কুষ্টিয়া জেলা আইনজীবী সমিতিতে আইন গবেষক সিরাজ প্রামাণিক’র ৩১তম আইনগ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন

বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের তরুণ আইনজীবী, গবেষক ও আইনগ্রন্থ প্রণেতা সিরাজ প্রামাণিক এর ৩১তম আইনগ্রন্থ ‘আইনী ভাষ্য’ বইয়ের মোড়ক উন্মোচিত হয়েছে। গতকাল বুধবার কুষ্টিয়া জেলা আইনজীবী সমিতি প্রাঙ্গনে আইনজীবী সমিতির আয়োজনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বইটির মোড়ক উন্মোচন করেন কুষ্টিয়া আইনজীবী সমিতির সভাপতি ও পাবলিক প্রসিকিউটর এ্যাড. অনুপ কুমার নন্দী। প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিজ্ঞ জিপি আ.স.ম আক্তারুজ্জামান মাসুম। বিশেষ অতিথি ছিলেন কুষ্টিয়া জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক এ্যাড. মোঃ আবু সাঈদ। আইনজীবী এনামুল হকের সঞ্চালনায় বইটির উপর আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন এ্যাডভোকেট হাসানুল আসকার হাসু সহ একাধিক সিনিয়র আইনজীবী। এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন কুষ্টিয়া জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক জহিরুল ইসলাম, স্পেশাল পিপি রফিকুল ইসলাম লালন, নারী ও শিশু আদালতের পিপি অঃ হালিম, অতিরিক্ত পিপি জাহাঙ্গীর আলম গালিব, এ্যাড. আঃ মান্নাফ, এ্যাডভোকেট সুধীর কুমার শর্মা, এ্যাড. গোলাম মওলা, এ্যাড. সুভাষ চন্দ্র বিশ্বাস প্রমুখ। বইটি প্রকাশ করেছেন বিখ্যাত প্রকাশনী সংস্থা বটেশ্বর বর্ণন। বইটি পাওয়া যাচ্ছে বটেশ্বর বর্ণন এর ৫৯৬ ও ৫৯৭ নং ষ্টলে। প্রতিটি মানুষেরই নিজস্ব একটা জীবন থাকে, যে জীবনের অভিজ্ঞতায় ব্যক্তি হিসেবে তিনি অনন্য। এ বইয়ের লেখক খুঁটে খুঁটে জানতে চেষ্টা করেছেন আইনাঙ্গনে আসা মানুষের জীবনচিত্র, তাদের ভোগান্তির কথা, কষ্টের কথা, অজ্ঞতার কথা। মানুষের জীবনে ঘটে যাওয়া প্রেম, ভালবাসা, বিয়ে, তালাক, দেনমোহর,  যৌতুক, নারী ও শিশু নির্যাতন, মানবাধিকার, পারিবারিক, হত্যা, জমি বিষয়গুলো নানা অনুষঙ্গ হয়ে লেখকের হৃদয়ে ধরা দিয়েছে। বইটিতে রয়েছে আইনের সহজ পাঠ, বাস্তব কেইস ষ্টাডি, উচ্চ আদালতের সিদ্ধান্ত, সকল শ্রেণী-পেশার মানুষের পাঠ উপযোগী। ফলে এ বই সাধারণ পাঠক থেকে শুরু করে আইনের শিক্ষার্থী, আইনজীবী, বিচারক ও গবেষকদেরও প্রয়োজন মেটাবে। প্রতিটি অধ্যায় আইনের গৎবাঁধা মারপ্যাঁচের শব্দ পরিহার করে সহজবোধ্য করে রচিত হয়েছে। প্রতিটি বিষয়ে দেখানো হয়েছে উদাহরণ। এতে আইনের বিষয়গুলো আর তাত্ত্বিক থাকেনি, হয়ে উঠেছে ব্যবহারিক। ফলে পাঠক সহজেই তাঁর সমস্যার সহজ সমাধান খুঁজে পাবেন। প্রতিটি বিষয়ে সর্বশেষ সংশোধনী থেকে তথ্য  দেওয়া হয়েছে। সুবিন্যস্তভাবে সাজানোর কারণে বিষয়গুলো হয়ে উঠেছে সাবলীল। আইনের ভাষা কঠিন, পড়ে বোঝা কষ্টকর এ ধারণা পাল্টে যাবে বইটি পড়লে। নিত্য প্রয়োজনীয় আইনগুলো নিয়ে কোনো আইনি ঝামেলায় পড়লে কী করতে হবে, নিয়মকানুন কী,  কোথায় যেতে হবে, কত খরচ হবে পাঠক খুব সহজেই এ বই  থেকে পাবেন। একটি দেশে, একটি সমাজে সুশাসন প্রতিষ্ঠার জন্য প্রয়োজন ব্যাপক জনগোষ্ঠীর আইন সম্পর্কে সচেতনতা। এ বাস্তবতার নিরিখে লেখকের এ বইখানি অপরাধ সচেতন একটি জনগোষ্ঠী সৃষ্টি করতে অবদান রাখবে। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

আরো খবর...