কুষ্টিয়া পৌরসভার দৈনন্দিন কাজের পাশাপাশি নোবেল করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে বিভিন্ন কার্যক্রম অব্যাহত

বিশ^ব্যাপী নোবেল করোনা ভাইরাস আজ এক মহা আতঙ্কের নাম যার ভয়াল থাবা ইতোমধ্যে কেড়ে নিয়েছে বিশে^র প্রায় ৫৪ হাজার মানুষের প্রাণ। বিশ^ স্বাস্থ্য সংস্থা ইতোমধ্যেই এটিকে বৈশি^ক মহামারী হিসেবে ঘোষনা দিয়েছে। এশিয়া, ইউরোপ, আমেরিকা সহ বিশে^র প্রায় ২০০টি দেশে ছড়িয়ে পড়েছে এই মহামারি। প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষ মারা যাচ্ছে এ মহামারিতে, যেটি সামাল দিতে হিমশিম খাচ্ছে উন্নত দেশগুলোসহ প্রতিটি দেশ। বাংলাদেশেও এ আতঙ্ক যৌক্তিকভাবে ছড়িয়ে পড়েছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা মোতাবেক দেশের সরকারী, বেসরকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর পাশাপাশি ব্যক্তিগতভাবেও চলছে এ ভাইরাস প্রতিরোধে নানামুখি কাজ। বাংলাদেশের মডেল পৌরসভা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত কুষ্টিয়া পৌরসভাও নোবেল করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে প্রতিনিয়ত নিয়ে চলেছে নানামুখী পদক্ষেপ।  এ বিষয়ে কুষ্টিয়া পৌরসভার জননন্দিত মেয়র আনোয়ার আলী বলেন, যখন দেশব্যাপি করোনা ভাইরাস আতঙ্কে ঠিক সেই মুহুর্তে বাংলাদেশের স্বনামধন্য চিকিৎসাবিদ, সনোওয়াটার ফিল্টার এর আবিস্কারক ও কুষ্টিয়ার কৃতিসন্তান ডাঃ এ কে এম মুনির গবেষণা করে দেখেন ক্লোটেক দিয়ে  করোনা ভাইরাস ও ডেঙ্গুর জীবানু প্রতিরোধে কাজ করা সম্ভব। তখন ডাঃ এ কে এম মুনির কুষ্টিয়া পৌরবাসীকে এই রোগ প্রতিরোধে কুষ্টিয়া পৌরসভার জননন্দিত মেয়র আনোয়ার আলী সাথে এই বিষয়ে আলোচনা করেন। মেয়র আনোয়ার আলী ডাঃ মুনির এর কাছে কুষ্টিয়া পৌরসভাকে এবিষয়ে সহযোগিতা কামনা করেন। তখন থেকে কুষ্টিয়া  পৌরসভার এ কার্যক্রমে  ক্লোটেক মিশ্রনের মাত্রা ও প্রয়োগ বিধি বিষয়ে কারিগরি সহায়তা দিয়েছেন ডাঃ এ কে এম মুনির। এর পর হতে কুষ্টিয়া পৌরসভার জননন্দিত মেয়র আনোয়ার আলী নেতৃত্বে কাউন্সিলরদের সহায়তায় পৌরসভার প্রতিটি ওয়ার্ডে গত ২৩ মার্চ হতে পৌরসভার পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতা ক্রাশ প্রোগ্রামের আওতায় ওয়ার্ডের বিভিন্ন সড়কে ৮টি ফগার মেশিন এবং ২১টি জীবানু নাশক স্প্রে মেশিনের মাধ্যমে প্রতিদিন ক্লোটেক মিশ্রিত পানি ছিটানো হচ্ছে। এছাড়াও প্রতিটি ওয়ার্ড  কাউন্সিলগন পৌরসভার সহযোগিতায় স্ব স্ব ওয়ার্ডে এই কার্যক্রম পরিচালিত করে আসছে।  মেয়র আরো বলেন, পৌরসভার ২১টি ওয়ার্ডে সকাল ৯টা হতে বিকাল ৩টা পর্যন্ত জীবানুনাশক পানি ছেটানো হচ্ছে। আবার বিকাল তিন ঘটিকা হতে ২টা গাড়ি দিয়ে প্রতিদিন পৌর এলাকার গুরুত্বপূর্ন রাস্তাসহ উপগলি, বাজার ও শহরের গুরুত্বপূর্ন স্থাপনায় ফগার মেশিন দিয়ে ফগিং করা হচ্ছে যা করানা ভাইরাসসহ ডেঙ্গু প্রতিরোধে কাজ করবে। ডাঃ এ কে এম মুনির এর এই কারিগরি সহযোগীতা জন্য পৌরপরিষদ ও পৌরবাসীর  পক্ষ থেকে মেয়র আনোয়ার আলী তাকে বিশেষভাবে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

 

আরো খবর...