কুষ্টিয়া পৌরসভার আয়োজনে শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস পালিত

প্রতি বছরের ন্যায় গতকাল ১৪ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস পালন উপলক্ষে কুষ্টিয়া পৌরসভার আয়োজনে পৌরসভার বিজয় উল্লাস চত্ত্বরে মোমবাতি প্রজ্জলন ও সংক্ষিপ্ত আলোচনা সভায় আয়োজন করা হয়েছে। সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কুষ্টিয়া পৌরসভার ৩ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর বদরুল ইসলাম।  আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন কুষ্টিয়া পৌরসভার নির্বাহী প্রকৌশলী রবিউল ইসলাম, জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সদস্য আব্দুল গনি, বীর মুক্তিযোদ্ধা কাইয়ুম নাজার, শহর আওয়ামীলীগের সাবেক সহ-সভাপতি মাসুদুর রহমান তোতা, সদর থানা আওয়ামীলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল লতিফ প্রামানিক, পৌরসভা এমপ্লয়িজ ইউনিয়নের সভাপতি গোলাম সারোয়ার। সংক্ষিপ্ত আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন, ১৯৭১ সালে ৯ মাস রক্তক্ষয়ী যুদ্ধে বাঙালি জাতি যখন বিজয়ের দ্বারপ্রান্তে তার ঠিক দু’দিন আগে পাকিস্থানি দখলদার বাহিনী প্রতিশোধের এক জঘন্য পথ বেঁছে নেয়। পরাজয় আসন্ন বুঝতে পেরে, সেদিন জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তানদের চোখ বেঁধে তাদের বাড়ি থেকে টেনে-হিছরে বের করে আনা হয় এবং নির্বিচারে বেঁছে বেঁছে এদেশের বিশিষ্ট বুদ্ধিজীবী, কবি-লেখক, সাংবাদিক-সাহিত্যিক, চিকিৎসক-শিক্ষকসহ বিভিন্ন পেশার মানুষদের হত্যা করা হয়। এই জঘন্য কাজে তাদেরকে সহযোগিতা করে হানাদার বাহিনীর এদেশীয় দোসর রাজাকার, আলবদর, আল-সাম্স বাহিনীর সদস্যরা। স্বাধীন দেশে বাঙালি জাতি যাতে মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে না পারে সেজন্য পরিকল্পিতভাবে এ হত্যাকান্ড চালানো হয়েছিল। এসব হত্যাযজ্ঞে যাঁরা নেতৃত্ব দিয়েছে, প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে জড়িত ছিল, তাঁদের সকলের শাস্তি নিশ্চিত করার মধ্য দিয়েই আমরা শহীদ বুদ্ধিজীবীদের প্রতি প্রকৃত শ্রদ্ধা নিবেদন করতে পারব। এসময় উপস্থিত ছিলেন সহকারী প্রকৌশলী ওয়াহেদুর রহমান, পৌরসভার কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দসহ  কুষ্টিয়া পৌরসভা  এমপ্লয়িজ ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক আমান উল্লাহ। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন পৌরসভা উপ-সহকারী প্রকৌশলী সাবিনা ইসলাম ও  এমপ্লয়িজ ইউনিয়নের প্রচার সম্পাদক বিকাশ কুমার ঘোষ। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

আরো খবর...