কুষ্টিয়ায় মানবপাচার অভিযোগে দুই সহোদর, স্বামী-স্ত্রী ও পূত্রের যাবজ্জীবন সাজা

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়ায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন বিশেষ আদালতে করা একটি মানব পাচার মামলায় এক নারীসহ ৫জনের যাবজ্জীবন কারাদন্ড ও জরিমানা আদেশ দিয়েছেন আদালত। গতকাল সোমবার দুপুর সাড়ে ১২টায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন বিশেষ আদালতের বিচারক মুন্সী মো: মশিয়ার রহমান এক আসামীর অনুপস্থিতিতে এই রায় ঘোষনা করেন। রায়ে কারাদন্ডসহ সব আসামীর একসাথে ৫ লক্ষ টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও এক বছর সাজার আদেশও দেন বিচারক। দন্ডপ্রাপ্তরা হলেন- সদর উপজেলার বটতৈল গ্রামের আকমল হোসেনের ছেলে সালাম ওরফে ডাগু ও সহোদর কানু শেখ, মৃত: সাজাহান ফকিরের ছেলে কুরবার আলী ফকির ও কুরবান আলীর স্ত্রী মিনুরা খাতুন এবং কুরবান ফকিরের ছেলে পলাতক মিজান। সংশ্লিষ্ট আদালতের সরকারী কৌশুলী ভারপ্রাপ্ত পিপি এ্যাড. সাইফুল ইসলাম বাপ্পী বলেন, ২০১৬ সালের ৯সেপ্টেম্বর দুপুরে আসামীরা যোগসাজসে পাচারের উদ্দেশ্যে সদর উপজেলার সোনাডাঙ্গা গ্রামের শফি শেখের ছেলে আজিজুল হককে মালয়েশিয়া পাঠানো কথা বলে বাড়ি থেকে নিয়ে এসে তাকে ভারত হয়ে নেপালে পাঠিয়ে দেয়। সেখানে কিছুদিন আটক থাকা অবস্থায় ভিকটিম আজিজুলকে দিয়ে বাড়িতে ফোন করে ৫লাখ টাকা দাবি করে পাচারকারীরা। দাবিকৃত টাকা পরিশোধ করলেও পরে আজিজুলের আর কোন সন্ধান পায়নি স্বজনরা। এ ঘটনায় ১০ অক্টোবর আজিজুলের পিতা আদালতে নালিশী মামলা করেন। এ মামলায় স্বাক্ষ্য শুনানী শেষে আসামীদের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ প্রমানিত হওয়ায় এই রায় দিয়েছেন আদালত।

আরো খবর...