কুমারখালীতে মামলা তুলে না নেয়ায় হত্যার চেষ্টা

কুমারখালী প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে মামলা তুলে না নেয়ায় হত্যা চেষ্টা চালিয়েছে দূর্বৃত্তরা। এ ঘটনায় আবার মামলা দায়ের হয়েছে তাদের বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটেছে কুমারখালী থানার যদুবয়রা ইউনিয়নের রসুলপুর গ্রামে। সুত্রে জানা পূর্ব শক্রতার জের ধরে বাদী আব্দুল আজিজ ও বিবাদী ময়নুল ইসলামের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছে। নিজেদের আত্মরক্ষায় আব্দুল আজিজ ময়নুল ইসলামের নামে কুমারখালী থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করেন। সেই শক্রতার জের ধরে প্রথমত ৩ জুলাই আব্দুল আজিজের উপর দেশীয় অস্ত্র দিয়ে বেধড়ক মারপিট চালায়। সম্পুর্ণ রূপে ক্ষত ও অচেতন অবস্থাতে উদ্ধার করে কুষ্টিয়া সদর হাসপাতালে নিয়ে আসেন এলকাবাসী। তার সুবাদে আব্দুল আজিজের স্ত্রী হেলেনা খাতুন বাদী হয়ে গত ১৭ জুলাই  কুমারখালী থানাতে একটি মামলা দ্বায়ের করেন যার মামলা নং ১৫/১৬১। ওখানেই শেষ নয় মামলা তুলে নেওয়ার জন্য পরিবারটির উপর দিনে রাতে চাপ সুষ্টি করতে থাকেন মামলার আসামী পক্ষের আকমল হোসেন, লোকমান হোসেন ও শহিদুল ইসলামসহ বেশ কয়েকজন। এমনকি মামলা তুলে না নিলে প্রাণে মেরে দিবে বলেও হুমকী দিয়ে আসছে বেশ কিছু দিন ধরে। এর পর ২০ সেপ্টেম্বর রাত সাড়ে ৯টায় আব্দুল আজিজ চৌরঙ্গী বাজার হতে বাড়ি ফেরার সময় ময়নুল ইসলাম (৫২) পিতা: মৃত মোস্তাক আমী , রেজাউল ইসলাম (৩৮) পিতা: মৃত আব্দুল খালেক , হুরমত আলী (৪০) পিতা: কেতাব আলী, আকমল (৪২), সহিদুল ইসলাম (৪০), সর্ব পিতা মৃত বানান আলী, বুদো শেখ (৪৫) পিতা: জাফর আলী, মিলন হোসেন (৪০), মিল্টন (৩৬) সর্ব পিতা: মৃত লিয়াকত আলী, রিপন (৩২) পিতা: মৃত সিরাজ উদ্দিন, সর্ব সাং- রসুলপুর, থানা কুমারখালী তাকে হত্যার উদ্দেশ্যে দেশী ধারালো আস্ত্র দিয়ে মাথায়, হাতে, পায়ে সহ সমস্থ শরীরে আঘাত করলে তিনি মাটিতে লুটিয়ে পরে। তাদের হাতে থাকা ধারালো অস্ত্রের মধ্যে হাসুয়া, ছোরা, লোহার রড, হাতুড়ী ও বাঁশ। পরে এলাকাবাসীর চেচামেচিতে আক্রমন কারীরা ঘটনা স্থান ত্যাগ করে। পরে ক্ষত অবস্থায় আব্দুল আজিজ উদ্ধার করে কুষ্টিয়া ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করেন। বর্তমানে তিনি হাসপাতালের বেডে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছেন। মাথায়, হাতে, পায়ে সহ শরীরে প্রায় ১২ টি যায়গার হাড় ভেংগে গিয়েছে তার। এঁর সুবাদে পূণরায় আব্দুল আজিজের স্ত্রী হেলেনা খাতুন কুমারখালী থানাতে ২৫ সেপ্টেম্বর মামলা দ্বারের করেন যার মামলা নং- ২২/২২৩। এ বিষয়ে কুমারখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার মজিবুর রহমানের সাথে কথা বললে তিনি অভিযুক্ত আসামীদের ধরতে পুলিশ পাঠিয়েছেন বলে জানান।

আরো খবর...