ নং-মামলায় নথিভূক্ত হয়ে বিচার কাজ শুরু হয়। দীর্ঘ স্বাক্ষ্য ও শুনানি শেষে আসামীদেরকে দোষী সাব্যস্ত করে যাবজ্জীবন কারাদন্ডের আদেশ দেন। আসামী পক্ষে মামলাটি পরিচালনা করেন এ্যাড. আব্দুল মোতালেব (স্টেট ডিফেন্স) ও এ্যাড.মোঃ এনামুল হক ।

আরো খবর...