কুষ্টিয়ায় জাতীয় কন্ঠশিল্পী আব্দুল জব্বার ক্রিকেট টুর্নামেন্ট-২০১৯ এর ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত

গতকাল শুক্রবার বিকেলে শহরের মিলাপাড়ায় মোহিনীমিল মাঠে জাতীয় কন্ঠশিল্পী আব্দুল জব্বার ক্রিকেট টুর্নামেন্ট-২০১৯ এর ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত হয়েছে। টুর্নামেন্ট উপলক্ষে এক আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। সভায় আব্দুল জব্বার এর দৈহিত্র আব্দুর রব জনি’র সভাপতিত্ব অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কুষ্টিয়া পৌরসভার ১১ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আনিছ কোরাইশী ও ১০ নং ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিলর নিজাম উদ্দিন খাঁন। আনিস কোরাইশী তার বক্তব্যে বলেন,  কুষ্টিয়ার কৃতি  সন্তান মরহুম আব্দুল জব্বার ১৯৩৮ সালে কুষ্টিয়া শহরের আড়–য়াপাড়া শহীদ লিয়াকত সড়কে জন্মগ্রহন করেন। তিনি প্রথম বেতারে গান পরিবেশন করেন ১৯৫৮ সালে। ১৯৬৪ কন্ঠযোদ্ধা আব্দুল জব্বার চলচিত্রে প্রথম গান পরিবেশন করেন। এর পরে মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে তার সুর ও গানকে অস্ত্র হিসেবে গ্রহন করেছিল বাংলাদেশের মুক্তিকামী মানুষ। আর বাঙ্গালী জাতিকে জাগ্রত করেছিল এই গুণী শিল্পীর গানে। ২০১৭ সালে ৩০ আগষ্ট জাতীয় কন্ঠশিল্পী আব্দুল জব্বার মৃত্যুবরণ করেন। তাই নতুন প্রজন্মের কাছে প্রয়াত আব্দুল জব্বারকে তুলে ধরার জন্য ২য় বছরের ন্যায় এই টুর্নামেন্টের আয়োজন করা হয়েছে।  আর এই ক্রিকেট টুর্নামেন্টকে কেন্দ্র করে শহরের বিভিন্ন এলাকা থেকে ৩২ টি দল অংশ গ্রহন করেছে। সাংস্কৃতির রাজধানী কুষ্টিয়াতে এই টুর্নামেন্টের মাধ্যমে আরো জাতীয় ক্রিকেটার তৈরি হবে বলে আমি আশা করি। ফাইনাল খেলায় এল বি ফ্যাশানকে ৯ ইউকেটে হারিয়ে সুরু স্মৃতি বিজয়ী হয়। পরে বিজয়ী সুরু স্মৃতিকে চাম্পিয়ান টপি ও কুড়ি হাজার টাকার প্রাইজমানি এবং রানার্সআপ এল বি ফ্যাশানকে টপি ও দশ হাজার টাকা প্রাইজ মানি  প্রদান করা হয়। ম্যান অব দ্যা ম্যাচ ও ম্যান অব দ্যা টুনামেন্ট হয়েছে শৈশব। টুর্নামেন্টের সার্বিক পরিচালনা করেন রনি আমিন জ্যাকি ও হাসিব কোরাইশী। উল্লেখ্য, টুর্নামেন্টকে ঘিরে মাঠ সেজেছিল নতুন সাজে। বিভিন্ন শ্রেনী পেশা  আর উঠতি বয়সী ছেলেদের ভিড়ে মোহিনীমিল মাঠে ছিল আনন্দ মুখোর পরিবেশ। এসময় আব্দুল জব্বার  পরিবারের সদস্যবৃন্দ ও এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

আরো খবর...