করোনায় আরেক পুলিশ সদস্যের মৃত্যু, আক্রান্ত প্রায় ১২শ জন

ঢাকা অফিস ॥ করোনাভাইরাস প্রতিরোধে মাঠ পর্যায়ে কাজ করতে গিয়ে প্রাণ দিলেন বাংলাদেশ পুলিশের আরেক সদস্য। করোনা আক্রান্ত হয়ে পুলিশের সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) শ্রী রঘুনাথ রায় (৪৮) গতকাল বুধবার সকালে মারা গেছেন। এ নিয়ে চলমান করোনাযুদ্ধে বাংলাদেশ পুলিশের ছয়জন গর্বিত সদস্য দেশ মাতৃকার সেবা করতে গিয়ে আত্মোৎসর্গ করলেন। রঘুনাথ রায় ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) পাবলিক অর্ডার ম্যানেজমেন্ট (পিওএম) দক্ষিণ বিভাগের আলফা কোম্পানিতে কর্মরত ছিলেন। এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বিষয়টি নিশ্চিত করেছে পুলিশ সদর দফতর। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, করোনাযুদ্ধে শ্রী রঘুনাথ রায়ের মৃত্যুতে বাংলাদেশ পুলিশ গভীরভাবে শোকাহত। একই সঙ্গে দেশের মানুষের নিরাপত্তা ও সুরক্ষা নিশ্চিত করতে গিয়ে সহকর্মীর এমন আত্মত্যাগের জন্য বাংলাদেশ পুলিশের প্রতিটি সদস্য গর্বিত। শ্রী রঘুনাথ রায়ের করোনাভাইরাস ধরা পড়ার পর তিনি রাজারবাগ কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাকে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) স্থানান্তর করা হয়। গতকাল বুধবার সকাল ৮ টা ২০ মিনিটে তিনি মারা যান। রঘুনাথ রায়ের গ্রামের বাড়ি লক্ষ্মীপুর জেলায়। তিনি স্ত্রী, এক কন্যা এবং এক পুত্রসহ বহু আত্মীয়স্বজন ও গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। পুলিশের ব্যবস্থাপনায় রঘুনাথ রায়ের লাশ গ্রামের বাড়িতে পাঠানো হয়েছে। সেখানে জেলা পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে ধর্মীয় বিধান অনুযায়ী তার মৃত্যু পরবর্তী আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করা হবে। করোনায় আক্রান্ত হয়ে জীবন দিয়েছেন ৬ পুলিশ সদস্য। তাদের মধ্যে চারজন ডিএমপির, একজন এসবির। তারা হলেন, ডিএমপির কনস্টেবল জসিম উদ্দিন (৪০), এএসআই মো. আবদুল খালেক (৩৬), ট্রাফিক বিভাগের কনস্টেবল মো. আশেক মাহমুদ (৪৩), পিওএমের এসআই সুলতানুল আরেফিন, পুলিশের বিশেষ শাখার এসআই নাজির উদ্দীন (৫৫) এবং পিওএমের এএসআই রঘুনাথ রায়। প্রায় ১২শ পুলিশ করোনা আক্রান্ত: দেশে ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ৩৭ পুলিশ কর্মকর্তা করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্ত হয়েছেন। সবমিলে পুলিশে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১১৯০ জনে। আর করোনাযুদ্ধে এ পর্যন্ত মারা গেছেন ৬ জন পুলিশ সদস্য। ঢাকাসহ সারাদেশের পুলিশ ইউনিটের তথ্য অনুযায়ী, গতকাল বুধবার পর্যন্ত মোট আক্রান্ত হয়েছেন ১১৯০ জন পুলিশ। গত মঙ্গলবার এই সংখ্যা ছিল ১১৫৩। মোট আক্রান্তদের মধ্যে শুধু ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশেই (ডিএমপি) ৫৭৬ জন রয়েছেন। আক্রান্তদের মধ্যে মাঠপর্যায়ের পুলিশ সদস্যই বেশি। ডিএমপি জানায়, করোনায় মাঠপর্যায়ের কর্মকর্তা ছাড়াও তাদের দুই জন অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (এডিসি) ও একজন সহকারী পুলিশ কমিশনার (এসি) পদমর্যাদার কর্মকর্তা আক্রান্ত হয়েছেন। সারাদেশের পুলিশের বিভিন্ন ইউনিটের তথ্য উপাত্ত থেকে জানা গেছে, পুলিশে করোনা আক্রান্ত সন্দেহে আরও ১০৮৯ জনকে আইসোলেশনে রাখা হয়েছে। আক্রান্তদের সংস্পর্শে আসায় ১২৬০ জন কর্মকর্তাকে কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। এ পর্যন্ত ৮৫ জন পুলিশ সদস্য সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন। পুলিশ সদর দপ্তরের সহকারী মহাপরিদর্শক (এআইজি) সোহেল রানা বলেন, জনগণের সুরক্ষায় বাংলাদেশ পুলিশের দুই লক্ষাধিক সদস্য মাঠে আছেন। দায়িত্ব পালনের সময় তারা যেন প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলে নিজেকে সুরক্ষিত করতে পারেন এ বিষয়ে আমরা তাদের সচেতন করেছি। তাদের মাস্ক ও হ্যান্ডগ্লাভস সরবরাহ করা হয়েছে। এ ছাড়া তারা যেসব অফিস ও ব্যারাকে থাকছেন, সেখানে আমরা পর্যাপ্ত জীবাণুনাশকের ব্যবহার করেছি। এ ছাড়া এমন অবস্থায় একে অপরের সহযোগিতায় এগিয়ে আসছেন পুলিশ সদস্যরা। যাদের মধ্যে একজন কনস্টেবল বাহাউদ্দিন। করোনায় আক্রান্ত সহকর্মীদের সেবায় তার ভূমিকা অনন্য। তিনি একাই আক্রান্ত ৮০ জন পুলিশ সদস্যকে অ্যাম্বুলেন্সে করে হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করিয়েছেন।

আরো খবর...