কাল কুষ্টিয়া জেলা আইনজীবী সমিতির নির্বাচন

সকল প্রচার-প্রচারণা শেষ

আরিফ মেহমুদ ॥ নির্বাচনী সকল প্রচার-প্রচারণা শেষ। আগামীকাল ২৫ ফেব্র“য়ারী মঙ্গলবার কুষ্টিয়া জেলা আইনজীবী সমিতির কার্য্য নির্বাহী পরিষদের ২০২০-২০২১ বর্ষের সাধারণ নির্বাচন। নির্বাচন কমিশন ইতোমধ্যেই ভোট গ্রহনের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে। জেলা আইনজীবী ভবনের নীচতলায় হলরুমে সকাল সাড়ে ৯টা থেকে ভোট গ্রহণ শুরু হয়ে বিরতিহীনভাবে চলবে বিকেল সাড়ে ৩টা পর্যন্ত। এবারের নির্বাচনে ৩৮৪ জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করে পছন্দের প্রার্থীদের জয়যুক্ত করবেন। গতকাল রবিবার সারাদিন থেকে গভীর রাত পর্যন্ত  চলেছে নির্বাচনে অংশ নেয়া দুটি প্যানেলের নির্বাচনী মত বিনিময় সভা এবং ভোটের শেষ হিসাব নিকাশ। মাঠ জরিপে দেখা গেছে “স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা অব্যাহত রাখার লক্ষে” শ্লোগান নিয়ে নির্বাচনী মাঠে নামা বর্তমান সভাপতি এ্যাড.অনুপ কুমার নন্দী- বর্তমান সাধারন সম্পাদক এ্যাড. শেখ মোহাম্মদ আবু সাঈদ প্যানেল প্রচার-প্রচারনায় এগিয়ে রয়েছে। কাল মঙ্গলবার সেই মাহিন্দ্রক্ষণ। নির্বাচনে কারা জয়যুক্ত হয়ে কোন প্যানেল কুষ্টিয়া জেলা আইনজীবী সমিতির নেতৃত্বে আসছেন তা নিয়ে সরগরম আদালতপাড়া এবং সেদিকেই চেয়ে আছেন কুষ্টিয়া জেলাবাসী। নির্বাচন কমিশন সূত্র নিশ্চিত করেছেন এবারের নির্বাচনে ১৭টি পদের জন্য ৩৩ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দীতা করছেন। এবারের নির্বাচনেও আগের মতই সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে হাড্ডা-হাড্ডি লড়াই হবে বলে ভোটারদের ধারনা। নির্বাচনে এখন প্রায় প্রকাশ্যে দুটি প্যানেলের প্রার্থী-কর্মী সমর্থকরা দল বেধে ভোট চেয়েছেন ভোটারদের কাছে। হ্যাভি ওয়েট প্রার্থীরা কে কোন প্যানেলের হয়ে প্রার্থী সেটি কিন্তু ভোটারদের কাছে পরিস্কার হয়ে উঠেছে। নির্বাচন নিয়ে আইনজীবীদের মাঝে উত্তাপের আমেজ বইছে। প্রার্থীরা খুব জোরে-সরেই নির্বাচনী মাঠে নেমেছিলেন। এখনো চলেছে নিজ নিজ সেরেস্তার আইনজীবীদের নিয়ন্ত্রণের জোর চেষ্টা। পেশাগত হাজারো ব্যস্ততার মধ্যেও ভোটকে কেন্দ্র একে অপরের সাথে দেখা করেছেন এবং ভোটারদের কাছে ভোট প্রার্থনা করেছেন প্রার্থীরা। নির্বাচন কমিশন সুত্রে জানা যায়, এবারের নির্বাচনে চুড়ান্ত প্রার্থী হিসেবে সভাপতি পদে প্রতিদ্বন্দিতা করছেন দুইজন প্রার্থী কুষ্টিয়ার পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) বর্তমান সভাপতি এ্যাড.অনুপ কুমার নন্দী ও সিনিয়ার আইনজীবী এ্যাড.আব্দুল জলিল। সিনিয়র সহ-সভাপতি পদে দ্ইুজন এ্যাড. কাজী ইমদাদুল হক ও তানজিলুর রহমান এনাম, সহ-সভাপতি দুইজন এ্যাড. মঞ্জুরী বেগম ও এ্যাড. আব্দুল ওয়াদুদ।

সাধারন সম্পাদক পদে চার জন প্রার্থী নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দিতা করছেন এরা হলেন- সিনিয়র আইনজীবি ও সাবেক ছাত্রনেতা এ্যাড.আকরাম হোসেন দুলাল, সিনিয়ার আইনজীবী বর্তমান সাধারন সম্পাদক এ্যাড. শেখ মোহাম্মদ আবু সাঈদ, সিনিয়র আইনজীবি এ্যাড.খাদেমুল ইসলাম ও এ্যাড. রফিকুল ইসলাম সবুজ।

যুগ্ম-সম্পাদক পদে ৪ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দিতা করছেন এরা হলেন-এ্যাড. আল মুজাহিদ হোসেন মিঠু, এ্যাড. এস.এম মনোয়ার হোসেন মুকুল, এ্যাড. ইকবাল হোসেন টুকু ও এ্যাড. শহিদুল ইসলাম বাবু। কোষাধ্যাক্ষ পদে দুইজন এ্যাড.আব্দুর রশিদ (২), এ্যাড. বুলবুল আহমেদ। লাইব্রেরী সম্পাদক পদে দুই জন এ্যাড. এস.এম শাতীল মাহমুদ ও এ্যাড. মোস্তাফিজুর রহমান।

সাংস্কৃতিক সম্পাদক পদে এ্যাড.নাজমুন নাহার বিনা প্রতিদ্বন্দিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। দপ্তর সম্পাদক পদে এ্যাড.আবুল হাশিম, এ্যাড. মনোয়ারুল ইসলাম (মনিরুল) প্রতিদ্বন্দিতা করছেন।

সিনিয়ার সদস্য ৪ টি পদে ৭ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দিতা করছেন এরা হলেন-সিনিয়র এ্যাড. শামসুজ্জামান মনি, এ্যাড. ইকবাল হোসেন (১) এ্যাড. তরুন কুমার বিশ্বাস, এ্যাড. মাহমুদুল হক চঞ্চল, এ্যাড. কাজী সিদ্দিক আলী, এ্যাড. নিজাম উদ্দিন ও এ্যাড. আব্দুর রহীম।

জুনিয়র সদস্য ৪ টি পদে ৫ প্রার্থী প্রতিদ্বন্দিতা করছেন এরা হলেন-এ্যাড. শামীম হোসেন, এ্যাড. মখলেছুর রহমান পিন্টু, এ্যাড. ইমরান হোসেন দোলন, এ্যাড. সালমা সুলতানা ও এ্যাড. আব্দুর রাজ্জাক।

এবারের নির্বাচনে নির্বাচন কমিশনের চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন সিনিয়র আইনজীবী এ্যাড. এস.এম আনসার আলী। নির্বাচন কমিশনের সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন এ্যাড.মতিয়ার রহমান (১) ও এ্যাড.আশরাফ হোসেন।

আরো খবর...