কাল্পনিক হলেও অঞ্জনার প্রতি পরম মায়া, ভালোবাসা আছে

বিনোদন বাজার ॥ জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী মনির খান। সংগীত ক্যারিয়ারে অসংখ্য শ্রোতাপ্রিয় গান উপহার দিয়েছেন। চল্লিশের অধিক একক অ্যালবাম প্রকাশিত হয়েছে তার। প্রাপ্তির ঝুলিতে জমা হয়েছে তিনবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার। মনির খানের ক্যারিয়ারে সবচেয়ে জনপ্রিয় গান অঞ্জনা। ব্যাপক জনপ্রিয়তা পায় অঞ্জনা সিরিজের গানগুলো। সংগীত ক্যারিয়ারে তার প্রায় প্রত্যেকটি অ্যালবামে অঞ্জনা শিরোনামে বিশেষ গান রাখা হয়। ভক্তরা অনেকেই মনে করেন অঞ্জনা মনির খানের হারিয়ে যাওয়া প্রেমিকা। গীতিকার গান লিখেন আর শিল্পী তাতেই কণ্ঠ দেন। তাই আবার অনেকেই ভাবতেন অঞ্জনা গীতিকার মিল্টন খন্দকারের প্রেমিকা ছিলেন। কারণ অঞ্জনা শিরোনামের সবগুলো গান মিল্টন খন্দকারের লেখা। কিন্তু আসল সত্য কী? এ বিষয়ে কথা বলেছেন মিল্টন খন্দকার। তিনি বলেন, ওই সময়ে কলকাতার অঞ্জন দত্তের একটি অ্যালবাম বেরিয়েছিল। সেই অ্যালবামের মধ্যে একটা গান আমার অসম্ভব ভালো লাগে। সেটা হলো ‘রঞ্জনা আমি আর আসবো না’। আমরা তো আর রঞ্জনা গান বানাতে পারছি না। সেই কারণে রঞ্জনাকে অঞ্জনা বানিয়ে দিলাম। তিনি আরো বলেন, তারপর অঞ্জনাকে নিয়ে আমরা গান লিখলামÑ‘অঞ্জনা, হয়তো এ গান তুমি শুনছো না, নাকি শুনছো, নাকি নিভৃতে নির্জনে একা একা মনে মনে, তোমার বুকের কোণে অন্য কারো ঘর বুনছো, নাকি বুনছো না।’ এইটা রিলিজ দেওয়ার পর মানুষ ভীষণভাবে গ্রহণ করে। তখন আমার একটা ইচ্ছে জাগে, অঞ্জনা নামে একটি চরিত্র থাকবে। তাকে নিয়ে গান হবে। দ্বিতীয় গান বানালাম সেটাও হিট। এর পরে অঞ্জনার গান সবগুলো অ্যালবামে রেখেছি। অঞ্জনা চরিত্রটি কাল্পনিক হলেও অঞ্জনার প্রতি পরম মায়া, ভালোবাসা, স্নেহ আছে। এ কথায় সম্মতি দিয়ে মনির খান বলেন, গানের অঞ্জনা কাল্পনিক। গানের চরিত্রের নাম এটি। অঞ্জনা বলতে আমার জীবনে কেউ ছিল না। এই নামে কারো সঙ্গে আমার দেখাও হয়নি। আমার ভক্তরা এই নামটিকে তাদের মতো করে মনে করে নিয়েছেন। আমার ভক্তদের জন্য ভালোবাসা তারা গানগুলো এতটাই পছন্দ করেছেন যে, কাল্পনিক এই চরিত্রকে সত্যি মনে করছেন। অঞ্জনাকে নিয়ে এ পর্যন্ত ২৬টির মতো গান গেয়েছেন মনির খান। সর্বশেষ চলতি বছরের শুরুর দিকে ‘অঞ্জনা ২০২০’ শিরোনামে গান প্রকাশ করেন। এই গানে অঞ্জনাকে মীরজাফর, রাজাকার, বেঈমানের সঙ্গে তুলনা করা হয়েছে।

 

 

আরো খবর...