কুষ্টিয়ায় ধর্ষণ মামলায় যুবকের যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদন্ড

নারী ও শিশু নির্যাতন দমন বিশেষ আদালতের রায়

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ^বিদ্যায় থানায় ৬ষ্ঠ শ্রেনীর স্কুল ছাত্রী অপহরণ ও ধর্ষনের অভিযোগে দায়ের করা মামলায় একজনের যাবজ্জীবন কারাদন্ড ও ১ লাখ ৫০ হাজার টাকা জরিমানার আদেশ দিয়েছেন আদালত। মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টায় কুষ্টিয়া নারী ও শিশু নির্যাতন দমন বিশেষ আদালতের বিজ্ঞ বিচারক মুন্সী মোঃ মশিয়ার রহমান এক জনাকীর্ণ আদালতে আসামীর উপস্থিতিতে এই রায় ঘোষনা করেন। সাজাপ্রাপ্ত আসামী হলেন-ঝিনাইদহ হরিনাকুন্ডু উপজেলার ভেড়াখালী গ্রামের মজিবর রহমানের পূত্র জাফিরুল ইসলাম ওরফে পালক (৩০)।  আদালত সূত্রে জানা যায়, ২০১৭ সালের ২১ জুলাই, সন্ধা ৭টায় কুষ্টিয়া সদর উপজেলার বলরামপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ৬ষ্ঠ শ্রেনীর ছাত্রী বাড়ির পাশর্^স্ত কুমার নদে নিজেদের পোষা হাঁস তাড়িয়ে আনতে যায়। সেখান থেকে আসামী জাফিরুল ওই ছাত্রীকে জোরপূর্বক মুখে গামছা বেধে অপহরণ করে পাশর্^স্ত কলা বাগানে নিয়ে গিয়ে একাধিকবার ধর্ষণ করে গুরুতর আহত অবস্থায় সেখানে ওই ছাত্রীকে ফেলে রেখে পালিয়ে যায়। পরদিন সকালে পরিবারের লোকজন ঘটনাস্থল থেকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে। এই ঘটনায় ভুক্তভোগী ছাত্রীর পিতা বাদী হয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন বিশেষ আইনের দ:বি: ৯(১) এবং ৭ ধারায় অভিযোগ এনে যুবক জাফিরুল ইসলামের বিরুদ্ধে কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ^বিদ্যায় থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলাটি তদন্ত শেষে ২০১৭ সালের ১২ ডিসেম্বর আদালতে চার্জশীট দাখিল করেন পুলিশ। কুষ্টিয়া নারী ও শিশু নির্যাতন দমন বিশেষ পিপি এ্যাড. আকরাম হোসেন দুলাল জানান, চাঞ্চল্যকর এই স্কুল ছাত্রী অপহরণ পূর্বক ধর্ষণ মামলায় আসামী জাফিরুল ইসলামের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন পূর্বক বিজ্ঞ আদালত দীর্ঘ স্বাক্ষ্য শুনানী করেন এবং আসামীর বিরুদ্ধে আনীত নারী ও শিশু নির্যাতন দমন বিশেষ আইনের দ:বি: ৯(১) এবং ৭ ধারার দুই অভিযোগ সন্দেহাতীত প্রমানিত হওয়ায় একটি ধারায় তাকে যাবজ্জীবন কারাদন্ডসহ ১ লাখ টাকা জরিমানা অপরটিতে ১৪ বছর কারাদন্ডসহ ৫০হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও ৩ মাসের কারাদন্ডাদেশ দিয়েছেন আদালত।

আরো খবর...