কুষ্টিয়ার সেই শিল্পী মেম্বরের বিরুদ্ধে অভিযোগের পুণ:তদন্তে আবার শতভাগ সত্যতা পেল তদন্ত দল

নিজ সংবাদ ॥ বয়স্ক, বিধবা, পুঙ্গ, মাতৃকালিন ভাতা, ভিজিএফ, চালের কার্ড, নলকুপ প্রদান, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে চাকুরী দেয়ার নামে মিথ্যা প্রতিশ্র“তি দিয়ে শত শত মানুষের কাছে থেকে কৌশলে  মোটা অংকের নগদ অর্থ হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগে কুষ্টিয়ার বটতৈল ইউনিয়নের সেই শিল্পী মেম্বরের বিরুদ্ধে জেলা প্রশাসক ও  চেয়ারম্যানের কাছে মেম্বরের বিচার দাবী আবারও আবেদন করেন অর্ধশত প্রতারিত নারী-পুরুষ। আবেদন পাওয়ার পর তদন্তে নামেন বটতৈল ইউনিয়ন পরিষদ থেকে গঠিত তদন্ত দল। এই তদন্ত দলে ইউনিয়ন সচিব প্রশান্ত কুমার প্রদীপ ও ২ জন ইউপি সদস্য কালাম ও সালাউদ্দিনকে নিয়ে তদন্ত শুরু করেন। শিল্পী  মেম্বরের বিরুদ্ধে নতুন করে তদন্তে আবার শতভাগ সত্যতা  পেয়েছেন এবং তদন্ত রিপোর্ট চেয়ারম্যানের কাছে জমা দিয়েছেন বলে জানান তদন্ত দলের সদস্য আবুল কালাম । এদিকে বার বার তদন্তে অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেলেও কেন কি কারনে কর্তৃপক্ষ ওই মেম্বরের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করছেন না এ নিয়ে ইউনিয়নবাসীর মধ্যে নানা সমালোচনা চলছে। এদিকে সচেতন মহলের কেউ কেউ বলছেন তদন্তে আর কতবার সত্যতা পাওয়া  গেলে দুর্নীতিবাজ শিল্পী মেম্বরের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ? এবার ইউনিয়ন পরিষদ থেকে গঠিত তদন্তে অভিযোগের সত্যতা পাওয়ার পর অভিযুক্ত মেম্বরের বিরুদ্ধে কি ব্যবস্থা নেন এটাই দেখার অপেক্ষায় বটতৈল ইউনিয়নবাসী। এ ব্যাপারে জানতে বটতৈল ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এম এ মমিন মন্ডলের  মোবাইল ফোনে একাধিকবার ফোন দিয়েও তাকে পাওয়া যায়নি।

আরো খবর...